ওসমান গনি: মুক্তিযোদ্ধা চলাকালীন সময় ৯ নং সেক্টর কমান্ডার হেদায়েত উদ্দীনের নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করে যুদ্ধ করেছিলেন নূরজাহান বেগম। মুক্তিযুদ্ধে দেশ স্বাধীন হলো। দেশের অনেক কিছুরই পরিবর্তন হলো কিন্তু নূরজাহান বেগমের আর্থিক অবস্থার তেমন কোন পরিবর্তন হয়নি। এক এক করে স্বাধীনতার ৪৯ টি বছর পার হয়ে গেলেও বীরাঙ্গনা নূরজাহান বেগমের ভাগ্যের চাকার কোন পরিবর্তন হয়নি আজও। এ যাবত জীর্ণ একটি মাটির ঘরে বসবাস করছেন ওই নারী মুক্তিযোদ্ধা।
চোখের কোণে জমে থাকা পানি মুছে তিনি বলেন, ’মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি হলে একটি ভালো ঘরে একরাত্রি যাপন করে যদি মরতে পারতাম, তাহলে আমি মরে গেলেও আত্মা শান্তি পাবে।’
চান্দিনা উপজেলার বরকইট ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের কিসমত শ্রীমন্তপুর গ্রামে শ^শুর প্রয়াত মহাব্বত আলীর রেখে যাওয়া ৫ শতাংশের বসত ভিটিতে তার বসবাস। একটি মাটির ঘরে ৩ ছেলে, ৩ ছেলের বউ, ৬ নাতি-নাতনিসহ পরিবারের সবাইকে নিয়ে বসবাস করেন। মানবেতর জীবন ওই বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধার।
বড় ছেলে আবদুর রশিদ রাজধানীর তেজগাঁও এলাকার তেজকুনীপাড়ায় চা বিক্রেতা। মেজো ছেলে আবু মিয়া কর্মহীন। ছোট ছেলে বাড়ির সামনে একটি ছোট টিনশেড দোকানে চা বিক্রি করে সংসার চালান। পরিবারের ভরণ-পোষণ করতেই যেখানে কষ্ট হয়, সেখানে একটি নতুন ঘর তৈরি তাদের জন্য বিলাস বহুল কল্পনা।
নিয়মিত মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পাচ্ছেন বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধা নূরজাহান বেগম। তবে করোনা মহামারি দেখা দেওয়ার পর সরকারি কোন অর্থ সহায়তা বা খাদ্য সহায়তা পাননি তিনি। স্থানীয় জন প্রতিনিধিদের নিকট সাহায্যের জন্য গেলে ভাতা প্রাপ্তির বিষয়টি তুলে ধরে অন্য কোন সুযোগ সুবিধা দিতে রাজি হন না তারা।
মুক্তিযোদ্ধা নূরজাহান বেগম জানান, নিজের টাকায় ২টি ছাগল কিনে লালন-পালন করছেন তিনি। বিক্রি করে কিছু টাকা পেলে পরিবারের ব্যয়ভার বহনে অর্থ যোগান হবে। বর্তমানে শারীরিকভাবে অসুস্থ তিনি। গত বছর জানুয়ারি মাসে স্ট্রোক করে প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিলেন। রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজে চিকিৎসা নিয়ে এখন কিছুটা হাঁটাচলা করতে পারেন। উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন তিনি। চিকিৎসার জন্য অন্য মানুষের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা ধার নিয়েছেন। সেই ধার করা ঋণের টাকা এখনও পরিশোধ করতে পারেননি।
মেজো ছেলে আবু মিয়ার বড় সন্তান (নাতি) ফেরদৌস হৃদয় বর্তমানে জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের অধীনে ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিষয়ে বিবিএ (সম্মান) প্রথম বর্ষে অধ্যয়নরত। নাতি যেন একটি সরকারি চাকরি পান এটা তার আশা।
জানা যায়, রাজধানীর তেজগাঁও এলাকার ১৮৩/এ, তেজকুনীপাড়ায় স্বামী ও সন্তানদের নিয়ে বসবাস করতেন তিনি। সেখান থেকেই মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ৯নং সেক্টরে কমাণ্ডার হেমায়েত উদ্দিনের নেতৃত্বে যুদ্ধে গিয়েছিলেন তিনি। এরপর দেশ স্বাধীন হলেও স্বামীকে হারিয়েছেন। নুরজাহান বেগম ১৯৫০ সালের ১৯ আগস্ট মাদারীপুর জেলার ইটখোলা বাজিতপুরে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা সলেমান মোড়ল ও মাতা জোহরা বেগম। বাবা-মা উভয়েই মারা গিয়েছেন। ছোট বেলা থেকেই রাজধানী ঢাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন তারা।
বরকইট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল হাশেম জানান, ‘এই গ্রামটিতে অনেকেই ভূমিহীন। আসলে আমি জানতাম বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধা নূরজাহান বেগম ঢাকায় থাকেন। করোনাকালে উনি একবার আমার কাছে এসেছিলেন। আমি কিছুই করতে পারিনি।’
চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিভীষণ কান্তি দাশ বলেন, ‘আমার জানামতে চান্দিনায় একজন বীরাঙ্গনা মুক্তিযোদ্ধা রয়েছে। উনার ঘরের জন্য তালিকা পাঠানো হয়েছে। তিনি ঘর পাবেন।’

Previous articleপাবনায় বিশ্ব যক্ষা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
Next articleকালিহাতীতে ট্রাক চাপায় পথচারী নিহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।