ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে শুরু হয়েছে কঠোর লকডাউন, যা চলবে আগামী ৭ দিন । মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের নির্দেশনাক্রমে জনগণকে সুরক্ষিত ও নিরাপদ রাখতে আগামী ৭ দিনের জন্য সারাদেশ জুড়ে ২১ টি নির্দেশনা নিয়ে কঠোর লকডাউন।

এদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে শুরু হওয়া সপ্তাহব্যাপী কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন করতে কাকডাকা ভোর থেকে মাঠে ব্যাপক তৎপর রয়েছেন সিভিল প্রশাসন, সেনাবাহিনী, বিজিবি, পুলিশ, র‌্যাব ও আনসারবাহিনীর সদস্যরা।
বৃষ্টির মধ্যে সকাল থেকে জেলা শহরের প্রবেশ দ্বার দ্বারিয়াপুর, নয়াগোলা মোড়, বারঘরিয়া, শান্তিমোড়, সিসিডিবি মোড়, বাতেন খাঁ মোড়সহ বিভিন্ন পয়েন্টে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবস্থান এবং বিভিন্ন স্থানে গাড়ি নিয়ে টহল দিতে দেখা গেছে। জরুরী যানবাহন ছাড়া সকল ধরনের যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে বের হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে কর্তব্যরত কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
এদিকে সকাল থেকে বৃষ্টি শুরু হওয়ায় রাস্তাগুলোতে মানুষের চলাচল যৎসামান্য দেখা গেছে। গোটা শহর জুড়ে সুনশান শব্দ। কোথাও কোথাও জনমানবশূণ্যও ছিল। আর যারা বের হচ্ছেন তারা প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছেন। সকালে বিচ্ছিন্নভাবে গুটি কয়েক মোটরসাইকেল, সাইকেল চলতে দেখা গেছে। তবে রিকশা চলাচল না করায় কিছু কিছু মানুষ রাস্তা দিয়ে হাটতে দেখা গেছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বৃষ্টির পাল্লা ভারী হওয়ায় রাস্তাঘাট মানুষ শুন্য হয়ে যায়। সকালে কাঁচাবাজারে খুচরা ব্যবসায়ীরা দোকান খুলে বসলেও তেমন ক্রেতা ছিল না বলে জানান সব্জী ব্যবসায়ীরা। তারা বলেন, বাজারে বিভিন্ন সব্জীর সরবরাহ ব্যাপক থাকলেও বৃষ্টির কারণে ক্রেতা একেবারে নগন্য ছিল। জেলা শহরের বড় বড় বিপনী বিতানসহ অন্যান্য সকল দোকান বন্ধ রয়েছে। তবে জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান-সংস্থা খোলা রয়েছে। লকডাউনে ছাড় রয়েছে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, ওষুধের দোকান, খাবারের দোকান, সেবামূলক প্রতিষ্ঠান, দমকল, বিদ্যুৎ, কৃষিকাজ, পণ্য চলাচল, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া। এদিকে লকডাউন কঠোরভাবে কার্যকরে সকাল থেকে বৃষ্টি উপেক্ষা জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট মাঠে তৎপর রয়েছে। কর্মকর্তারা পুলিশ সদস্যদের সহায়তায় ও স্কাউটস সদস্যদের সহযোগিতায় শহরের বিশ্বরোড মোড়, সিসিডিপি মোড়, হরিপুর বোর্ডঘর বাজার, দারিয়াপুর মোড়, বটতলাহাট, শান্তির মোড়, বাঁতেনখার মোড়, নিমতলা মোড় পুরাতন বাজার এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে। সরকারি বিধি নিষেধ অমান্য করায় কিছু দোকানীকে জরিমানা করা হয়। এছাড়া অভিযান চলাকালীন সময় যারা স্বাস্থ্য বিধি না মেনে বা মুখে মাস্ক ব্যবহার না করে চলাচল করছে তাদেরকেও জরিমানা করা হয়। এছাড়া, বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশকে সাথে নিয়ে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। লকডাউন অমান্য করে চায়ের দোকান খোলার অপরাধে ভেঙে ফেলা হচ্ছে চূলা।
চেয়ারম্যানরা বলছেন, বৃষ্টির মধ্যেও অনেকেই চায়ের দোকানে বসে চা খাচ্ছেন। এখনো অনেক মানুষের মাঝে সচেতনতা গড়ে ওঠেনি। বর্তমান পরিস্থিতিতে সচেতন করার জন্য আগের দিন মাইকিং এর মাধ্যমে প্রচারণা চালানো হয়। যারা আইন অমান্য করে অপ্রয়োজনীয় দোকান খুলে লোকের সমাগম ঘটাচ্ছে, তাদের প্রতি এ ধরনের কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। কঠোর লকডাউন দেয়ায় অনেক মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। তারা সরকারের নীতিনির্ধারকদের পাশাপাশি জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে এ ধরনের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন

Previous articleঈশ্বরদীর শেখের দাঁইড়ে রাস্তার উপর মক্তব নির্মাণ শীর্ষক খবরের প্রতিবাদ
Next articleঈশ্বরদীতে গত ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ ১৩৬ জনের করোনা শনাক্ত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।