তাবারক হোসেন আজাদ: ঈদ বোনাস ও শতভাগ ওভারটাইম পরিশোধের দাবিতে মঙ্গলবার (১১ মে) দুপুরে বিক্ষোভ করেছে রায়পুরের বেঙ্গল স্যু ইন্ড্রাষ্ট্রিজ লি:’র শ্রমিকরা। কর্তৃপক্ষ দাবি না মানায় বিক্ষোভ প্রদর্শণ করে রায়পুর-লক্ষ্মীপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে তারা। বুধবার (১২ মে) বিকালের মধ্যে বোনাস পরিশোধের আশ্বাস বাস্তবায়ন না হলে আবারও রাস্তায় নামার ঘোষণা দিয়ে অবরোধ ছেড়ে দেয় তারা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ইউএনও সাবরীন চৌধুরী, সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) স্পিনা রানী প্রামানিক, ওসি আব্দুল জলিল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাড. মারুফ বিন জাকারিয়া, জেলা পরিষদ সদস্য মামুন বিন জাকারিয়া ও ইউপি চেয়ারম্যান এ্যাড. ইউসুফ জালাল কিসমত। আন্দোলনরত শ্রমিকরা জানায়, কারখানাটিতে ১২শ’ ৫০ জন শ্রমিক কর্মরত। তাদের প্রতি মাসের বেতন দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ৫ মাসের অধিক সময় ধরে তারা ওভারটাইম ভাতা পায়নি। ঈদ বোনাসের পুরোটা থেকেও বঞ্চিত করা হচ্ছে তাদের। বোনাসের একটি অংশ পরিশোধ করেই ৬ দিনের ঈদ ছুটি ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। এমন অবস্থায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে শ্রমিকরা। তারা কারখানার অভ্যন্তরে বিক্ষোভ প্রদর্শণ করে দাবি দাওয়া জানাতে থাকে। জেনারেল ম্যানেজার তাদের কোনো সদুত্তর দিতে না পারায় তারা রায়পুর-লক্ষ্মীপুর আঞ্চলিক সড়ক অবরোধ করে রাখে। প্রায় ঘন্টাব্যাপী এ অবরোধের সড়কের দু’পার্শ্বে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে ভয়াবহ জানযটের সৃষ্টি করে। বেঙ্গল স্যু ইন্ডাষ্ট্রিজ লি: এর জেনারেল ম্যানেজার বিপ্লব পাল বলেন, ব্যাংকিং সমস্যার কারণে রপ্তানি বিল উত্তোলন করা যায়নি। এ কারণে শ্রমিকদের সকল পাওনাদি পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি। বুধবার বিকালের মধ্যে তাদের পাওনার ১৫% পরিশোধ করা হবে। ঈদের পর মালিকপক্ষ আসলে এবং ব্যাংকিং চালু হলে সকলের দাবি-দাওয়া পূরণ করে দেওয়া হবে। রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে শ্রমিক-কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করে সড়ক থেকে অবরোধ প্রত্যাহার করানো হয়েছে। বুধবারের মধ্যে শ্রমিকদের প্রাপ্যের একটি অংশ পরিশোধের বিষয়ে মালিকপক্ষ আশ্বাস দিয়েছেন। শ্রমিকদের আন্দোলন শান্তিপূর্ণ হওয়ায় সেখানে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

রায়পুরে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী পরিবারের দোকান উদ্বোধন করলেন ইউএনও তাবারক হোসেন আজাদ, রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি। লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ৫ দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীকে দেওয়া দোকান ঘর উদ্বোধন করেছেন ইউএনও সাবরীন চৌধুরী। মঙ্গলবার (১১ মে) দুপুরে উপজেলার কেরোয়া ইউনিয়নের লামছরি গ্রামে দোকানটি উদ্বোধন করেন তিনি। উপজেলা ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ‘ইসমাইল ভ্যারাটিজ স্টোর’ নামের এ দোকানটি করে দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, একই পরিবারের নারী ও শিশুসহ ৫ জন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী কষ্টে জীবনযাপন করছেন- এমন খবর পেয়ে ইতোমধ্যে ছুটে এসেছেন জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোসাইন আকন্দ ও ইউএনও সাবরীন চৌধুরী। পরিবারটিকে খাদ্য সামগ্রী, নগদ অর্থ ও দোকান ঘর করে দেন। এবার দোকানের মালামাল পৌঁছে দিয়ে উদ্বোধনও করে দিলেন। ইউপি সদস্য আরিফুর রহমান জানান, হাফেজ মোঃ ইসমাইল (৫৫) একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। তাঁর ৩ ছেলে রহমত উল্যা (৩৫), আয়াত উল্যা (৩০) ও নেয়ামত উল্যা (২০) জন্মগতভাবেই অন্ধ। একই অবস্থা ইসমাইলের বড় বোন আমেনা বেগমের (৬০)। তাঁর মা-বাবাও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী অবস্থায় মারা যান প্রায় ১৫/১৬ বছর আগে। আয়াত উল্যার ৬ বছরের কন্যা রাবেয়াও জন্মগত দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হাফেজ ইসমাইল হোসেন বলেন, খাদ্য সামগ্রী, মালামালসহ দোকান ও নগদ অর্থ সহায়তা পেয়ে আমরা খুশি। আশা করি দোকানের আয় থেকে আমাদের সংসারের কিছুটা হলেও দূর্ভোগ লাঘব হবে। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার শরীফুল ইসলাম জানিয়েছেন, ইসমাইর পরিবারের ৫ সদস্য ও তাঁর বোনসহ ৬ সদস্যকে প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ডের আওতায় আনা হয়েছে। তাঁরা নিয়মিত ভাতা পাচ্ছেন। এছাড়াও সময়ে সময়ে বিভিন্ন ধরণের বরাদ্ধের আওতায় তারা সহায়তা পাচ্ছেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবরীন চৌধুরী বলেন, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী এ পরিবারটির প্রতি অতীতের মতোই আমাদের সহায়তা অব্যাহত রয়েছে। তাদের সাবলম্বি করার প্রয়াস থেকেই দোকান করে দেওয়া হয়েছে। দোকানের আয় থেকে তারা কিছুটা স্বচ্ছলতা পাবে এমনটাই আমাদের প্রত্যাশা।

Previous articleমুলাদীতে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার বিতরণ
Next articleকরোনায় বিপন্ন কর্মহীন মানুষের মাঝে ঈদ উপলক্ষে রংপুর চেম্বারের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।