তাবারক হোসেন আজাদ: মধু কই কই বিষ খাওয়াইলা. . .। এটি চট্টগ্রামের একটি জনপ্রিয় আঞ্চলিক গান। আজকাল বাজার থেকে কলা কেনার ক্ষেত্রে এ গানটি বেশ মিলে যায়। দোকানির কাছ থেকে হালি-হালি ও আনা- আনা কলা কিনে হাসিমুখে বাড়ি ফিরেন ক্রেতারা। অথচ এসব কলা নাকি স্বাভাবিকভাবে পাকে না।

পাকানো হয় নাকি কেমিকেল ব্যবহার করে। কলা নিয়ে এমন ছলাকলার ঘটনা প্রতিনিয়তই ঘটছে লক্ষ্মীপুরের সদরসহ ৫ উপজেলায় ( রায়পুর, রামগঞ্জ, রামগতি ও কমলনগরে) শহড় সবকটি বাজারে। অসাধু ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন বিষাক্ত কেমিকেল মিশিয়ে কৃত্রিম উপায়ে কলা পাকাচ্ছে। কাজ এমন কৌশলে করা হয়, যাতে ক্রেতারা বুঝতে না পারে।

শনিবার (২৪ এপ্রিল)-এমন তথ্যের ভিত্তিতে রায়পুর পৌরশহরের পীরফজলুল্লাহ সড়কে কলার আড়তে গেলে এ দৃশ্য দেখা যায়। রমজান মাসেই শুধু কলা নয়, মৌসুমি প্রায় সব ফলই এখন বিষে ভরা। বাজারে কেমিকেল মিশ্রিত ফলই বেশি।

শাকিল নামের এক ভ্রাম্যমান কলা বিক্রেতা বলেন, কেমিকেলে ছাড়া কলা পাকে না। মানুষও বেশি করে খায়। কোন আড়তদার স্বীকারও করবে না। আর কেও কিছু বলে না ও কর্মকর্তারাও কখনোই আড়তে আসেনা। বীরদর্পে ব্যবসা চলছে।

রায়পুর শহরের কলা ব্যবসায়ী জিয়া বলেন, এ কলা (বাংলা, চম্পা, সাগর ও সর্বি) যশোর, রংপুর, খাগড়াছড়ি ও টাঙ্গাইল থেকে ট্রাকে করে আনা হয়। রায়পুরে না কেমিকেলে দেয়া হয় জায়গামত। রোদেই পেকে যায়। কেও অভিযানে আসেনা। আমার পাশে সোহেল ও মান্নানও ব্যবসা করছেন।

পৌরসভার বাসটার্মিনাল এলাকার মাস্টার আবুল কালাম নামের ব্যক্তি বলেন, কলার আড়তসহ বিভিন্ন ফলের দোকানে অনেক অসাধু ব্যবসায়ী দেদারছে কেমিকেল ব্যবহার করে চলেছেন। এসব আড়তে ও দোকানে কোন কোন ব্যবসায়ী ফল পাকাতে এ ধরনের কেমিকেল ব্যবহার করছেন।

Previous articleহোটেলে আপত্তিকর অবস্থায় নারীসহ আটক ৫
Next articleঈশ্বরদীতে নারী ট্রাফিক সার্জেন্টের দাপুটে অভিযানে তটস্থ মোটরবাইক চালকরা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।