ফজলুর রহমান: রংপুরের পীরগাছায় এক যুবতী কর্তৃক একাধিক বিয়ের নামে তার সক্রিয় প্রতারক চক্রের মাধ্যমে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। ওই চক্রের প্রতারনার শিকার হয়ে নিঃস্ব হচ্ছে যুবকরা।

বাদ যায়নি কলেজের শিক্ষক। গুনতে হয়েছে জরিমানার টাকা। এলাকাবাসী ও অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার সীমান্তবর্তী সুন্দরগঞ্জ উপজেলার উত্তর হাতিবান্ধা গ্রামে বসবাস করেন নবীর হোসেন। ওই গ্রামের নবীর হোসেন এর মেয়ে সুচরিতা পীরগাছার দেবী চৌধুরানী ডিগ্রী কলেজের শিক্ষার্থী। কলেজ পড়া অবস্থায় গত ৬ সেপ্টেম্বর-২০১৭ সালে পারিবারিক ভাবে সূচরিতার সাথে একই গ্রামের আব্দুস ছালাম এর ছেলে আশিকুর রহমানের বিয়ে হয় । বিয়ের পর তাদের মাঝে বনিবনা না হওয়ায় মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। ইতিপূর্বে সুচরিতা আক্তার কলেজ আসা-যাওয়ার সময় ওই কলেজের শিক্ষক জমির উদ্দিনকে তার প্রেমের ফাঁদে ফেলেন। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ ও পীরগাছা থানায় একটি এজাহার দাখিল করেন। আনিত অভিযোগ কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে মামুন মিয়া, হাফিজার, তোজা মিয়া, আজির উদ্দিন এবং এরশাদ হোসেনসহ আরো অনেকের সম্বন্বয়ে জমির উদ্দিনের ১লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা জরিমানায় করা হয়। পূর্ব পরিচিতির সুত্র ধরে সুচরিতা আক্তার পীরগাছার পারুল ইউনিয়নের মনুরছড়া গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে হাবিবুর রহমান হীরাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে নিজের বাড়িতে কৌশলে ডেকে নিয়ে ওই চক্রের মাধ্যমে জোর পূর্বক গত ৭ জুন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করেন। বিবাহের কাবিননামায় স্বাক্ষী হিসেবে স্বাক্ষর করেন সুচরিতা চক্রের সদস্য মামুন, হাফিজার ও এরশাদ। হাবিবুর রহমান হিরার বাবা আব্দুস সালাম বলেন, মামুন নামে আমি কাউকে চিনি না অথচ কাবিননামার ১০নং কলামে হাবিবুর রহমান হীরা-এর দুলাভাই হিসেবে স্বাক্ষর করেন মামুন। হীরার মা-বাবা আত্মীয়স্বজন কেউ মামুনকে চেনেন না। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই মামুন সুচরিতার বিভিন্ন সালিশ বৈঠকের জরিমানা আদায়ের স্বাক্ষী হিসেবে স্বাক্ষর করে থাকেন। সুচরিতা যখন হাবিবুর রহমান হীরা কে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করেন সেই সময় হীরার পরিবারের কোন সদস্যই সেখানে উপস্থিত ছিলেন না বলে হীরার বাবা-মা জানান। হীরার সঙ্গে ঘর সংসারও হয়নি। একপর্যায়ে সুচরিতা ৩ অক্টোবর/২১ হাবিবুর রহমান হীরা সহ ৫জনকে আসামী করে আদালতে হয়রানি মূলক একটি মামলা যৌতুকের মামলা করেন। সুচরিতা চক্রের সদস্য মামুন, এরশাদ ও হাফিজারের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পাওয়া মাত্র মোবাইলের সংযোগ কেটে দেন। অভিযুক্ত সুচরিতা এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি বলেন, হাবিবুর রহমান হীরা আমার বিবাহিত স্বামী। কলেজের স্যারের সঙ্গে আমার মিমাংসিত বিষয়টিও তাহলে আপনি জেনেছেন? হাবিবুর রহমান হিরা জেনে শুনে আমাকে বিয়ে করেছে। আমার দশ যায়গাতে বিয়ে হতে পারে এতে হীরার পরিবারের সমস্যা কি?

স্থানীয় আবুল কালাম আজাদ মাস্টার বলেন, হাবিবুর রহমান হীরার পরিবারের নামে মামলা দিয়ে তাদেরকে বিপদে ফেলে কিছু টাকা নিয়ে সমোঝতা করাই হলো সুচরিতার মূল উদ্দেশ্য।

স্থানীয় ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম বলেন, একটি মেয়ে বার বার একই ঘটনা ঘটানোর পরেও আমরা তাকে কি ভালো বলতে পারি। তিনি আরও বলেন, ছোট খাটো তার বহু অভিযোগ আমরা সমাধান করে দিয়েছি। বার বার সহজ সরল সাধারন যুবকদের কে বিপদে ফেলে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে আপোষ করেন। এ বিষয়ে চৌধুরানী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন বলেন, সুচরিতা আমাদের ছাত্রী হয়েও আমাদের শিক্ষকের নামে বিভিন্ন দপ্তরে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছিল। বাধ্য হয়ে আমি নিজেই ১লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে সুচরিতাকে দিয়ে বিষয়টি সমাধান করেছি।

Previous articleশ্রীনগরে নির্বাচনী সহিংসতায় চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আহত ৩২
Next articleস্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর স্বাক্ষর জাল করে ডিও লেটার, রংপুরে পুলিশসহ গ্রেফতার ৪
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।