জয়নাল আবেদীন :” আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন অনুষ্ঠানে রংপুর মহানগর আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে দলের উপদেষ্টা ও রংপুর জেলা মটর মালিক সমিতির সভাপতি একেএম মোজাম্মেল হককে লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় বুধবার দুপুরে রংপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সন্মেলন হয়েছে ।

সংবাদ সন্মেলনে একেএম মোজাম্মেল হক লিখিত বক্তবে বলেন, আমি সহ আমাদেও পরিবার ষাট দশক থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত এবং দীর্ঘ দিন থেকে দলকে আমি আর্থিক সহ বিভিন্ন ভাবে সহযোগীতা করে আসছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিন পালন অনুষ্টানে মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল উপদেষ্টা হিসেবে আমাকে কথা বলার সুযোগ করে দেন । সে সময় আমি আমার অনুভূতি ব্যক্ত করার জন্য মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে কথা বলা শুরু করলে আমার হাত থেকে মাক্রোফোনটি ছিনিয়ে নেন মহানগর আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবীর চাঁদ। এসময় রংপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি শাফিউর রহমান সাফি আমাকে লাঞ্ছিত করে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। পরে দলের অন্যান্য নেতাকর্মীরা আমাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় আমি মর্মাহত হয়েছি। আমি শারীরিকভাবে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছি। সভা চলাকালে এ ধরনের অশালীন কার্যক্রম দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছে বলে সাংবাদ সন্মেলনে তিনি জানান।

সংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মহানগর আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা ও রংপুর জেলা মটর মালিক সমিতির সভাপতি একেএম মোজাম্মেল হক জানান, তাকে লাঞ্ছিত ও হেনস্থা করার পিছনে রংপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি শাফিয়ার রহমান সফি রংপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজুর প্রত্যক্ষ মদদ রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন আওয়ামীলীগের জেলা সম্পাদক রেজাউল করিম রাজুর স্ত্রী জামাত পরিবারের মেয়ে । জামাতির জামাই হয়ে কি করে তিনি দলের জেলা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন । এক প্রশ্নের উত্তরে মোজাম্মেল হক বলেন আমি মৃত্যুর পরোয়া করিনা এবং কাউকে ভয়ও পাইনা । তিনি রংপুর জেলা মোটর মালিক সমিতির সভাপতি হিসাবে যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সক্ষম বলে জানান । তিনি আক্ষেপ করে বলেন দলের দূর্দিনে লক্ষ লক্ষ টাকা দিয়ে সহযোগিতা করেছি । আর আমাকেই গলা ধাক্কা দিয়ে বের করে দেয় । তিনি বলেন রংপুর জেলা মোটর মালিক সমিতির ৪২ বছর ইতিহাসে এই প্রথম আওয়ামীলীগের ক্ষুদ্র কর্মি হিসাবে আমি সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় সমিতি অফিসে জাতির পিতা এবং প্রধান মন্ত্রীর ছবি টাঙাতে পেরেছি ।এব্যাপারে রংপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সাভাপতি শাফিয়ার রহমান সফির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি সভা শেষ করার পর মহানগর আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা ও রংপুর জেলা মটর মালিক সমিতির সভাপতি একেএম মোজাম্মেল হক আপত্তিকর বক্তব্য শুরু করলে দলের নেতা-কর্মীরা তাকে থামিয়ে দেন। তাকে কেউ লাঞ্ছিত বা আঘাত করেনি।

রংপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল জানান, মোজাম্মেল হকের পরিবার আওয়ামী পরিবার। রংপুরে আওয়ামীলীগকে তাদের পরিবার পৃষ্টপোষকতা করে আসছেন। দলের উপদেষ্টা হিসেবে তাকে বক্তব্য দিতে বলা হয়। তিনি বক্তব্য রাখতে গিয়ে বিপত্তি ঘটে। এসময় রংপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সাভাপতি শাফিয়ার রহমান সফি মহানগর আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবীর চাঁদ বাধা দেয় বলে জানান তিনি। এদিকে দলীয় উপদেষ্টা লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনায় নগরিতে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে ।

Previous articleপাঁচবিবিতে বাল্য বিবাহ, মাদক ও ইভটিজিং বিরোধী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
Next articleনোয়াখালীতে প্রথম আলোর প্রতিবেদককে স্বপরিবারে প্রাণনাশের হুমকি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।