বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বগুড়ার শাজাহানপুরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্রে করে সহিংসতা, নির্বাচনী অফিস ভাংচুর এবং কর্মীকে না পেয়ে তার স্ত্রীকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের মারধর ও হুমকি-ধামকিতে ক্রমেই উত্তপ্ত হচ্ছে নির্বাচনী পরিবেশ। এসব ঘটনার পর ভয়ে অভিযোগ থানায় দেয়ারও সাহস পাচ্ছে না বলে জানান ভুক্তভোগীরা।

রোববার সকালে উপজেলার আশেকপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বিএনপি নেতা ইদ্রিস আলী সাকিদার এবং খোট্রাপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আবু সুফিয়ান সুমন এসব অভিযোগ জানান।

আশেকপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী (মোটরসাইকেল প্রতীক) সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা ইদ্রিস আলী সাকিদার জানান, গত শুক্রবার দুপুরে রানীরহাট এলাকায় তিনি নির্বাচনী অফিস তৈরি করছিলেন। এ সময় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ফিরোজ আলম ও তার কর্মীরা হামলা চালিয়ে তার অফিস ভাংচুর করে। কোনো নির্বাচনী অফিস ও পোস্টার লাগাতে দেবে না বলে তারা হুমকি দেয়। এ ঘটনায় রিটার্নিং অফিসারকে সশরীরে মৌখিকভাবে জানালে তিনি নৌকা প্রার্থীর সাথে সমন্বয় করে চলতে বলেছেন।

নৌকার প্রার্থী ফিরোজ আলম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এসব মিথ্যা, বানোয়াট এবং ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুম কবির জানান, স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী সাকিদার মৌখিকভাবে তাকে জানিয়েছেন। তাকে লিখিতভাবে অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে।

উপজেলার খোট্রাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও আ’লীগের বিদ্রোহী (আনারস প্রতীক) আবু সুফিয়ান সুমন জানান, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল ফারুকের কর্মীরা তার ৬ কর্মীকে মারধর করেছে। এছাড়াও জুজকুলা গ্রামে তার সমর্থক মুকুলকে না পেয়ে তার স্ত্রীকে মারধর করেছে এবং ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়েছে।

জালশুকা গ্রামের আবদুর রাজ্জাক নামের একজন শিক্ষক জানান, সুমনকে ভোট দেব জানতে পেরে তাকেও মারধর করেছে এবং ওই গ্রামে লাগানো নির্বাচনী পোস্টার ছিঁড়ে ফেলেছে। এসব বিষয়ে অভিযোগ দায়ের করা হবে বলে তারা জানিয়েছেন। আর এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আবদুল্লাহ আল ফারুক।

রিটার্নিং অফিসার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দুলাল হোসেন বলেন, এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শাজাহানপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং নির্বাচনে কোনো প্রকার সহিংসতা মেনে নেয়া হবে না।

Previous articleবিচারক কামরুন্নাহারকে আদালতে না বসার নির্দেশ
Next articleফতুল্লায় গার্মেন্টস শ্রমিককে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।