তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার সর্বত্ত অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সনাতন ধর্মের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান শারদীয় দূর্গা উৎসব। উপজেলার এক থানা ও দুটি ফাঁড়ি নিয়ে ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় এবছর ১২ টি পূজা মন্ডবে শারদীয় দূর্গাপুজা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিমা তৈরীর কাজ শেষের পর রং তুলির আঁচড়ও শেষ।

বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার পৃথকভাবে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন ও থানার সেবা প্রার্থীদের কক্ষে পুজা উদযাপন কমিটির সদস্য ও হিন্দু নেতাদের সাথে বৈঠক করেন ইউএনও ও ওসি । মন্দির গুলো পরিদর্শন করেন ইউএনও-ওসি।

উপজেলায় বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, এবার ১২ টি পূজা মন্ডপে শারদীয় দূর্গাউৎসব অনুষ্ঠিত হবে । এর মধ্যে পৌরসভায় রয়েছে ৩ টি ও ১০ ইউপিতে ৯ টি মন্ডপ। ইতিমধ্যে প্রতিমা তৈরী ও রং তুলির কাজ শেষ হয়েছে। প্রতিমা শিল্পিরা তাদের হাতের কারুকার্য ও রং তুলি দিয়ে প্রতিমা গুলিকে সৌন্দর্য বর্ধন করেছেন। মন্ডপে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয় ষ্টেজ ও অন্যান্য ডেকোরেশনের কাজ।

সকলের সুখ ও মঙ্গল কামনায় মায়ের আগমন ঘটবে এবার। অসুভ শক্তি ও অসুর শক্তির বিনাশ হবে। পৃথিবীর সুন্দর ও স্বাসত সুন্দরের জয় হবে। আর এমন টায় আশা করছেন সনাতন ধর্মালম্বীরা।
প্রতি বছরের মতো এবারও প্রতিটি পূজা মন্ডপে ৫০০ কেজি চালের সম পরিমান ১২ থেকে ১৩ হাজার টাকা অনুদান দিবে সরকার। পূজা মন্ডপ গুলিতে যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আনসার ও গ্রামপুলিশের সাথে পুলিশের তিনটি মোবাইল টিম কাজ করবে বলে জানা গেছে।

এদিকে-চলমান করোনা পরিস্থিতির কারনে প্রতিমা শিল্পীরা আগে যে মজুরী পেতেন গত দুই বছর ধরে সে পরিমানে অর্থ না পাওয়ায় ভাল নেই তারা।

ফরিদপুর থেকে রায়পুর পৌরসভার শ্রী শ্রী মদন মোহন জিউর মন্দির দূর্গাপুজা মন্ডপ মন্দীরের কাজে আসা প্রতিমা শিল্পী বাবুল পাল বলেন, বছরে পূজার আগে এক মাস কাজ করে করে যে আয় হয় তাদের তা দিয়ে বছর চলতে হয়। করোনার আগে পূজার সময়ে তিনি প্রায় দেড় থেকে দুই লাখ টাকার কাজ করতেন। কিন্তু এবার মাস জুড়ে তার শ্রমের মুল্য ৫০ হাজারও পুরছে না। গত ১০ দিন আগে তারা তিনজন রায়পুরে আসেন।

রায়পুর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি হরিপদ পাল জানান, পূজা উৎসব শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে পূজা উদযাপন পরিষদের সাথে উপজেলা প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে বৈঠক হয়েছে। তারা বলেছেন, মন্ডপ গুলোতে সকল ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা দিবেন।

রায়পুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল জানান, পূজা চলাকালীন সময়ে মন্ডপ গুলোতে যেন কোন প্রকার আইন শৃঙ্খলার অবনতি না ঘটে তার জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার থাকবে। ইতিমধ্যে আমরা পূজা উদযাপন কমিটিগুলোর সাথে এনিয়ে মত বিনিময় সভা করেছি বলে জানান তিনি।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে জমি অবৈধ দখলদার মুক্ত করতে বৈধ জমির মালিকদের মানববন্ধন
Next articleপদ্মায় নৌডুবির পর ফেরীঘাটের অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।