স্বপন কুমার কুন্ডু: রূপপুরে নির্মানাধীন পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় ইউনিটের চুল্লি পাত্রের হাইড্রলিক টেস্ট সফল ভাবে শেষ হয়েছে। রাশিয়ার জেএসসি “এইএম-টেকনোলোজির” ভল্গোদনস্ক শাখা “এটোমম্যাস “( রোসাটমের যন্ত্র প্রস্তুতকারী শাখা এটোমেনার্গোম্যাস ) এই টেস্ট সম্পন্ন করেছে বলে রোসাটমের গণমাধ্যম রবিবার বিকেলে প্রেরীত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই থবর জানিয়েছে ।
রোসাটম জানায়, হাইড্রলিক টেস্ট ভুগর্ভস্থ কেসন টেস্ট বেঞ্চে তিন ধাপে করা হয় । চুল্লি পাত্রকে নকশা অনুযায়ী স্থাপন করার আগে একটি সহায়ক রিং স্থাপন করতে হয়, পরে এতে ভিভিইআর-১২০০ চুল্লি পাত্র কে রাখা হয়। ৬০০ টন উত্তোলন মতার একটি অভেরহেড ক্রেনের মাধ্যমে যন্ত্রাংশটি স্থানান্তর করা হয়। এরপর ১১ মিটার দৈর্ঘের চুল্লি পাত্রকে কেসন বেঞ্ছে নির্ভুল্ভাবে নামিয়ে একটি প্রসেস কভারের সাহায্যে বন্ধ করা হয়। শেষে শ্রমিকরা দেড় মিটার স্টাড যুক্ত করে একটি স্পেশাল রেঞ্জের সাহায্যে এগুলোকে দৃঢ় করে । .
সিলিং সম্পূর্ণ শেষ করার পরে চুল্লি পাত্রে ডিস্টিল পানি ভরে একে ৬৫ ডিগ্রি তাপমাত্রায় ও ২৪.৫ এমপিএ চাপে ১০ মিনিট ধরে রাখা হয়, এটি কাজের চাপের তুলনায় ১.৪ গুণ বেশি। রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় চুল্লির হাইড্রলিক টেস্টে বেস মেটালের দৃঢ়তা এবং ঝালাইকৃত জয়েন্ট গুলো নিশ্চিত হয়েছে ।
এটি একটি লম্বা সিলিন্ডার আকৃতির উপবৃত্তাকার তল বিশিষ্ট পাত্র। এর উপরের অংশটি একটি ঢাকনা দ্বারা দৃঢ় ভাবে আটকানো থাকে এবং এর সঙ্গে ড্রাইভ মেকানিজম, রিয়াক্টর এর নিয়ন্ত্রন ও সুরা এবং নজেলের মাধ্যমে রিয়াক্টরের নিয়ন্ত্রন সেন্সরের তার গুলো কে বাইরে নেয়ার ব্যাবস্থা থাকে।
প্রসঙ্গত: রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি রাশিয়ান নকশা অনুযায়ী নির্মিত হচ্ছে। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় কর্পোরেশন রোসাটমের প্রকৌশল বিভাগ এর নকশা প্রণয়ন ও নির্মান করছে । এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ২ টি ইউনিটে ভিভিইআর ১২০০ রিয়াক্টর ব্যবহার করা হবে। যার উৎপাদন কাল ৬০ বছর যা পরবর্তীতে আরও ২০ বছর বর্ধিত করা সম্ভব।

Previous articleলক্ষ্মীপুরে আ’লীগ ও যুবলীগের হরতালবিরোধী মিছিল
Next articleসাঁথিয়ার জেলে পাড়ায় ভাংচুর ও মারপিটের অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।