তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে ২০টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে বহিরাগতদের দাপটে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কা ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন প্রার্থীরা। প্রিজাইডিং কর্মকর্তা নিয়োগেও আপত্তি তুলেছেন কেউ কেউ।

এছাড়া প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে নির্বাচনি প্রচারণায় বাধা, মাইক ছিনতাই, হুমকি ও মারধরের অভিযোগ করা হয়েছে। আগামি ২৮ নভেম্বর সংঘাত ও প্রভাবমুক্ত নিরপেক্ষ নির্বাচনে প্রত্যেক কেন্দ্রে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট চেয়ে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন চেয়ারম্যান, সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্য প্রার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর)-রায়পুর জেলা পরিষদ ডাকবাংলোতে মিলনায়তনে ও রামগঞ্জে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নির্বাচনি আচরণবিধি প্রতিপালন বিষয়ে জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোসেন আকন্দ ও পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামানের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রার্থীদের এসব উদ্বেগের কথা জানান এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি করেন। এ সময় প্রশাসনও শতভাগ সুষ্ঠু নির্বাচনের আশ্বাসও দেন।

কেরোয়া ইউপির আ’লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রাথী বাবুল পাটোয়ারী (আনারস) তার প্রতিপক্ষ নৌকার প্রার্থী শাহিনুর বেগমের অভিযোগ এনে বলেন, আমার উপর ও নির্বাচনি কর্যালয়ে হামলা ও আহতের ঘটনায় দুটি লিখিত অভিযোগ দিলেও কোন প্রতিকার নাই। শতভাগ সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি।

চরপাতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী আ’লীগের বিদ্রোহী (আনারস) খোরশেদ আলম বলেন, ইউনিয়নের প্রত্যেকটি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ। কেন্দ্র ভিত্তিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেওয়া হলে সুষ্ঠু ও সংঘাতমুক্ত নির্বাচন হবে বলে আশা করছেন। এপর্যন্ত ৯টি অভিযোগ করেছি। কোন প্রতিকার পাচ্ছি না।। বহিরাগতরা এসে আশ্রয় নিচ্ছে।।

দক্ষিন চরবংশি ইউনিয়নে আ’লীগের প্রার্থী (নৌকা) আবু সালেহ মিন্টু ফরায়েজি বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তার ইউনিয়নে মাদকসেবী ও সন্ত্রাসীদের আনাগোনা বেড়েছে। তিনি মাদকসেবী ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ও সুষ্ঠু নির্বাচনে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান।

রামগঞ্জের চন্ডপুর ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী কামাল হোসেন বলেন, প্রতিদন্দ্বি প্রার্থীদের আত্মীয়-স্বজনরা নির্বাচনি এলাকায় আসার কারণে এখানে বিশৃঙ্খলা হচ্ছে। তিনিও সুষ্ঠু নির্বাচনের আশা করেন। এদিকে লামচর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল হোসেন বিনা ভোটে নির্বাচিত হলেও সদস্য প্রার্থীরা সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন। ওই ইউনিয়নের সদস্য প্রার্থীরা প্রভাবমুক্ত নির্বাচনের দাবি।

জেলা পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান বলেন, ‘সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, আবাধ ও সন্ত্রাসমুক্ত নির্বাচন দিতে আমরা শতভাগ প্রস্তুত। আমরা নির্বাচনি আইন অক্ষরে অক্ষরে পালন করব। কোনো অন্যায়কারীকে ছাড় দেওয়া হবে না। কেউ কোনো বিশেষ সুবিদা পাবে না।’

জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোসেন আকন্দ বলেন, ‘নির্বাচন সুষ্ঠু করতে পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী থাকবে। আমরা বিন্দুমাত্র নির্বাচনি আচরণবিধির ব্যত্যয় ঘটতে দেব না।’ এ সময় তিনি সব প্রার্থীকে সচেতন হতে বলেন এবং নির্বাচনি অচরণবিধি মেনে চলার অনুরোধ করেন। বহিরাগত ঠেকাতে মেঘনা নদিতে কোষ্টগার্ডকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

মতবিনিময় সভায় রায়পুর উপজেলা নির্বাহী ও রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন থানার ওসি, রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ দুই উপজেলার ২০টি ইউনিয়নের প্রার্থীদের সঙ্গেও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

Previous articleনৌকা প্রার্থীর অফিসে অগ্নিসংযোগের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন
Next articleগাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র হলেন কিরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।