তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে বসতঘরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে চার সন্তানসহ মাহমুদা বেগম নামে এক গৃহবধূর বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। মুমুর্ষ অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে শনিবার রাতে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পারিবারিক কলহের জের ধরে পৌর শহরের মিয়া রাস্তার মাথা নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে এলাকাবাসি জানান।

হাসপাতাল ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে লক্ষ্মীপুর শহরে অবস্থিত বাংলাদেশ মেডিকেলের মালিক নাদিম ও তার স্ত্রী মাহমুদা বেগমের পারিবারিক কলহ চলে আসছিলো। এতে করে প্রায় সময় তাদের মধ্যে ঝগড়া লেগেই থাকতো। ঘটনার রাতে মাহমুদা ঘরের দরজা বন্ধ করে তার তিন ছেলে জুলহাস (১০) মুর্তজা(৭) আরমান(৫) ও মেয়ে পান্নাকে (৬) জুসের সাথে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে নিজেও বিষ পান করেন।

এসময় পরিবারের সকলের মৃত্যু নিশ্চিত করতে ঘরের দরজা বন্ধ করে ভেতরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এসময় শিশুদের চিৎকার স্থানীয়রা এগিয়ে মুমমূর্ষ অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এঘটনায় ৪ শিশু সন্তানের মধ্যে পান্না জুস খাওয়ানোর কথা বললেও অন্যরা কিছুই বলতে পারছেননা এবং গৃহবধুও বক্তব্য দিচ্ছেন না।

সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক কমলাশীষ জানান, বিষক্রিয়া নিয়ে একই পরিবারের শিশুসহ ৫ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়। তারা আশঙ্কামুক্ত হতে ৭২ ঘন্টা সময় অপেক্ষা করতে হবে বলে জানান চিকিৎসক।

সরজমিন ঘটনাস্থলে দেখা গেছে, গৃহবধুর বসতঘরের আসবাবপত্র এলোমেলো অবস্থায় পুড়ে ছাই রয়েছে। এসময় শহর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক ইমদাদুল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। মাহমুদার স্বামী নাদিমও ছিলেন তখন।

জানতে চাইলে গৃহবধুর স্বামী নাদিম বলেন, স্ত্রীর বেপরোয়া জীবন যাপনে সংসারে অশান্তি লেগে থাকতো। সব সময় টাকা পয়সা চাইতো না দিলে সন্তানদের নিয়ে আত্মহত্যার হুমকি দিত।

এঘটনায় সদরের শহর পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক ইমদাদুল হক জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামীর উপর অভিমান করে গৃহবধু মাহমুদা এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

Previous articleঈশ্বরদী এখন উন্নয়নের মহাসড়কে উঠেছে: এমপি নূরুজ্জামান বিশ্বাস
Next articleজয়পুরহাটে গৃহবধূকে ধর্ষণ মামলায় একজনের ১০ বছরের কারাদন্ড
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।