এসকে রঞ্জন: পর্যটন নগরী কুয়াকাটায় চলছে উন্নয়নের নামে মেয়রের হরিলুট বেড়িবাঁধের বাইরে সরকারের জমিতে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ চালাচ্ছেন। দরপত্র ছাড়া চার কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিয়েছেন।কোন প্রকার অনুমতি ছাড়াই লেক নির্মাণের নামে পরিত্যক্ত জলাশায় বালু উত্তালোন করে বিভিন প্রকল্পের ভরাট কাজ চালাছেন। দরপত্র বা প্রকল্পিত ব্যয়র অর্থের উৎস কিংবা নকশা ছাড়াই নিজের খেয়াল খুশিমতো লেক নির্মাণের নামে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তালোন করে গণোশচাগারে ও শেখ রাসেল পার্কে এবং মার্কেট নির্মাণসহ রাখাইন মার্কেটের বালু ভরাটের কাজ চালাচ্ছে। এছাড়া জলাশার পূর্বপাশে এক প্রভাবশালী ব্যবসায়ীর অভিজাত আবাসিক হোটেলের সুবিধার্থে নিজস্ব ৫০ ফুটের একটি রাস্তা নির্মাণ এ বালু ব্যবহার হচ্ছে। কুয়াকাটার সচেতন নাগরিক মহলের মাধ্যমে,পৌর মেয়র জলাশয় খননের নামে প্রকল্প নিয়েছে। পুনরায় জলাশায়রে বালু দিয়ে প্রকল্প ভরাটের কাজ করে সরকারি টাকা হরিলুট করার পরিকল্পনা নিয়েছে। এদিকে জলাশয় লাগোয়া ট্যুরিজম বোর্ডের অর্থায়ন নির্মিত ট্যুরিজম পার্কটি পূর্ণাঙ্গভাবে চালু হয়নি। মুজিবশতবর্ষ ২০২০ সালের ১০ মার্চ এই পার্কটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। নকশা অনুযায়ী ট্যুরিজম পার্ক নির্মিত হওয়ায় কাখিত সেবা পাছেন না পর্যটকরা। পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক মো, মতিউল ইসলাম চৌধুরী এ পার্কের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন। এটি পূর্নাঙ্গভাবে চালু না হলে ও ফের এ পার্কটির পাশে সরকারি জমিতে কয়েক কোটি টাকার আরেকটি লেক (জলাশয়) পরিছন্ন করার কাজে নেমেছেন নবনির্বাচিত কুয়াকাটা পৌর মেয়র আনায়ার হাওলাদার। এনিয়ে কুয়াকাটার স্থানীয় মানুষের মনে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দেয়া হয়েছে নিজের অর্থায়নে এখন এ কাজ করা হবে। পরে প্রকল্পের মাধ্যম শোধ করা হবে ওই টাকা। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও ভূমি প্রশাসনের জমিতে ব্যক্তি অর্থ কী করে লিখিত অনুমতি ছাড়া এ কাজ করা সম্ভব কি। স্থানীয় সচেতন মহল জানান,ওই জলাশয়ের বেড়িবাঁধের ভেতর ও বাইরের অংশ প্রায় ৫ একর ভূমি দখল নিয়েছে এক প্রভাবশালী জাপা নেতা। আর ওই জলাশায়ের জমি দখলের নেতৃত্ব ছিলেন বর্তমান মেয়র আনোয়ার হাওলাদার। দখল নিয়ে ১৬টি পরিবারকে উচ্ছেদ করা হয়েছে। জলাশায় ও উচ্ছেদকৃত পরিবারের জায়গাগুলোর মালিক পাউবো। এখন আবার বেড়িবাঁধের বাইরে সরকারি জমিতে পাউবোর অনুমতি ছাড়াই লেকপার্ক নির্মাণ নামে চলছে বহুমূখী নিজস্ব উন্নয়ন প্রকল্প। কুয়াকাটা পৌরসভার সাবেক মেয়র ও কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল বারেক মোল্লা বলেন, বেড়িবাঁধের বাইরে কোন প্রকার উন্নয়ন প্রকল্প নেওয়া ঝুকিঁপূর্ণ। দরপত্র ছাড়া ৪ কোটি টাকার প্রকল্প নেয়া হরিলুট ছাড়া কিছুই হতে পারে না। জাপা (এ) দলের বিশেষ এক নেতা এবং প্রভাবশালী এক হোটেল ব্যবসায়ীর স্বার্থ উদ্ধার এ প্রকল্প নেওয়া হয়েছে তার দাবী। তিনি আরও বলেন সম্প্রতি সরকারর ১ নং খাস খতিয়ানের প্রায় ৫০ একর জমি দখল সহযোগিতা করছেন বর্তমান মেয়র। এখন আবার তাদের হয়ে কোন অনুমোদন ছাড়াই নতুন প্রকল্প পৌরবাসীর গলার কাটা হয়ে দাড়াবে এক সময়। কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বলেন.এ জলাধার ব্যবহার লিখিত কোন অনুমতি দেননি। সেখানকার অধিকাংশ জমি পানিউন্নয়ন বোর্ডের। এ বিষয় পাউবো উপ বিভাগীয় প্রকশলী শওকত ইকবাল মহরাজ বলেন, এ বিষয় তারা কিছু জানেন না। কুয়াকাটার মেয়র আনোয়ার হাওলাদার জানান, কুয়াকাটা পৌরসভার সৌন্দর্যবর্ধন যে সকল খাস জমি রয়েছে তাতে দৃষ্টিনন্দন কর্মকান্ড করতে জেলা প্রশাসনের অনুমতি রয়েছে। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অনুমতির ব্যাপারে কোন মন্তব্য করেননি।
Previous articleরায়পুরে ৯ লক্ষ টাকার চিংড়ি রেনু পোনা আটক, ব্যবসায়ীর অর্থদণ্ড
Next articleসর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়নে ঈশ্বরদীতে পুলিশী অভিযান চলছে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।