বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে পূর্বশত্রুতার জেরধরে বসত বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার বিকেলে উপজেলা চরকালেখান ইউনিয়নের দক্ষিণ গাছুয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

হামলাকারীরা দক্ষিণ গাছুয়া গ্রামের আলমগীর ভুইয়ার স্ত্রী ঝর্ণা বেগমের বিক্রিত জমিতে সদ্য নির্মিত রান্নাঘর কুপিয়ে ও পিটিয়ে ভাঙচুর করে মালামাল নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। দক্ষিণ গাছুয়া গ্রামের আলমগীর ভুইয়ার স্ত্রী ঝর্ণা বেগম জানান, জমি নিয়ে পার্শ্ববর্তী বাড়ির মিজান সিকদার, তাজিম মাতুব্বর ও তার লোকজনের বিরোধ চলে আসছিলো। জমি ভোগদখল করতে না পেরে ঝর্ণা বেগম চরগুদিঘাটা গ্রামের কালাই সরদারের ছেলে ওয়াহিদের নিকট বিক্রি করে দেন। কিছুদিন আগে ওই জমি ওয়াহিদ সরদারকে বুঝিয়ে দেন ঝর্ণা বেগম। এতে প্রতিপক্ষের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়।

ঝর্ণা বেগম আরও বলেন, শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে মিজান সিকদার ও তার লোকজন লাঠিসোটা ও রামদা দিয়ে ওয়াহিদ মাতুব্বরের বাড়িতে হামলা চালায়। হামলাকারীরা ওয়াহিদ মাতুব্বরের রান্নাঘর কুপিয়ে পিটিয়ে ভাঙচুর শুরু করলে ঝর্ণা বেগম বাধা দেন। পরে তাকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। এঘটনায় ঝর্ণা বেগম বাদী হয়ে শুক্রবার রাতেই মুলাদী থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। ওয়াহিদ মাতুব্বর জানান, আমি ঝর্ণা বেগমের কাছ থেকে জমি ক্রয় করে ঘর নির্মাণ করেছি। জমির পূর্ববর্তী মালিকের সাথে কারও বিরোধ ছিলো কিনা তা আমার জানা নাই। শুক্রবার বিকেলে হামলা চালিয়ে আমার সদস্য নির্মিত রান্নাঘর ভেঙে ফেলা হয়েছে। এসময় তার মেয়ের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয় হামলাকারীরা। এব্যাপারে মিজান সিকদার বলেন, কারও বাড়িতে হামলা কিংবা ভাঙচুর করা হয়নি। ওয়াহিদ মাতুব্বর আমাদের জমিতে রান্নাঘর নির্মাণ করেছে। তাকে রান্নাঘর সড়িয়ে নিতে বলায় ঝর্ণা বেগম আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছেন। মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস এম মাকসুদুর রহমান জানান, অভিযোগটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleবাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি রংপুর ইউনিটের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত
Next article‘ইউক্রেন আক্রমণে ১ লাখ ৭৫ হাজার সৈন্য প্রস্তুত রাশিয়ার’
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।