বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চলন্ত রাস্তায় পেছন থেকে একটি ট্রাক কাছাকাছি চলে আসে। ভাঙা রাস্তায় মোটরসাইকেল স্লিপ করায় পড়ে যান মা। তখন কোলে ছিল চৌদ্দ মাসের শিশুকন্যা নীলা। মেয়েকে ছুড়ে ফেলে নিজে ট্রাকের চাকার নিচে পিষ্ট হন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি নীলারও। প্রাণ যায় মা-মেয়ে দু’জনের।

মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) মর্মান্তিক মৃত্যুর এ ঘটনা ঘটে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের চায়নামোড় টোলবক্স এলাকায়।

পুলিশ ও নিহতদের স্বজনরা জানান, নগরীর ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের চরপুলিয়ামারী এলাকার রবিকুল ইসলামের মেয়ে রুবিনা বেগম (২৪)। দুই বছর আগে তার বিয়ে হয় ত্রিশালের বৈলর এলাকার রনি মিয়ার সাথে। নীলা নামে চৌদ্দ মাস বয়সী একটি কন্যা সন্তান রয়েছে তাদের।

রুবিনা চাচাতো বোন আজনা বেগমের বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গত রোববার বাবার বাড়িতে যান। মঙ্গলবার বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল বাড়িতে। সকাল থেকে বর পক্ষের আপ্যায়নের জন্য প্রস্তুতি চলছিল। এর মধ্যে খবর আসে রুবিনার স্বামী রনির ফুফু মারা গেছেন। মৃত্যু সংবাদ পেয়ে বেলা ১২ টার দিকে স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ির দিকে রওনা দেন। ওই সময় শ্বশুর বাড়ির লোকজন অনেক বারণ করলেও তা শোনেনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাড়ি থেকে বের হয়ে কয়েক কিলোমিটার দূরের ময়মননিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের চায়নামোড় টোলবক্স এলাকায় যেতেই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে মোটারসাইকেলটি। সড়কটির ওই অংশ ইট সলিং করা থাকায় মারাত্মকভাবে খানাখন্দ সৃষ্টি হয়ে রয়েছে। তার সাথে বালু বোঝাই খোলা ট্রাক থেকে বালু পড়ে সড়কটিতে পিচ্ছিল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

ময়মনসিংহগামী মোটরসাইকেলটিকে পেছনে থাকা বালু বোঝাই ট্রাক কাছাকাছি চলে গেলে ব্রেক কষতে গিয়ে স্লিপ করে মোটরসাইকেলটি। ওই সময় সন্তান কোলে রুবিনা পড়ে যান। অবস্থা বেগতিক দেখে কোলের সন্তাক ছুড়ে ফেলেন রাস্তার ওপারে। নিজে চাপা পড়েন ট্রাকের নিচে। রুবিনা চলন্ত ট্রাকটি পিষে নিয়ে যায় কয়েকগজ।

তখনও ছোট্ট নীলার দেহে প্রাণ ছিল। স্ত্রীর লাশ রাস্তার রেখে মেয়েকে বাঁচাতে রনি ছুটেন হাসপাতালে। কিন্তু সেখানে নেওয়ার পর চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের ভাই আল মামুন বলেন, বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান থাকলেও মৃত্যু সংবাদ পেয়ে তার বোন চলে যায়। বাড়ি থেকে বের হবার কিছুক্ষণের মধ্যেই তার বোন ও ভাগ্নি ট্রাক চাপায় মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের আহাজারিতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পুলিশ ঘাতক ট্রাকটিকে আটক করলেও পালিয়ে গেছে চালক ও হেলপার।

কোতোয়ালি মডেল থানার উপপরিদর্শক মাহফুজুল ইমলাম বলেন, ট্রাক চাপায় মা ও মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। ট্রাকটির বেপরোয়া গতির কারণে দুর্ঘটনাটি ঘটতে পারে।

Previous articleএবার ফেসবুক লাইভে কাদের মির্জার আত্মহত্যার হুমকি
Next articleস্ত্রী-সন্তানকে হত্যা করে পাথর বেঁধে ডোবায় ফেলে দিলেন স্বামী!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।