বাংলাদেশ প্রতিবেদক: আসামি রাজিবের পছন্দের বিয়াইনকে বিয়ে করায় গাজীপুরে অটোরিকশা চালক শরিফুল ইসলাম (২০) হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিবিআই। গত ১০ ডিসেম্বর তারিখে সরকারি গজারি বনের ভেতর থেকে শরিফুল ইসলামের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়। হত্যাকাণ্ডের এক সপ্তাহের মধ্যেই পিবিবিআই পুলিশ ঘটনার রহস্য উদঘাটন এবং ঘটনায় জড়িত ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে দু’জন ইতোমধ্যে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবাববন্দীতে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার এবং অন্যান্য আসামির নামও প্রকাশ করেছেন। আসামি রাজিবের পছন্দের বিয়াইনকে (বোনের ননদ) প্রেম করে বিবাহ করায় শরিফুলকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয় বলে জেলা পিবিআই পুলিশ শনিবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানায়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, নরসিংদী জেলার শিবপুর থানার হিজুলিয়া গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে শফিকুল ইসলাম ওরফে জামাই শফিকুল (২৫)। তিনি শ্রীপুর উপজেলার বনখড়িয়া গ্রামে শ্বশুর আব্দুল বাসেতের বাড়িতে ঘরজামাই থাকতেন। শ্রীপুর উপজেলার বনখড়িয়া গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে আফ্রিদি (১৯)। জয়দেবপুর থানার বাউপাড়ার নিয়ত আলীর ছেলে রাকিব হোসেন (২২)। জামালপুর জেলার ইসলামপুর থানার দর্জিপাড়ার হাসানের ছেলে রাজিব শেখ (২২)। তিনি বর্তমানে জয়দেবপুরের ভাওয়াল মির্জাপুর ইব্রাহিমের বাড়ির ভাড়াটিয়া। ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর থানার মিছিটেঙ্গী গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে জুয়েল রানা (২৭)। জেলার শ্রীপুর বনখড়িয়া উত্তর পাড়ার শাহাজ উদ্দিনের ছেলে হানিফ (২৭)।

পিবিআই গাজীপুর ইউনিট ইনচার্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান জানান, জয়দেবপুর থানাধীন ভাওয়াল মির্জাপুর গ্রামের মঞ্জুরুলের মেয়ে কারিমাকে শরিফুল গোপনে বিবাহ করেন। কারিমার পরিবার প্রথমে এ বিবাহ মেনে নেননি। অবশেষে গত ১০ ডিসেম্বর কারিমাকে অনুষ্ঠানিকভাবেই শরিফুলের হাতে তুলে দিতে রাজি হয় তার পরিবার। কিন্তু, কারিমার বড় ভাই খোরশেদ আলমের শ্যালক আসামি রাজিব আগে থেকেই কারিমাকে পছন্দ করতেন।

অপরদিকে কারিমার দু’বড় ভগ্নিপতি আসামি রাকিব হোসেন ও জুয়েল রানাও কারিমার বিয়ে মেনে নিতে পারেননি। ফলে, কারিমার এ দু’ভগ্নিপতি রাজিবের সাথে মিলে শরিফুলকে অর্থের বিনিময়ে হত্যার পরিকল্পনা নেয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী বিবাহের আনুষ্ঠানিকতার এক দিন আগে শরিফুলের ঘনিষ্ঠ বন্ধু আছমত ওরফে তারেকের মাধ্যমে শরিফুলকে ঘটনাস্থলে ডেকে নেয়া হয়। সেখানে সব বন্ধু মিলে সিগারেট ও গাজা সেবনের একপর্যায়ে শরিফুলকে চেপে ধরে গলা কেটে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ১০ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৮টায় বনখড়িয়া বাজার হতে রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট (চেকপোষ্ট-১) রাস্তার মাঝামাঝি জায়গা থেকে রাস্তার ডান দিকে প্রায় ৫০০ গজ ভেতরে সরকারি গজারি বনের ভেতর থেকে অটোরিকশা চালক শরিফুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই সেকান্দার একই দিন অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় মামলা (নং-১৮) রুজু করেন। পিবিআই ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বিপিএম (বার), পিপিএম এর তত্ত্বাবধান ও দিক নির্দেশনায় পিবিআই গাজীপুর ইউনিট ইনচার্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমানের সার্বিক সহযোগিতায় মামলাটি তদন্ত করেন জেলা পিবিআই পুলিশ পরিদর্শক মাহমুদুল হাসান।

Previous articleপাঁচবিবিতে প্রতীক পাওয়ার আগেই ইউপি সদস্য প্রার্থীর মৃত্যু
Next articleগাজীপুরের কালীগঞ্জে মিথ্যা মামলা মাথায় নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন মেম্বার প্রার্থী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।