বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সারা দেশের সর্বাত্মক লকডাউনের প্রথম দিনে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পুলিশের উপস্থিতিতে দলবল নিয়ে ত্রাণ বিতরণ করার অভিযোগ উঠেছে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার বিরুদ্ধে। তবে অভিযোগটি নাকচ করা হয়েছে তার পক্ষ থেকে।

কাদের মির্জা বাংলাদেশ আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই। গত ৭মাস ধরে স্থানীয় এবং জাতীয় রাজনীতির বিভিন্ন ইস্যুতে বক্তব্য রেখে ব্যাপক আলোচিত সমালোচিত হন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের বাংলা বাজারে সামাজিক দূলত্ব ভঙ্গ করে ত্রাণ বিতরণের এই ঘটনা ঘটে।

কাদের মির্জার অনুসারী হিসেবে পরিচিত আইয়ুব আলী ফেসবুকে কাদের মির্জার লোক সমাগম করে ত্রাণ বিতরণ করার ছবি সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করলে এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে ব্যাপক বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। ছবিতে দেখা যায়, প্রায় ২শতাধিক মানুষ সামাজিক দূরত্ব ভঙ্গ করে ত্রাণ নিতে লাইনে দাঁড়িয়ে আছে। আরেকটি ছবিতে দেখা যায় ত্রাণ নিতে এসে বিপুল সংখ্যক মানুষ সামাজিক দূরত্ব ভঙ্গ করে জড়ো হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অন্য একটি ছবিতে দেখা যায় খোদ কাদের মির্জা নিজেই সামাজিক দূরত্ব ভঙ্গ করে কয়েকজন অনুসারীর মাঝখানে দাঁড়িয়ে বকৃক্তা করছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, আইন সকলের জন্য সমান হওয়া প্রযোজ্য। জনপ্রতিনিধি যদি কঠোর লকডাউনের প্রথম দিনে সরকারি নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে লকডাউন ভঙ্গ করে তাহলে সারা দেশের লকডাউন অচিরেই ঢিলেঢালা হয়ে পড়বে।

এ বিষয়ে জানতে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার ফোনে বিকেল ৪টা ৪৮মিনিটের দিকে ফোন করা হলে সাহাদাত সাহেদ নামে তার এক অনুসারী ফোন রিসিভ করে দাবি করেন, ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে সামজিক দূরত্ব বঙ্গ করা হয়নি। তিনি বক্তব্যের শুরুতেই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আহ্বান জানান।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.সাইফুদ্দিন আনোয়ারের ফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Previous articleবেগমগঞ্জে থানা ধেকে ধর্ষককে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে হেরোইনসহ গ্রেফতার ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।