রেজাউল ইসলাম পলাশ: আজ থেকে ১৭ বছর আগে ২০০৪ সালের এই দিনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনার সমাবেশে ২১ আগস্ট, রক্তাক্ত বিভীষিকাময় অতর্কিতে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়।

মারা যান আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানসহ ২৪ জন শহীদ বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ পাঁচ শতাধিক নেতা-কর্মীর আহতের প্রতিবাদে ঝালকাঠির রাজাপুরে মানববন্ধন, আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার বিকেল ৪ টার দিকে উপজেলার আওয়ামীলীগ ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের আয়োজনে রাজাপুর প্রেসক্লাব চত্বরে নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণে নারকীয় গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদ ও নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে ও বিচারের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বর্বরোচিত ২১শে আগষ্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে গ্রেনেড হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে হামলাকারী ঘাতকদের সহ এর মদতদাতাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় এনে দ্রুত শাস্তির দাবী জানান বক্তারা। তারা বলেন, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা ছিল ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্টের কালরাতের বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডের ধারাবাহিকতা। আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে সংগঠনের সভাপতি শেখ হাসিনাসহ দলের প্রথম সারির নেতাদের হত্যার উদ্দেশ্যেই ওই ঘৃণ্য হামলা চালায় ঘাতক চক্র।

এ সময় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ্যাড. বাবু সঞ্জীব কুমার বিশ্বাস, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরউজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডঃ খায়রুল আলম সরফরাজ, সাধারণ সম্পাদক ও ভাইস চেয়ারম্যান জিয়া হায়দার খান লিটন প্রমূখ৷

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে আঁধাঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন শেষে উপস্থিত নেতাকর্মীরা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন হলরুমে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়। সভা শেষে শহীদের রুহের মাগফিরাত কামনা ও আহতদের সুস্থতা কামনায় দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য ওই দিন শুধু গ্রেনেড হামলাই নয়, সেদিন শেখ হাসিনার গাড়ি লক্ষ্য করেও চালানো হয় ছয়টি গুলি। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেও তিনি আহত হন, তাঁর শ্রবণশক্তি চিরদিনের মতো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। হামলার পরপরই শেখ হাসিনাকে কর্ডন করে গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁর তৎকালীন বাসভবন ধানমন্ডির সুধা সদনে। ২১ আগস্টের রক্তাক্ত হামলার ঘটনায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন ১৬ জন। পরে সব মিলিয়ে নিহতের সংখ্যা দাঁড়ায় ২৪ জনে। রক্তাক্ত-বীভৎস ওই ভয়াল গ্রেনেড হামলায় আইভি রহমান ছাড়াও সেদিন নিহত হন ল্যান্স করপোরাল (অব.) মাহবুবুর রশীদ, হাসিনা মমতাজ রিনা, রিজিয়া বেগম, রফিকুল ইসলাম (আদা চাচা), রতন শিকদার, মোহাম্মদ হানিফ ওরফে মুক্তিযোদ্ধা হানিফ, মোশতাক আহমেদ, লিটন মুনশি, আবদুল কুদ্দুছ পাটোয়ারী, বিল্লাল হোসেন, আব্বাছ উদ্দিন শিকদার, আতিক সরকার, মামুন মৃধা, নাসির উদ্দিন, আবুল কাসেম, আবুল কালাম আজাদ, আবদুর রহিম, আমিনুল ইসলাম, জাহেদ আলী, মোতালেব ও সুফিয়া বেগম। গ্রেনেডের স্প্লিন্টারের সঙ্গে যুদ্ধ করে ঢাকার মেয়র মোহাম্মদ হানিফসহ আরও কয়েকজন পরাজিত হন।

Previous articleমাদারীপুরে জমিসংক্রান্ত ঝামেলায় নারীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ
Next articleঅবৈধ ভাবে চাঁদা আদায় বন্ধের দাবীতে চান্দিনা-বাগুর বাস স্টেশনে চালকদের মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।