আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ায় এক অসহায় হত দারিদ্র বিধবার ইজ্জতের মূল্য ১০ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ক্ষেতুপাড়া ইউনিয়নের রঘুরামপুর গ্রামে। ওই গ্রামের এক বিধবা মহিলাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে একই গ্রামের মৃত দানেজ মোল্লার ছেলে মাজেদ মোল্লার (৬৫) বিরুদ্ধে।

অভিযোগে জানা যায়, বিধবা হতদারিদ্র মহিলা (৬২) শুক্রবার সকালে বাড়ির পাশে ট্রেন রাস্তার উত্তর পাটের জমিতে শাক তুলতে যায়। এ সময় পাটের জমিতে থাকা মাজেদ মোল্লা (৬৫) বিধবাকে ঝাঁপটে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। মহিলার চিৎকারের শব্দ পেয়ে ওই গ্রামের রেজাই এগিয়ে এসে ধর্ষককে ধরলে সে শরীরে থাকা গেঞ্জি রেখেই দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। বিধবা মহিলা জানান, তাকে জোর করে পাট খেতে নিয়ে মাজেদ ধর্ষণ করে। শুক্রবার দিন গত রাতে রঘুরামপুর গ্রামের আজগর আলীর বাড়িতে মিমাংসার চেষ্টা করে তা ব্যর্থ হয়। পরে শনিবার ধর্ষিতা বিধবা নারী দুই আত্মীয়কে সাথে নিয়ে সাঁথিয়া থানায় মামলা করতে যান। অজ্ঞাত কারণে থানা পুলিশ রাত ১২টা পর্যন্ত থানায় মহিলাকে বসিয়ে রাখেন। পরে দুই পক্ষের সম্মতিতে ধর্ষিতাকে ১০হাজার টাকা হাতে ধরিয়ে দিয়ে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। রোববার সকাল থেকেই অসহায় বিধবাকে বাড়িতে পাওয়া যাচ্ছে না। ধর্ষকের আত্মীয়দের ভয়ে ওই মহিলা বাড়ি ছাড়া বলে স্থানীয়রা জানান।

এদিকে এ ঘটনায় স্থানীয় কতিপয় সাংবাদিককে সংবাদ প্রকাশ না করার শর্তে টাকা দেওয়া হয়েছে মর্মে অভিযোগ রয়েছে। নাম না প্রকাশ করার শর্তে থানায় উপস্থিত থাকা গ্রাম্য প্রধানরা জানান, মহিলাকে ১০ হাজার টাকা দিয়ে তাকে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে বলা হয়েছে। ধর্ষিত মহিলার আত্মীয় আব্দুস সামাদ জানান, থানায় আমাদের আটকিয়ে রাখা হয়। পরবর্তিতে এ ঘটনা নিয়ে কোন অভিযোগ না করার শর্তে সাদা কাগজে স্বাক্ষর রাখা হয়। সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আশিফ মোহাম্মদ সিদ্দুকুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে থানায় কোন অভিযোগ করা হয়নি। থানায় কোন মহিলাকে বসিয়েও রাখা হয়নি বা কোন দরবার শালিস হয়নি।এ নিয়ে আমরা তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous articleসাপাহারে কালের আবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে বাঁশ ও বেত শিল্প
Next articleচান্দিনায় ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।