জয়নাল আবেদীন: রংপুরে বিদ্যুতের লোডশেডিং আর লো-ভোল্টেজের কারনে নগরবাসির জনজীবন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। সকাল, দুপুর বিকেল, সন্ধ্যা রাত পর্যন্ত চলছে লোডশেডিং। গত এক সপ্তাহ ধরে এই অবস্থা বিরাজ করলেও যেন দেখার কেউ নেই। বিশেষ করে ইফতার ও সেহেরীর সময় লোডশেডিংয়ের মাত্র বেড়ে যায়। তারাবির নামাজ আদায়েও বিঘ্ন ঘটছে। কবে নাগাদ এই সমস্যার সমাধান হবে তা নেসকোর কর্মকর্তারাও বলতে পারছে না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে নেসকোর এক কর্মকর্তা জানান, রংপুরে পুরাত যন্ত্রপাতি দিয়ে চলছে এর কার্যক্রম। বিতরণ এক ও বিতরণ তিনে দুই পাওয়ার ট্রান্সফর্মা বিকল হয়ে পরায় নগরীতে এলাকা ভেদে লোডশেডিং দেওয়া হচ্ছে। বিতরণ একে নতুন যন্ত্রপাতি বসানোর জন্য অবকাঠামো গত এক বছর আগে নির্মাণ করা হলেও আজ পর্যন্ত সেখানে কোন যন্ত্রপাতি বসানো হয়নি। তবে ওই কর্মকর্তা জানান, চীন থেকে নতুন যন্ত্রপাতি কেনা হয়েছে। কিন্ত করোনার কারনে সেগুলো আনতে দেরি হচ্ছে। তবে আগামী এক মাসের মধ্যে নতুন কেনা এসব যন্ত্রপাতি দেশে নিয়ে আসা হবে বলে তিনি জানান। লোডশেডিংয় আর প্রচন্ড গরমে কবলে দূর্বিষহ রংপুরের জনজীবন । গত এক সপ্তাহ ধরে ২৪ ঘন্টায় গড়ে ৭ থেকে ৮ ঘন্টা করে বিদ্যুৎ থাকছে না ।যার প্রভাব পড়েছে জনজীবনে। তবে বিদ্যু বিভাগ জানিয়েছে লো ভোন্টেজ ও ট্রান্সফর্মার বিকল হবার কারনেই লোডশেডিং যা সহসাই দূর হচ্ছেনা । ব্যবসায়ীরা জানান, করোনার কারনে এমনিতেই ব্যবসা মন্দা তার উপর লোডশেডিং। একবার বিদ্যুৎ গেলে ২-৩ ঘন্টা পর আসে। এতে করে খরচ বেড়ে গেছে। গত এক সপ্তাহ ধরেই চলছে বিদ্যুতের যাওয়া আসার খেলা অনেকটা নিয়ম করেই চলছে লোডশেডিং । নগরীর গুপ্পাড়ার এলাকার গৃহবধু মাধু সরকার জানান, তার এলাকায় বিদ্যুৎ যেন সোনার হরিণ। পাওয়াটা ভাগ্যের ব্যাপার। ইফতার, তারাবি ও সেহেরির সময় বিদ্যু থাকে না। আসলেও মাত্র ২-৩ ঘন্টা থাকে। অথচ মাস শেষে বিল দিতে হয়। নগরীর সবগুলো এলাকায় একই অবস্থা বিরাজ করছে। স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন গড়ে বিদ্যুৎ থাকছে মাত্র ৭ থেকে ৮ ঘন্টা । ফলে প্রচন্ড গরমে নগরবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে অন্যদিকে টানা লোকসেডিং থাকায় সংকটে পড়েছে বিদুৎ নির্ভর ক্ষুদ্র ও মাঝারী ব্যবসায়ীরা । নেসকোর প্রধান প্রকৌশলী শাহাদত হোসেন জানান, রংপুর নগরীতে বিদ্যুতের চাহিদা ৫৫ মেগাওয়াট। পাওয়া যাচ্ছে ৪৮ মেগাওয়াট । পাওয়ার ট্রান্সফর্মার নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারনে এই দুই এলাকায় আমাদের লোডশেডিং দিতে হচ্ছে। আমাদের বিদ্যুতের কোন ঘাটতি নাই। বিতরণ তিনে একটি নতুন পাওয়ার ট্রান্সফর্মার স্থাপনের কাজ চলছে। আগামী বুধবারের মধ্যে এর সমস্যা সমাধান হবে। তবে দূর্ভোগ কমাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড এমনটাই দাবী নগরবাসীর ।

Previous articleরংপুরে গণপরিবহন চালুর দাবিতে মানববন্ধন
Next articleঠাকুরগাঁওয়ে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।