আব্দুদ দাইন: স্বাধীনতার ৫০ বছর অতিবাহিত হলেও পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার পৌরসভাধীন লক্ষ্মীপুর গ্রামের বৃদ্ধা আছিয়া ২৭বছর ঘুরেও পুলিশ স্বামী এস আই নজরুল ইসলামের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দেখে যেতে পারলেন না।

নজরুল ওই গ্রামের মৃত জাহেদ উদ্দিন আহম্মেদের ছেলে। নজরলের মৃত্যুর পরে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতির দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন নজরুলের অসুস্থ বৃদ্ধা স্ত্রী আছিয়া খাতুন। অবশেষে বেঁচে থাকতে স্বামীর মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি না দেখেই তাকে হারমানতে হলো মরনের কাছে। গত ২৬ জুন অসুস্থ হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়েন বৃদ্ধা আছিয়া (৭৬)। বৃদ্ধা বয়সে অসুস্থ আছিয়া আশায় বুক বেঁধে ছিলেন সরকার তার পুলিশ স্বামীকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিবেন। তিনি যেন তা মৃত্যুর আগেই দেখে যেতে পারেন। এসআই নজরুল ইসলাম ১৯৭১ সালে দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর (হিলি) থানায় পুলিশের এএসআই (নিঃ) পদে কর্মরত থাকা অবস্থায় সাতই মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণে উদ্বুদ্ধ হয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তিনি যুদ্ধে অংশ গ্রহণের জন্য ভারতের বালুরঘাটে যান। সেখান থেকে সশস্ত্র অবস্থায় ফিরে নিজ থানায় এবং আশ পাশের এলাকায় পাকিস্থানী হানাদারদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার পর নজরুল ইসলাম স্বপদে পুলিশের চাকরিতে পুনরায় যোগদান করেন। পরে পুলিশের এসআই পদে পদোন্নতি লাভ করেন। যার ব্যাচ নং ১৮২১। ১৯৮৭ সালে তিনি চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন। যার মেমো নং ১০১৮ (আর/ও)। ১৯৯৫ সালে ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়ে নজরুল ইসলাম মৃত্যু বরণ করেন। স্বাধীনতার ৫০ বছরে ও তার মৃত্যুর ২৬ বছরেও তিনি পাননি মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে সংরক্ষিত পুলিশ বাহিনীর ভারতীয় মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় দিনাজপুর জেলায় নজরুল ইসলামের নাম রয়েছে। যার ক্রমিক নং ০৬৭১৯। ২০১৪ সালে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই প্রক্রিয়ায় অনলাইনে তার ছেলে শহিদুল ইসলাম (তিতু) আবেদন করেন। যার ডি,জি,নং উএও১৪১২৪৩। পরবর্তিতে আবেদনটি স্থানীয় ভাবে যাচাই ও বাছাই কমিটির নিকট ন্যায় বিচার না পাওয়ায় জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলে আপীল করা হয়। যার নং ১৪৩৮০। নজরুল ইসলামের বড় ছেলে শহিদুল ইসলাম (তিতু)দুঃখ করে বলেন, আমার মায়ের আশা ছিলো বাবার মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি যেন দেখে মরতে পারেন। দীর্ঘ বছর পার হলেও তিনি বাবার স্বীকৃতি দেখে যেতে পারলেন না। ২০১৭ সালের ২১ নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবসের ভাষণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহান মুক্তিযুদ্ধে যে সমস্ত আনসার ও পুলিশসহ বিভিন্ন

বাহিনীতে কর্মরতরা অংশ নিয়েছিল তাদের ভাতা প্রদান করার ঘোষনা দিলেও আমরা তার সুফল থেকে বঞ্চিত রয়েছি।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও কঠোর অবস্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে জুলফিকার মেম্বারের খামারে প্রস্তুুত চাঁপাই সম্রাট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।