ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: হর্টিকালচার সেন্টারের নালার পাশে পরিত্যক্ত জায়গায় ঝোপঝাড়ে ঢাকা পড়ে ছিল দুটি আমগাছ। এ জন্য গাছ দুটি কারও নজরে পড়েনি। গত বছর জঙ্গল পরিষ্কার করার পর গাছগুলো উদ্ধার করা হয়। তখন ফলন আসেনি। তবে উপযুক্ত পরিবেশ পেয়ে এ বছর ফলন হয়েছে বেশ।
থোকায় থোকায় ঝুলে আছে আম। সবুজ আমগুলো আস্তে আস্তে ছেয়ে গেছে লাল রঙে। তবে পরিপক্ব হওয়ার পর আকর্ষণীয় এই আমের জাত নিয়ে ভাবনায় পড়েন চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের উপপরিচালক মো. মাযদার হোসেন। হর্টিকালচার সেন্টারের উদ্যানতত্ত্ববিদদের নিয়ে আলোচনা শুরু করলেন। খুঁজতে থাকলেন এই রঙিন আমের জাত উদ্বারে। মো. মাযদার হোসেন শরণাপন্ন হলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের (আম গবেষণা কেন্দ্র) বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আবু সালেহ মো. ইউসুফের কাছে। সরেজমিনে পরিদর্শন করে তিনি জানান, রঙিন আমটি বিখ্যাত আমেরিকান রেড পালমার জাতের। আমের পাশাপাশি এর ডালপালাগুলোও লাল রঙের।
জানা যায়, আমেরিকার ফ্লোরিডার মিসেস ভিক্টর মেল নামক ব্যক্তির অধীনে ১৯২৫ সালে বীজ থেকে জন্ম নেয় পালমার জাতের আমগাছ। পরের কয়েক দশক পর্যন্ত এই গাছ সম্পর্কে কিছু জানা না গেলেও ২০০৫ সালে এটি সরকারিভাবে নামকরণ করা হয় আমেরিকান পালমার।
হর্টিকালচার সেন্টারের কর্মী মেহেদী হাসান জানান, গত বছর জঙ্গল পরিষ্কার করার পর দু-একটা আম এসেছিল। তারপরও পরের বছর গাছের ফলন ও জাত দেখার জন্য ডিডি মহোদয় গাছটি রাখতে বলেছিলেন। এ বছর ব্যাপকভাবে আম ধরেছে। লাল রঙে ছেয়ে গেছে দুটি গাছ।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের উদ্যানতত্ত্ববিদ মো. হাবিবুল্লাহ  জানান, গাছ দুটির বয়স প্রায় ৮ থেকে ৯ বছর। কিন্তু ঝোপঝাড়ে ঢেকে থাকায় আমাদের নজর এড়িয়ে ছিল বিখ্যাত ও বিশ্বের সবচেয়ে দামি আমগুলোর মধ্যে অন্যতম আমেরিকান রেড পালমার। গত বছর হর্টিকালচার সেন্টারের বর্তমান উপপরিচালক যোগদান করার পর ঝোপঝাড় পরিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নিলে গাছটি উদ্বার হয়েছে।
বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আবু সালেহ মো. ইউসুফ বলেন, হর্টিকালচার সেন্টারের আমন্ত্রণে সরেজমিনে পরিদর্শন করে আমগুলো বিখ্যাত আমেরিকান রেড পালমার বলেই মনে হয়েছে। আম পাকলে আরও পরীক্ষার দরকার রয়েছে। এ ছাড়া এর বিশাল বাণিজ্যিক সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ বাংলাদেশ ছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।
আমেরিকান রেড পালমার জাতের আমের গড় ওজন প্রায় ৩৫০ গ্রাম। জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে এই আম পাকে বলে বাজারে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে এবং দামও ভালো পাওয়া যায়। দেখতে আকর্ষণীয় বলে অনেকের খুব পছন্দের আম রেড পালমার। এই জাতের আমের আঁশহীন শাঁস রয়েছে। মিষ্টতা (টিএসএস) ১৮ শতাংশ। নাবি জাতের ভালো মিষ্টতাসম্পন্ন এই আমের উদ্ভাবন আমেরিকার বলে জানান তিনি। আবু সালেহ মো. ইউসুফ শিবগঞ্জ ম্যাংগো প্রডিউসার কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিডেটের সাধারণ সম্পাদক ও আম রফতানিকারক ইসমাঈল খান শামিম  বলেন, বর্তমানে বিখ্যাত এই আমের জাতটি বিভিন্ন বাসার ছাদে ও টবে চাষ করা হচ্ছে। কিন্তু বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদ শুরু হয়নি। নাবি জাতের হাওয়ায় এর বিশাল বাণিজ্যিক সম্ভাবনা রয়েছে।
তিনি আরও বলেন,চাঁপাইনবাবগঞ্জে ক্ষীরশাপাত-ল্যাংড়া জাতের আম শেষ হওয়ার পর পালমার জাতের আম পরিপক্ব হয়। এ ছাড়া এই আম অনেক মিষ্টি। পালমার জাতের আমের সবচেয়ে বড় গুণ এর আকর্ষণীয় রং, যা সবাইকে অবাক করে। এই আমের জাত উদ্বারের পাশাপাশি এই আমের সংরক্ষণ, চারা বাজারজাতকরণ ও বিদেশে রফতানির সুযোগ করে দিলে জেলার আমচাষিরা লাভবান হতে পারবেন।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের উপপরিচালক মো. মাযদার হোসেন বলেন, বিশ্বজুড়ে খ্যাতি রয়েছে বিখ্যাত আমেরিকান রেড পালমার জাতের আমের। বিশ্বব্যাপী চাহিদা ছাড়াও আমাদের দেশে উচ্চবিত্তদের মধ্যে এই আমের চাহিদা রয়েছে। তাই এটি চাষাবাদে বাণিজ্যিকভাবে লাভজনক হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।
তিনি বলেন, এই জাতের আমগাছ প্রতিকূল পরিবেশে টিকে থাকতে পারে। চারদিকে পানির নালা থাকার পরও এ বছর বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষক পর্যায়ে এর সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে আমরা এর চারা তৈরি শুরু করব। আমের রাজধানীখ্যাত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জে রেড পালমার জাতের আমের প্রসারে হর্টিকালচার সেন্টারের পক্ষ থেকে কাজ করা হবে বলেও জানান তিনি।
Previous articleভূঞাপুরে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নতুন আবেদনকারীদের যাচাই বাছাই অনুষ্ঠিত
Next articleলক্ষ্মীপুরে আ’লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন: নবনির্বাচিত সাংসদকে বিভিন্ন সংগঠনের সংবর্ধনা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।