জি.এম.মিন্টু: প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের গড়িমশির কারনে দীর্ঘ ১৫ মাস ধরে ঝুলে আছে কেশবপুরের মির্জানগর নবাববাড়ী-হাম্মাম খানার ঐতিহাসিক কামানের তদন্ত, মতামত ও প্রতিবেদন। জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় “সেই কামানটি কেশবপুরে ফিরিয়ে আনার দাবি” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদটি সংষ্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের দৃষ্টিগোছর হয়। যার ফলে ঐতিহাসিক ঐ কামানের বিষয় নিয়ে সার্বিক মতামত ও প্রকৃত ঘটনার প্রতিবেদন চেয়ে সংষ্কৃতি মন্ত্রনালয়ের উপ-সচিব নাদিরা সুলতানা স্বাক্ষরিত একটি স্বারক গত ০৭ জানুয়ারী-১৯ তারিখ ঢাকা আগরগাঁও প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর প্রেরন করা হয়। যার স্বরক নং- ৪৩.০০.০০০০.১১৪.০১৭.১৮২.১৭-১১। প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ঐতিহাসিক কামানের বিষয়ে সঠিক প্রতিবেদন প্রদানের দায়িত্ব দেন প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের খুলনা বিভাগীয় রেজোনাল ডাইরেক্টর (আর.ডি) আফরোজা খাঁন মিতাকে। দীর্ঘ ১৫ মাস তদন্ত স্বারকটি খুলনা আর.ডি অফিসে পড়ে থাকলে কর্মকর্তাদের উদাসিনতার কারনে কেশবপুরের মির্জানগর নবাববাড়ীর ঐতিহাসিক কামানের বিষয়ে আজবদি কোন তদন্ত হয়নি। এ বিষয়ে প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের খুলনা বিভাগীয় রেজোনাল ডাইরেক্টর(আর.ডি) আফরোজা খাঁন মিতা কেশবপুরের মির্জানগর নবাববাড়ীর ঐতিহাসিক কামানের বিষয়ে তদন্তের স্বারক হাতে পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, অফিসিয়াল বিভিন্ন কাজের চাপের কারনে কামানের বিষয়টি তদন্ত করা সম্ভব হয়নি। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে এটি তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। এ ব্যাপারে যশোর জেলা প্রশাসক ড. তমিজুল ইসলাম ও কেশপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম.এম আরাফাত হোসেন একমত পোষন করে বলেন, যেহেতু এটি প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের বিষয়। তার পরও এই অধিদপ্তরের কোন বিষয়ে অবিহিত করলে তাদের পাশে থেকে সর্বাত্বক সহায়তা প্রদানের চেষ্টা করব। উল্লেখ্য, মুঘল আমলে তৈরী যশোরের কেশবপুরের মির্জানগর নবাববাড়ীসহ হাম্মামখাটি বর্তমানে সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। তৎকালীন সময়ে বৃহত্তর যশোর জেলার প্রশাসনের কেন্দ্রবিন্দু ছিল এ নবাববাড়ি। এখানে দু’টি কামান ও চারদিকে পরিখা খনন করে অত্যন্ত সুরক্ষিত করে গড়ে তোলা হয়েছিল এ স্থাপনা। কালের বিবর্তনে দু’টি কামানের একটি বর্তমান যশোর জেলা শহরের মণিহার মোড়ে মুক্তিযোদ্ধা বিজয়স্তম্ভে স্থাপন করা হয়েছে। আরেকটির কোন হদিস জানা যায়নি। নবাববাড়ির অন্যতম প্রতœতাত্ত্বিক নিদর্শন ঐতিহাসিক এ কামানটি সরিয়ে পুনরায় মির্জানগর নবাববাড়ীতে প্রতিস্থাপন করলে ইতিহাসের যথার্থ মূল্যায়ন করা হবে বলে অনেক দর্শনার্থীরা মনে করেন। ইতোমধ্যে সংস্কৃতি মন্ত্রনালয় বরাবর আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয়রা। ইতিহাস সূত্রে জানাগেছে, স¤্রাট আওরঙ্গজেবের আমলে কেশবপুর হতে ৭ কি.মি. পশ্চিমে কপোতাক্ষ ও বুড়িভদ্রা নদীর সঙ্গমস্থল ত্রিমোহিনী নামক স্থানে বৃহত্তর যশোর অঞ্চল শাসনের জন্য নবাববাড়ী তৈরী করে নুরুল্লা খাঁ নামে একজন ফৌজদার (ডিসি) এ এলাকায় নিযুক্ত হন। তাঁর শাসনামলের পর বাংলার সুবেদার শাহ শুজার শ্যালকপুত্র মীর্জা সাফসি খান ১৬৪৯ খ্রিস্টাব্দে নবাববড়ীর ফৌজদার নিযুক্ত হন। তার নাম অনুসারে এলাকাটির নাম হয় মীর্জানগর। তিনি বুড়িভদ্র্রা নদীর দক্ষিণে আরেকটি কিল্লাবাড়ী স্থাপন করে সেখানে বসবাস করতেন। এটা পূর্ব-পশ্চিমে দীর্ঘ ছিল এবং চারপাশে সুবিস্তৃত পরিখা খনন করে, আট-দশ ফুট উঁচু প্রাচীর বেষ্টিত করে এটাকে মতিঝিল দূর্গ নামকরণ করেন। এর একাংশে বতকখানা, জোনানাসহ হাম্মামখানা (গোসলখানা) ও দূর্গের পূর্বদিকে সদর তোরণ নির্মাণ করেন। দূর্গটি ২টি কামান দ্বারা সুরক্ষিত ছিল। নবাব ও জমিদারী শাসনামল শেষ হলে ধিরে ধিরে মীর্জানগরের নবাববাড়ীটি ভগ্নস্তুপে পরিনত হয়। সে সময় কামান দুটি সরিয়ে যশোরে নেয়া হয়। বর্তমানে মির্জানগর নবাববাড়ীর হাম্মামখানা বাদে আজ আর কিছুই অক্ষত নেই। ১৯৯৬ সালে প্রতœতত্ত্ব বিভাগ এটিকে পুরাকীর্তি হিসেবে ঘোষণা করে এবং সংস্কার শুরু করে। কিন্তু কামান দুটি না থাকায় এ স্থানটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব কমে গেছে। যেহেতু মির্জানগর নবাবববাড়ী ও হাম্মামখানা বর্তমানে সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরের অন্তর্ভূক্ত হয়েছে, সেহেতু কামানটি যশোর থেকে সরিয়ে নক্সানুযায়ী নবাববাড়ীতেই প্রতিস্থাপনের জন্য কেশবপুরবাসী সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের প্রতি আবেদন করেছেন।

Previous articleট্রাক্টর-মাইক্রোবাস সংঘর্ষ নিহত ১, আহত ৭
Next articleলকডাউনেও সক্রিয় ঈশ্বরদীর লক্ষীকুন্ডার ইটভাটার মাটিখেকোরা, ৩ ভাটা মালিক গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।