জয়নাল আবেদীন: রংপুর মহানগরীতে মশার উপদ্রব ব্যাপক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। শীতের প্রকোপ শেষ হতে না হতেই মশার এমন উৎপাতে বেড়েই চলছে। মশারি অথবা কয়েল ছাড়া দিনেও ঘরে অবস্থান করা যায় না। দিনের আলো কমে আসার সঙ্গে সঙ্গে অবস্থা আরও ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে। দিন-রাত সমানতালে মশার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে নগরবাসী। নগরির বুকচিরে বয়ে যাওয়া শ্যামা সুন্দরী খাল ও ক্যাডি খাল সংস্কার না করায় মশা উৎপাদিনের কারখানায় পরিনত হয়েছে ।রংপুরের শ্যামা সুন্দরী খাল ১শ ৩০ বছরের পুরাতন । এই খালটি তৎকালীন পৌরসভার চেয়ারম্যান ও ডিমলা রাজা জানকি বল্লভ সেন তার মাতা শ্যামা সুন্দরীর স্মরণে খনন করে ছিলেন। ১৮৯০ সালে এই খালটির উদ্ধোধন করেন স্যার স্টুয়াট কেভিন বেইলি। বর্তমানে ময়লা-অর্বজনায় পরিপূর্ণ হয়ে এবং ৪ শ ৮২ জন দখলদারের রাহুগ্রাসের কাছে নগররি পয়ঃনিস্কাশন প্রবাহের অন্যতম এই খালটি জিম্মি হয়ে পড়েছে । নগরীর সিও বাজার এলাকার ঘাঘট নদীর উৎস মূখ থেকে শুরু হয়ে প্রায় ১৬ কিলো মিটার দীর্ঘ শ্যামা সুন্দরী খালটি নগরীর ভিতর দিয়ে খোখসা ঘাঘটের সাথে মিলেছে। বর্তমানে এটি সংস্কার না করার কারণে মশার নিরাপদ প্রজনন এবং আবাসস্থলে পরিনত হয়েছে। ৩০ থেকে ৯০ ফুট প্রশস্ত খালটি এখন ৮ থেকে ১০ ফুটে পরিণত হয়েছে। ৪ শ ৮২ জন দখলদার খালটি যেন গিলে খেয়েছে। অনেকে বাড়ির পয়নিস্কাশনের লাইন খালের সাথে সংযোগ করে দিয়েছেন। ২০০৭-২০০৮ অর্থ বছরে রংপুর পৌরসভা খালটি খনন করেছিল। পরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ২০১২ সালে প্রায় ২৭ কোটি টাকা ব্যায়ে সে সময়ে শ্যামা সুন্দরী খাল সংস্কার, ওয়াকওয়ে ও খালের উপর সেতু নির্মাণ কাজ শুরু করলে সে কাজ বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তিতে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড এই খাল খননের একটি প্রকল্প হাতে নেয়। রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড সাড়ে তিন কোটি টাকা ব্যয়ে প্রায় আড়াই কিলোমিটার খাল খনন করে। অপরদিকে ক্যাডি খাল সংস্কার না করায় মশার উপদ্রব বেড়েছে । রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক)তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো: এমদাদ হোসেন জানান শ্যামাসুন্দরী খালটিতে ৪টি ব্রিজ পুন:নির্মাণ করা হচ্ছে । এর ফলে স্বাভাবিক ভাবে পানি প্রবাহ বন্ধ রয়েছে । তাই মশামাছি প্রজনন ক্ষেতে পরিনত হয়েছে। নগরীর অভিজাত এলাকাগুলোতে রসিক থেকে মাত্র ১০টি ফগার মেশিন দিয়ে মশা নিধন কার্যক্রম শুরু হলেও প্রত্যন্ত এলাকাগুলোতে পৌঁছায়নি এ সুবিধা।ভুক্তভোগীরা বলছেন, নগরীর অধিকাংশ এলাকাতেই এখন পর্যন্ত মশা নিধন কার্যক্রম চোখে পড়েনি। আবার ওষুধের কার্যক্ষমতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। তবে নগর কর্তৃপক্ষ বলছে, মশা নিধনে কার্যকর ভূমিকা অব্যাহত রয়েছে।