ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: পদ্মায় নৌকাডুবিতে ৫ জনের মৃত্যুর পর নদীতে বিভিন্ন ফেরীঘাটগুলোর নানা অব্যবস্থানার বিরুদ্ধে মানববন্ধন হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সোমবার (১১ অক্টোবর) সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। পাঁকা-নারায়নপুর তরুণ প্রজন্মের আয়োজনে মানববন্ধনে অংশ নেয় সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের বিভিন্ন শ্রেণীপেশার জনসাধারণ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সীমান্তবর্তী জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জের চরাঞ্চলের প্রায় ১০ হাজার পরিবারের বসবাস। জীবন-জীবিকার তাগিদে চরাঞ্চলের মানুষকে প্রতিদিন নদী পার হতে হয়। পদ্মা নদী পার হতে গিয়ে আমাদেরকে প্রতিনিয়ত নানা হয়রানির শিকার হতে হয়। স্থানীয় একটি সিন্ডিকেট কোটি টাকা দিয়ে ইজারা নিয়ে ফেরীঘাটগুলো নিয়ন্ত্রণ করছে। এর খেসারত দিচ্ছে সাধারন মানুষ। কোন নিয়মনীতি অনুসরণ না করে স্বেচ্ছাচারীতা করে ফেরীঘাট পরিচালনা করছে ইজারাদারা৷ ইজারাদারদের ইচ্ছায় নৌকায় যাত্রী, মালামাল, গবাদিপশু ও যানবাহন বোঝায় করার কারনে বিভিন্ন সময়ে দূর্ঘটনায় জীবন হারাতে হয়।

এছাড়াও নৌকায় নিদিষ্ট পরিমানে ৪০ জন যাত্রী উঠানো, নৌকায় উঠা-নামার সুব্যবস্থা করা, অতিরিক্ত যাত্রী ও মালামাল পরিবহন না করা, গর্ভবতী ও রোগীর জন্য আলাদা রিজার্ভ নৌকার ব্যবস্থা করার দাবি জানান বক্তারা। অভিযোগ করে বক্তারা বলেন, ইজারাদারদের অতিরিক্ত পন্য বোঝাইয়ের কারনেই গত ২৯ সেপ্টেম্বর পদ্মানদীতে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। নিহতের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা দাবি জানান তারা।

মানববন্ধনে বক্তারা আরও বলেন, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী স্থানীয়দের সাথে কথা বলে টোল নির্ধারন করতে হবে। এছাড়াও জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন উপকরণ নৌকায় রাখতে হবে। যাতে দূর্ঘটনার সময় জীবন রক্ষা করা যায়। এমনকি ফেরীঘাটে উপযুক্ত ও নিরাপদ যাত্রী ছাউনী, বসার ব্যবস্থা, নিরাপদ খাবার পানি, নারী-পুরুষের জন্য আলাদা সৌচাগার রাখতে হবে। ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য অর্ধেক ভাড়া নেয়ার দাবি জানান বক্তারা। পরে এসব অভিযোগ ও দাবি নিয়ে জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ২৯ সেপ্টেম্বর বেলা আড়াইটার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা ইউনিয়নের দশরশিয়া-লক্ষীপুর চরের কাছে মাঝ নদীতে নৌকাডুবি হয়। বোগলাউড়ি ঘাট থেকে ৪৭ জন যাত্রী নিয়ে একটি নৌকা দশরশিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার মাঝপথে এ নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। নৌকাডুবিতে নিহতরা হলেন- পাঁকা ইউনিয়নের বিশরশিয়া গ্রামের খাইরুল ইসলামের স্ত্রী নিলুফা বেগম (৫০), নিহতের নাতনী ও সদর উপজেলার নারায়ণপুরের বাবু আলীর মেয়ে মাইশা খাতুন (৮), ছেলে আসমাউল (৭) ও দশরশিয়া গ্রামের হারুন আলীর স্ত্রী ডেইজি বেগম, দশরশিয়া গ্রামের হারুন আলীর মেয়ে বৃষ্টি খাতুন।

নৌকাডুবিতে এখন পর্যন্ত নিখোঁজ ৩ জন হলো- শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা ইউনিয়নের সাজ্জাদ আলীর ছেলে খাইরুল ইসলাম, জংলাপাড়া গ্রামের আমিন আলীর মেয়ে মোসা. আমেনা খাতুন, তার ভাই মাসুম আলী।

Previous articleরায়পুরে ১২টি পূজা মন্ডপে উৎসবের প্রস্তুতি সম্পন্ন, মঙ্গলবার শুরু
Next articleসোনারগাঁওয়ে ট্রাকচাপায় স্কুলছাত্র নিহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।