বিমল কুন্ডু: সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরে ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে কোরবানির জন্য হৃষ্টপুষ্ট করে লালন-পালন করা হাজার হাজার গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে পরেছে খামারি ও ব্যবসায়ীরা।

লকডাউনের কারণে সময় মতো পশুর হাট না বসা এবং বাইরে থেকে ব্যাপারীরা না আসায় কোরবানির পশু বিক্রি নিয়ে নানা সংশয় দেখে দিয়েছে। অন্যদিকে লকডাউন শিথিল করা হলেও এতো অল্প সময়ে এলাকার সিংহভাগ গরু নিয়ে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ফতুল্লা ও মাওয়াসহ দেশের বিভিন্ন বড় বড় কোরবানির পশুর হাটে গবাদি পশু নিয়ে বিক্রি করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে খামারি ও ব্যবসায়ীদের। ঈদুল আযহার মাত্র ৩দিন বাকি থাকলেও হৃষ্টপুষ্ট করা এসব গবাদিপশুর ন্যায্য মূল্য পাওয়া নিয়েও নানা আশংকা দেখা দিয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গো-সম্পদ সমৃদ্ধ শাহজাদপুর উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়নের ছোট-বড় ৫ হাজার খামারে অন্যান্য বছরের ন্যায় চলতি বছরেও ঈদুল আযহা উপলক্ষে প্রায় ৬০ হাজার গবাদিপশু আধুনিক পদ্ধতিতে হৃষ্টপুষ্ট করে লালন-পালন করা হয়েছে। এসব গবাদিপশুর মধ্যে এলাকার বিভিন্ন পশুর হাটে প্রায় ২০ হাজার গবাদিপশু বিক্রি করা হয়। অবশিষ্ট প্রায় ৪০ হাজার গবাদিপশু ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ফতুল্লা ও মাওয়াসহ বিভিন্ন হাটে বিক্রি করা হয়। উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে যমুনা তীরবর্তী জালালপুর, খুকনি, কৈজুরী, সোনাতনী ও রুপবাটি ইউনিয়নের বিভিন্ন খামারে সিংহভাগ গরু হৃষ্টপুষ্ট করা হয়। এসব গরু নৌপথে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন হাটে নিয়ে বিক্রি করা হয়। এছাড়া উপজেলার পৌরসভা, হাবিবুল্লাহনগর, পোতাজিয়া, কায়েমপুর, নরিনা ও বেলতৈল ইউনিয়নের বিভিন্ন খামারের লালন পালন করা কোরবানির পশু সড়ক পথে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন হাটে নিয়ে যাওয়া হয়। সড়ক পথে পরিবহণ সেক্টরের নানা হয়রানি ও চাদাবাজি এবং নৌপথে নৌ-ডাকাতদের ডাকাতি আতঙ্কসহ নানা ভোগান্তি পোহাতে হয় খামারিদের। এ বিষয়ে সোনাতনী গ্রামের ভোলা মোল্লা, ছোট চাঁনতারা গ্রামের এনামুল হক, কৈজুরী গ্রামের হাসেম আলী ও উল্টাডাব গ্রামের আলমাছ আলী জানান, ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে সর্বস্ব পুঁজি খাটিয়ে নিজের সন্তানের মতো আমরা গরু গুলোকে প্রাকৃতিক উপায়ে লালন-পালন করে মোটাতাজা করেছি। গরু বিক্রির আয় দিয়ে আমাদের সংসার চলে। অথচ করোনার কারণে লকডাউন থাকায় গরু বিক্রি নিয়ে নানা সংশয় দেখা দিয়েছে। তারা আরো জানান, নৌপথে এসব গরু হাটে নিতে নৌ-ডাকাতদের আতঙ্কে থাকতে হয়। খামারিরা নৌপথে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর টইল জোরদারে দাবি জানান। অন্য দিকে রেশমবাড়ি গ্রামের খামারি আমানত ফকির, ছামাদ ফকির জানান, অন্যান্য বছর ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যাপারীরা এসে কয়েক হাজার গরু কিনে নিয়ে যায়। কিন্তু লকডাউনের কারণে আজ পর্যন্ত কোন ব্যাপারী আসেনি। ফলে কোরবানির জন্য হৃষ্টপুষ্ট করা প্রায় ৩ হাজার গবাদিপশু বিক্রি নিয়ে পশ্চিম অঞ্চলের ৩টি ইউনিয়নের খামারিরা বিপাকে পড়েছে। অন্যদিকে শ্রীফলতলা গ্রামের খামারি হেলাল উদ্দিন জানান, লকডাউন শিথিল করার সাথে সাথেই এলাকার গরু ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন খামারের প্রায় ১ হাজার গরু নিয়ে সড়কপথে ঢাকাসহ বিভিন্ন হাটে গিয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা: মিজানুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, চলতি বছরে শাহজাদপুর উপজেলায় কোরবানির জন্য ৬০ হাজার গবাদিপশু প্রস্তুত করা হয়েছে। এরমধ্যে এলাকার ২০ হাজার গরুর চাহিদা পূরণ করে প্রায় ৪০ হাজার গরু ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ফতুল্লা ও মাওয়াসহ দেশের বড় বড় পশুর হাটে নিয়ে বিক্রির জন্য নেয়া হচ্ছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, কৃষক ও খামারিদের শঙ্কার কোন কারণ নেই। খামারি ও ব্যবসায়ীরা নৌপথে যাতে নির্বিঘেœ গরু নিয়ে বিভিন্ন হাটে যেতে পারে সে জন্য সকল প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। অন্যদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান, শাহজাদপুর- নারায়ণগঞ্জ নৌপথের সব থানা ও নৌ-থানা পুলিশকে এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলা হয়েছে।

Previous articleরংপুরে মায়ের কোল থেকে নিয়ে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ
Next articleপাবনায় করোনায় আরও ১১ জনের প্রাণহানি, নুতন শনাক্ত ১৫৫
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।