আহাম্মদ কবির: বৈশ্বিক অদৃশ্যশক্তি করোনাসের সংক্রমণে মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলার পর্যটন শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত স্থানীয় পর্যটকবাহী নৌচালক ও ভাসমান চা বিক্রেতাসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা।

তবে সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থান হতে পর্যটকদের আনাগোনা বৃদ্ধি হওয়ায় ফের প্রাণ ফিরতে শুরু করেছে স্থানীয় নৌচালক ও চা বিক্রেতাদের বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের।

জানাযায় সম্প্রতি দুইদিনের টানা সরকারি ছুটির সুবাদে উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওর পরিবেশ বান্ধব পর্যটন শিল্পের, ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন এলাকাগুলোতে ভিড় করছে হাজার হাজার পর্যটক।প্রথমদিন শুক্রবার উপস্থিতি কিছুটা কম থাকলেও,দ্বিতীয় দিন শনিবার হাওরের ওয়াচ-টাওয়ার সংলগ্ন এলাকায় পর্যটকদের ছিল বাঁধভাঙা ঢল।হাওরের ওয়াচ-টাওয়ার থেকে প্রায় এক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ছিল পর্যটক বহনকারী নৌকার ভিড়।

স্থানীয় চা বিক্রেতা স্থানীয় জয়পুর গ্রামের মোঃ রেনু মিয়া বলেন গতকাল থেকে আজ এ পর্যন্ত যে পরিমাণ পর্যটক আইছে এর আগে কোনদিন এইরকম দেখিনি।পর্যটক আওয়াতে আমরার(আমাদের)বেচাকেনা ভালা হইছে,হাওরে পর্যটক আসায় আমরার কামাইর সুযোগ হইছে (আয়ের সুযোগ হইছে)কেউ চা বেইচ্ছা (কিক্রি করে) কেউ ছোটছোট নাও (নৌকা) চালাইয়া কিছু টাকা রুজি কইরা ডাইল চাউল কিনার উপায় হইছে।

একই গ্রামের হস্তচালিত নৌকাচালক সোহাগ মিয়া বলেন, পর্যটক আওয়াতে(আসাতে) দুই দিনে কয়টা টেকা(টাকা)কামাই করছি,এইরকম পত্তিদিন(প্রতিদিন)আইলে কামাই কইরা(রোজকার)করে চলতাম পারমু।

স্থানীয় সুশীল সমাজ প্রতিনিধি ও সম্ভাব্য ইউপি সদস্য পদপ্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম বলেন হাওরে পর্যাপ্ত মাছ নেই এলাকায় বিকল্প কোন কর্মের সুযোগ না থাকায় এ অঞ্চলের অনেকেই গ্রাম ছাড়া, কেউ ঢাকা কেউবা আবার ফেনি চলে যাচ্ছে জীবিকার তাগিদে। যারা বাড়িতে রয়েছে খুব কষ্ট করে খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছে। দুইদিন ধরে পর্যটক আসা শুরু করায় এখানকার মানুষের কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরেছে।

Previous articleসুবর্ণচরে ৮ রোহিঙ্গা আটক
Next articleরাজাপুরে ঘর থেকে বৃদ্ধার গলাকাটা লাশ উদ্ধার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।