জয়নাল আবেদীন: করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সরকারের ১৮ নির্দেশনা স্বাস্থ্যবিধি মানতে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে চালানো হচ্ছে প্রচারণা। তবে এই পরিস্থিতিতে রংপুরে টিসিবি ওএমএস‘র চালের জন্য দীর্ঘ লাইনে নিম্ন আয়ের মানুষ স্বাস্থ্য বীধির কোন তোয়াক্কা করছেন না। লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা এসব মানুষের অধিকাংশের মুখে মাস্কও লক্ষ্য করা যায়নি। তবে তাদের অভিযোগ, কষ্ট করে লাইনে দাড়িয়ে থেকেও চাল মিলছে না সহজে। আবার চাল ও টিসিবি‘ পণ্য না পেয়ে অনেকেই ফিরে যান। তারা বলছেন বাজারে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে এভাবে লাইনে দাঁড়াতে হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের দাবি ওএমএসের চাল ও টিসিবির পণ্যের বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হোক। কেউ কেউ ‘সকালে এসে লাইনে দাঁড়ান কারণ পরে এলে লাইনের প্রথম দিকে জায়গা পাওয়া যায় না। এত বেশি লোক লাইনে দাঁড়ায় যে অর্ধেককেই খালি হাতে বাড়ি ফিরতে হয়।’নগরির রবার্টসনগঞ্জ এলাকায় ওএমএস‘র দোকান খুলবে সকাল ৯ টায় কিন্তু এর অনেক আগেই লাইনে দাঁড়িয়েছেন শত শত নারী-পুরুষ। আছে শিশুরাও। বাজারে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেশি। আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের সংগতি রাখতে পারছে না অনেকেই। এ অবস্থায় নিম্নবিত্তদের পাশাপাশি মধ্যবিত্তরাও ভিড় করছে ওএমএস‘র লাইনে। তবে চাহিদার তুলনায় বরাদ্দ অনেক কম। তাই এই দুর্মূল্যের বাজারে ওএমএস‘র বরাদ্দ ও কার্যক্রমের বিস্তৃতি বাড়ানোর দাবি তুলেছেন মানুষজন।জমির উদ্দিন বয়স ৭০/৭৫ হবে ঠিকমতো হাঁটতেও পারেন না। সকালে লাঠিতে ভর দিয়ে এসেছেন, কিন্তু এত ভিড় যে লাইনে জায়গা হয়নি। তবু ডিলার তাঁকে পাঁচ কেজি চাল দিয়েছেন।এ সময় বৃদ্ধ জানান, ছেলে-মেয়ে নেই। চেয়ে চিন্তে চলে তাঁর জীবন। বাজারে সব কিছুর দাম বেশি। তাই কম দামে চাল কিনতে এসেছেন।উপস্থিত ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাজারে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি হচ্ছে। পরিবারের চাহিদা মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষ। তাই সকালেই কম দামে চাল বা আটা কিনতে ওএমএসের দোকানগুলোর সামনে ভিড় করেন তাঁরা। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে পাঁচ কেজি চাল কিংবা আটা নিয়ে বাড়ি ফেরেন। বরাদ্দ কম থাকায় সবার ভাগ্যে এটুকুও জোটে না।রংপুর সদরের খাদ্য নিয়ন্ত্রক (দায়িত্বপ্রাপ্ত) অমূল্য কুমার রায় জানান চালের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় খোলাবাজারে চাল ও আটা বিক্রি করছে খাদ্য বিভাগ। নগরীতে ৮৩ জন ডিলারের মাধ্যমে এগুলো বিক্রি হচ্ছে। খাদ্য বিভাগ প্রত্যেক ডিলারকে এক টন করে চাল ও আটা বরাদ্দ দিচ্ছে।একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ পাঁচ কেজি করে চাল বা আটা কিনতে পারবেন। চালের দাম ধরা হয়েছে ৩০ টাকা আর আটা বিক্রি হচ্ছে ১৮ টাকা কেজি দরে।ডিলারদের কাছ থেকে জানা যায়, একজন ডিলার প্রতিদিন ২শ জনকে চাল বা আটা দিতে পারেন, কিন্তু সেখানে অন্তত ৪শ থেকে ৫শ জন উপস্থিত থাকে। এ কারণে অনেকে খালি হাতে বাড়ি ফেরে। এইদৃশ্য তাঁদের জন্য বিব্রতকর।তিনি আরো বলেন, ওএমএসের কার্যক্রমের প্রতি নিম্ন আয়ের লোকজনের আগ্রহ বেড়েছে। তাই বরাদ্দ ও বিস্তৃতি বাড়াতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে সুপারিশ পাঠিয়েছেন। তিনি আরো জানান, খাদ্য অফিস থেকে নিয়মিত তদারকি করে আসছে।

Previous articleমুলাদীতে জীবিত বিধবা নারী ভোটার তালিকায় মৃত! সরকারি সহায়তা বন্ধ
Next articleবিএনপির উসকানিতে স্বাস্থ্যবিধির প্রতি উদাসীনতা: কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।