বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের এক সন্তানের জননীকে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত ধর্ষককে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

থানায় জানিয়েও সহযোগীতা না পেয়ে ৯৯৯-এ কল করলে পুলিশ তৎক্ষণাত গিয়ে ধর্ষককে গ্রেফতার করে। কিন্তু তাকে আদালতে না পাঠিয়ে ছাত্রলীগ নেতাদের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে পর দিন সকালে থানা থেকেই ধর্ষককে ছেড়ে দেন ওসি। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় চলছে। এ ঘটনায় এক সন্তানের জননী ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধু থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) কামরুজ্জামান সিকদারসহ জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেছেন।

অভিযুক্ত দেলোয়ার হোসেন (৩০) বেগমগঞ্জ উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের মুগা মিয়ার বাড়ির আবদুল মান্নানের ছেলে এবং সুমন বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড শহীদের ছোট ভাই।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে বেগমগঞ্জ উপজেলার নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী গৃহবধূ (২২) নিজেই।

ভুক্তভোগী গৃহবধূ সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, গত (২৪ জুন) তাকে তার বসত ঘরে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে স্থানীয় দেলোয়ার নামে এক যুবক। এ সময় আমার শৌর চিৎকারে আশে পাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে হাতেনাতে ধরে ফেলে। পরে পুলিশ এসে দেলোয়ারকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তার পরের দিন ১১টার দিকে দেন দরবার করে ছাত্রলীগ নেতা স্বপন ও পলাশ থানা থেকে দেলোয়ারকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। এই দেলোয়ার হচ্ছে সুমন বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড শহীদের ছোট ভাই। সুমন বাহিনীর কয়েকজন সন্ত্রাসী আমার মাকে মারধর করে এই ঘটনা থানা পুলিশ করলে মেরে পেলার হুমকি দেয়। এরপর ওই দিন প্রতিপক্ষের হুমকির মুখে আমরা মামলা করতে থানায় যেতে পারেনি।

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান শিকদার জানান, গত (২৪ জুন) জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯-এ থেকে কল পেয়ে দেলোয়ার নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশ থানায় নিয়ে আসে। কিন্ত কোন লিখিত অভিযোগ না পেয়ে পরের দিন তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

Previous articleবাউফলে কঠোর লকডাউনে রাস্তাঘাট ফাঁকা
Next articleলকডাউনে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দলবল নিয়ে কাদের মির্জার ত্রাণ বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।