তাবারক হোসেন আজাদ: “এডভোকেট মারুফ বিন জাকারিয়ার ব্যাাক্তি উদ্যোগ এবং হেল্ফিং হেন্ড বাংলাদেশ”। এ দুটি টিমের সদস্যরা করোনায় মৃত ব্যাক্তিদের দাফনে শেষ সম্মান জানানোর জন্য ছুটে যাচ্ছেন তাদের কবরস্থানে।

‘লাশের কথা জানিয়ে মোবাইলে মেসেজ পাওয়ার পর থেকে শুরু হয় কাজ। লাশের গোসল থেকে শুরু করে দাফনসহ বিভিন্ন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে আমরা যখন ঘরে ফিরি, তখন নিজেরাই বুঝতে পারি না জীবিত আছি কি না। সুরক্ষা পোশাক পিপিই, হাতে গ্লাভস, চোখে চশমাসহ পুরো পোশাক পরে গরমের মধ্যে কাজ করা যে কতটা কষ্টসাধ্য, তা বলে বোঝানো যাবে না। দমবন্ধ হয়ে আসে একেক সময়। হাসপাতাল থেকে কবরস্থানে কবর দেওয়া পর্যন্ত বেশির ভাগ সময় মৃত ব্যক্তিদের স্বজনেরাও কাছে আসেন না ভয়ে। তবে আমরা ভয় পাই না। এই মৃত ব্যক্তিরা তো আমাদেরই কারও না কারও স্বজন।’ সোমবার (৯ আগষ্ট) জানালেন ওই দুই টিমের নেতারা।

কোভিড ১৯–এ (করোনা) আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া এক ব্যক্তির লাশের সৎকার প্রক্রিয়া শুরু করার আগে মোবাইলফোনে কথাগুলো বললেন ৩৫ বছর বয়সী তরুন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট মারুফ বিন জাকারিয়া। তিনি কোভিড–১৯–এ আক্রান্ত মৃত ব্যক্তির সৎকারের জন্য নীজ উদ্যোগে তার অনুসারী কয়েকজন তরুন-যুবকদের নিয়ে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে মারুফ বললেন, এক দিনে তিনটি লাশের সৎকার করতে সন্ধ্যা ছয়টা থেকে রাত ১টা পর্যন্ত লাগে।। কয়েকটি ঘটনায় কোনো স্বজনকেই পাওয়া যায়নি। মৃত ব্যক্তিকে কবরে নামিয়ে দিয়ে দলের সবার পিপিইসহ অন্যান্য সুরক্ষা পোশাক আগুনে পুড়িয়ে দিয়েই পরে ঘরে ফেরা সম্ভব হয়। তবে মারুফসহ অন্য স্বেচ্ছাসেবকেরা পরিবারের সদস্যদের সুরক্ষার কথা চিন্তা না করেই যার যার ঘরে ফিরে যাই। শুধু এ দাফন কাজই না, গত তিন বছর ধরে অসহায়-নিরীহদের সহযোগিতা এগিয়ে যাচ্ছেন তারা।

মৃত ব্যক্তির সৎকারে এডভোকেট মারুফের নের্তৃত্বে ৭ সদস্যের একটি টিম এবং হেল্পিং হেন্ড বাংলাদেশের ১৫ সদস্যের আরেকটি টিম রয়েছে । উভয় টিমের তালিকা রায়পুরের ইউএনও’র কার্যালয়ে রয়েছে। এই দুই স্বেচ্ছাসেবক টিম এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরাও জানালেন, গত বছরে এপ্রিল থেকে তারা কাজ করছে। পরিবারের সদস্যরা ভয় পেলেও লাশ সৎকারে তাঁরা ভয় পাচ্ছেন না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং সরকারের নির্দেশনা মেনে নিজেরা সুরক্ষিত থেকে লাশ সৎকার করছেন ও তাঁদের নেতা এডভোকেট মারুফ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। পরে ভালো হয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক (পারিবারিক ও সামাজিক বিভিন্ন সমস্যা এড়ানোর জন্য) একজন হাসপাতালে পিপিই পরার আগে মোবাইলে বললেন, ‘মৃত্যুভয় তো সবারই থাকে। আমরা যাঁরা এ কাজ করছি, নিজেরাও নিজেদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার বিষয়টি নিয়ে সচেতন।’ তিনি জানালেন, কোভিড–১৯–এ আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তি বাসায় মারা গেছেন। মৃত ব্যাক্তির পরিবারের অনুরোধে এ লাশের সৎকারের দায়িত্ব পান তিনি ও তাঁর দলের সদস্যরা। মারুফের নেতৃত্বে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ২৫ ব্যক্তির লাশ সৎকার করেছেন তারা।

“হেল্পিং হ্যান্ড বাংলাদেশের” প্রধান উপদেষ্টা রায়পুর এলএম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান জানালেন, রামগঞ্জ ব্লাড ডোনারস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাংবাদিক ওমর ফারুকের সহযোগিতায় তাঁর সংস্থা এ পর্যন্ত ৫৫টি লাশের সৎকার করেছেন। করোনাভাইরাসের বিস্তারে যখন মৃত ব্যক্তির স্বজনেরাই ভয়ে লাশ ফেলে চলে যাচ্ছে বা কাছে আসছে না, এ ধরনের পরিস্থিতিতে আলেম, শিক্ষক, হাফেজসহ সমাজের তরুন-যুবকদের সমন্বয়ে ১৫ জনের স্বেচ্ছাসেবকের মাধ্যমে লাশ সৎকারের কাজ করছেন। শুধু একাজই না, ২০১৬ সাল থেকে সামাজিক কাজ এবং অসহায়দের বিপদে এগিয়ে যাচ্ছেন তারা।।

Previous articleঋণ নিয়ে বিপাকে পড়ে কিডনি বেচতে চায় আব্দুর রব !
Next articleপীরগাছায় ৬ বছরের শিশুকে ধর্ষণ, থানায় মামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।