রসিক সূত্র জানায়, প্রথম দফায় গত বছরের ১৮ নভেম্বর থেকে চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত নগরীতে মশা নিধন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে। এরপর দ্বিতীয় দফায় গত ১০ মার্চ থেকে আবারও মশা নিধন শুরু হয়। ১০টি ফগার মেশিন দিয়ে সরকারি প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এলাকা, প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের বাসবভনসহ বিভিন্ন ড্রেনে মশা নিধন কার্যক্রম কখনো কখনো চালানো হলেও।অন্য জায়গায় চোখে পড়ে না। দিন-রাত সব সময় মশা কামড় দেয়। মশার কামড়ে কোথাও স্থির থাকা যায় না।এদিকে সন্ধ্যা হলেই আড্ডায় জমে ওঠে নগরীর টাউন হল চত্বর। এখানে এসেও শান্তি মতো অবস্থান করতে পারেন না সংস্কৃতিকর্মীসহ সাধারণ মানুষজন।সংস্কৃতিকর্মী ময়না পরিবার বলেন, সারাদিন কর্মব্যস্ততা শেষে সন্ধ্যার পর টাউন হল চত্বরে এসে সহকর্মীদের সঙ্গে আড্ডা দিই। কিন্তু মশার অত্যাচারে কোথাও দাঁড়িয়ে বা বসে কথা বলা যায় না। মশা নিধনে রসিক থেকে উদ্যোগ গ্রহণ করা হলেও তা কাজে আসছে না। মশাতো মরেই না, উপরোক্ত দিন দিন বাড়ছে।নগরীর কামারপাড়ার কুতুবিয়া মসজিদ লেনের বাসিন্দা আব্দুর রহমান বলেন, মশা মারতে কয়েল, স্প্রে, বৈদ্যুতিক ব্যাট সবই কিনেছি। কিন্তু কিছুতেই মশার কামড় থেকে নিস্তার পাচ্ছি না। রান্নাঘরে কাজ করতে গেলেও মশা পিছু ছাড়ে না।রসিক সহকারী বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা শাহিনুর রহমান বলেন, কেবল ফগার মেশিনের ধোঁয়া দিয়ে মশা নিধন পুরোপুরি হয় না। রসিক মেয়রের নির্দেশে এবার হ্যান্ড স্প্রের সাহায্যে কীটনাশক ছিটিয়ে আধাঘণ্টা বা এক ঘণ্টা পর ফগার মেশিনের ধোয়া ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে ঝোঁপঝাড় ছাড়া প্রায় ৫০ শতাংশ মশা নিধন হয়।রসিক মেয়র মোস্তফা বলেন, দেশের বৃহত্তম আয়োতনের দিক থেকে রংপুর সিটি কপোরেশন। ৩৩টি ওয়ার্ড নিয়ে রসিক গঠিত । ১০টি ফগার মেশিন দিয়ে প্রতি ওয়ার্ডে ৬ দিন করে বিভিন্ন ড্রেন ও ঝোঁপঝাড়ে মশা নিধন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। আরও ৬টি ফগার মেশিন ক্রয়ের প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। আরও দুই মাস মশার উপদ্রব থাকবে। এ সময় পর্যন্ত কার্যক্রম চালানো হবে। এডিস মশার বিস্তার রোধে রসিক স্বাস্থ্যকর্মীদের মাধ্যমে সচেতনতা বাড়ানোর প্রস্তাবনার রয়েছে। খাল পুনঃ খনন এবং সংস্কারের জন্য সরকার প্রায়

১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। সিটি মেয়র মোস্তফা বলেন, ঐত্যিবাহি শ্যামাসুন্দরী খালের স্বরূপ ফিরিয়ে এনে এটিকে দখল এবং দূষন মুক্ত করে হাতিরঝিলের আদলে এর সৌর্ন্দয বর্দ্ধন করা হবে। রংপুর বাসীকে উপহার দেয়া হবে একটি সুন্দর নগরী।

Previous articleরংপুরে পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় ২ জনের মৃত্যু, আহত ২
Next articleপাবনার সাঁথিয়ায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১০
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।