তাবারক হোসেন আজাদ: যৌতুক না দেয়া ও নির্যাতন মামলায় কারাভোগ করায় অবশেষে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে হত্যার অভিয়োগ উঠেছে স্বামী সুমনের বিরুদ্ধে।

ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশনের যাত্রাবাড়ি থানার উত্তর রায়েরবাগ ২০/২৯.৬২ নং আবদুর রহমানের বাড়ির দুইতলা ভবনে। এঘটনায় ওইদিনই পুলিশ ঘাতক সুমনকে আটক করে এবং বুধবার আত্মহত্যা প্ররোরচনা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে মা’কে হারিয়ে অবুঝ দুই শিশুর কান্নায় বাতাস ভাড়ি হয়ে উঠেছে। ঘাতক সুমনের সঠিক বিচার দাবি করেছেন নিহতের পরিবার।

নিহত গৃহবধু সুমি লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার বামনী ইউনিয়নের সাইচা গ্রামের মৃত আশ্বাদ উল্লার মেয়ে এবং নিহতের ঘাতক স্বামী মোঃ সুমন ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানার গঙ্গাপুর (কাজলা পাড়া) গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে। তাদের সংসারে ৪ ও দেড় বছরের দুটি শিশু মেয়ে রয়েছে।।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকার যাত্রবাড়ি থানা পুলিশ স্বামীর ভাড়া বাসা থেকে ওই গৃহবধুর মৃতদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এঘটনায় বুধবার নিহতের মা জেবুন্নেছাকে বাদি করে আত্মহত্যা প্ররোরচনার মামলা দায়ের করিয়েছেন পুলিশ।

শুক্রবার সকালে-নিহতের বড় বোন স্বপ্না জানান, প্রায় ৫ বছর পূর্বে পারিবারিকভাবে সুমিকে বিয়ে করে সুমন। বিয়ের এক বছর দু’জনের সংসার ভালোই চলছিলো। তারপর থেকে ব্যবসার জন্য যৌতুক ৫ লক্ষ টাকা দিতে সুমিকে নানানভাবে চাপসৃষ্টিসহ শারিরীক নির্যাতন করে সুমন। গত বছরের ডিসেম্বরে তুচ্ছ ঘটনায় সুমিকে ঢাকার ভাড়া বাসায় দুইবার রাতের বেলায় মুখে বালিশ চেপে ও ফ্যানের সাথে গলায় রশি দিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায় সুমন। এঘটনায় সুমি তার পরিবারকে জানিয়ে যৌতক ও নির্যাতন আইনে সুমন ও মাকে আসামি করে লক্ষ্মীপুর আদালতে মামলা করেন।

এই মামলায় সুমন ১৫ দিন কারাভোগ করেন। পরে ভবিষ্যতে কখনো এধরনের কাজ করবে বলে ওয়াদাবদ্ধ হলে ও সন্তানদের দিকে তাকিয়ে ক্ষমা করে আবার সুমনের সাথে ঢাকার যাত্রাবাড়ি এলাকায় ভাড়া বাসায় সংসার শুরু করেন সুমি। কিন্তু বিধি বাম-আবার শুরু হলো সুমির প্রতি সুমনের শারিরীক ও মানুষিক নির্যাতন। অবশেষে সোমবার রাতে ও মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) তুচ্ছ ঘটনায় শিশু সন্তানদের সামনে সুমিকে নির্মমভাবে মারধর করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে হত্যা করে বাসা থেকে বের হয়ে যায় সুমন। অন্য কক্ষের আরেক নারী দুপুর ১টার সময় সুমির লাশ ঝুলতে দেখে বাড়িওলা ও পুলিশকে সংবাদ দেয়। পরে বাড়িওয়ালা ওই সময় সুমনকে কৌশলে ডেকে এনে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

স্বপ্না আরও অভিযোগ করেন, উভয়ের মিমাংসার পর ব্যবসার জন্য স্টাম্পের মাধ্যমে ৩ লক্ষ টাকা নেয় সুমন। কিছুদিন আগে আবারও দুই লক্ষ টাকা যৌতুক দাবি করে আসছিল সে। এতে সুমি রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে হত্যা করে লাশ ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রাখে।

ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা মোঃ জুয়েল যুগান্তরকে জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে যে, দুই সন্তানের জননী-গৃহবধু সুমি স্বামীর নির্যাতনে আত্মহত্যা করেছেন। এজন্য তার স্বামী সুমনকে আত্মহত্যা প্ররোরচনা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ঢাকার সেন্ট্রাল জেলে পাঠানো হয়েছে। তবে লাশের ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর জানা যাবে কিভাবে ওই গৃহবধুকে হত্যা করা হয়েছে।

Previous articleকেশবপুরে ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীদের বাড়িতে ডিবি পুলিশের হানা, আটক ৪
Next articleহঠাৎই প্রচণ্ড শব্দ, রাত ২টার পর থেকে রাত ৩টার মধ্যে সম্পূর্ণ লঞ্চটিতে আগুন ধরে যায়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।