অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে চাঞ্চল্যকর স্কুল ছাত্র হত্যা মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি তথ্য গোপণ করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দীর্ঘ বছর ধরে চাকুরি করে আসছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সাজাপ্রাপ্ত ওই আসামির নাম আল আমিন সিকদার।

সে উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে স্বাস্থ্য সহকারি পদে চাকুরি করছেন। সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, ১৯৯৩ সালে ঝিলনা লঞ্চঘাটে একটি ক্লাব ঘর নির্মাণ করাকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ওই গ্রামের লিটন সিকদার ও আল আমিন সিকদারের নের্তৃত্বে ৬-৭ জনের একটি দল ওই গ্রামের আব্দুর রশিদের দ্বিতীয় ছেলে আয়লা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র বশিরকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় বশিরের বাবা আব্দুর রশিদ বাদি হয়ে তৎকালিন স্থানীয় চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল, খসরু হাওলাদার, মিজানুর রহমান,আল আমিন সিকদার ও লিটন সিকদারসহ ১১জনকে আসামি করে বাউফল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন। মামলা নম্বর (০২/৯৩)। পুলিশ দীর্ঘদিন তদন্ত করে চেয়ারম্যান আব্দুুল জলিল, খসরু হাওলাদার, মিজানুর রহমান, আল আমিন সিকদার ও লিটন সিকদারের বিরুদ্ধে পটুয়াখালী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে চার্জসীট দাখিল করেন। চার্জসীট নম্বর জি আর ৮৬/৯৩। এরপর ২০০৮ সালে বিচারের জন্যে মামলাটি বরিশাল দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আদালতে প্রেরণ করেন। মামলা নম্বর ০৩/০৮। ২০১১ সালে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিজ্ঞা বিচারক স্কুল ছাত্র বশিরকে হত্যার দায়ে কনকদিয়া ইউনিয়নের সাবেক প্রয়াত চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল, খসরু হাওলাদার, মিজানুর রহমান, আল আমিন সিকদার এবং লিটন সিকদারকে ৩০ বছর সশ্রম কারাদন্ডাদেশ এবং প্রত্যেকের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদন্ডাদেশ দেন। এরপর আসামিদের জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। কিছুদিন পর সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা উচ্চ আদালতে আপিল (আপলি নং ৮৭১৯/০৮) রুজু করেন। আপিলের প্রেক্ষিতে মাননীয় বিচারপতি এ,কে,এম আসাদুজ্জামান এবং মাননীয় বিচারপতি শেখ আব্দুল আউয়াল গঠিত আসামিদের ৬ মাসের জামিন মঞ্জুর করেন। জামিনে এসেই বাদির পরিবারকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য আসামি পক্ষ হুমকি দিতে থাকে। পরে আসামিরা উচ্চ আদালতে মামলাটি স্থগিত (স্টে) করে রাখেন। এরপর ২০১৩ সালে আল আমিন কনকদিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের স্বাস্থ্য সহকারি পদে চাকুরি নেন। বশিরের বাবা আব্দুর রশিদ সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, তার সন্তানকে যারা হত্যা করেছে তাদের ৩০ বছরের সাজা হয়েছে। সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে আল আমিনও রয়েছে। তারপরেও তার সরকারি চাকুরি হলো কিভাবে? তিনি কান্না জড়িতকণ্ঠে বলেন, আমাদের টাকা পয়সা নাই, তাই উচ্চ আদালতের খোঁজ খবরও নিতে পারছি না। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য সহকারি আল আমিন সিকদার মুঠোফোনে মামলায় সাজা ও জরিমানার কথা স্বীকার করে বলেন, মামলাটি নিস্পত্তি হয়েছে। মামলা নিস্পত্তির পর চাকুরি হয়েছে। আমার ডিপার্টমেন্ট জেনে শুনে মামলা নিস্পত্তির পরে আমাকে চাকুরি দিয়েছেন। মামলা নিস্পত্তিরি কাগজ আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে গিয়ে বলেন, এটা কোর্টের ব্যাপার। প্রতিপক্ষ তাকে ফাঁসাতে মিথ্যা রটাচ্ছেন। এবিষয়ে একাধিক আইনজীবী বলেন, সাজা হওয়া মামলার কোন আসামির আপিলে উচ্চ আদালত নি¤œ আদালতের কার্যক্রম স্থগিত করলেও সরকারি চাকুরি বিধি মোতাবেক ওই আসামি সরকারি চাকুরি করতে পারেন না। সরকারি চাকুরির

পূর্বে পুলিশ ভেরিফিকেশন হয়। সেখানে সম্ভবত: এই তথ্য গোপণ করেছেন। অথবা মামলাটি নিস্পত্তি হয়েছে মর্মে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে কাগজপত্র জমা দিয়েছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পণা কর্মকর্তা ডা. প্রশান্ত কুমার সাহা বলেন, এবিষয়ে আমার কিছু জানা নেই। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেব। উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন বলেন, কোন ব্যক্তি ফৌজদারি কোন মামলায় আদালতে দোষী সাব্যস্ত হলে তার সরকারি চাকরি পাওয়ার কোন বিধান নাই। তবে মামলাটি সম্পর্কে আমাদের কিছু জানা নেই।

Previous articleব্যারিস্টার সুমন ও মেহজাবিনের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ
Next articleকলাপাড়ায় ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা’র খাজনা দাখিলা কান্ড!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।