জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলার আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে সহিংসতা বাড়ছে। নির্বাচনকে ঘিরে প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীর নির্বাচনী অফিস পুড়িয়ে দেয়া, ভাঙচুর, হামলা, মামলা, প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মারধর, ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদান, মোটরসাইকেলের মহড়া, নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করে সভা-সমাবেশ করার ঘটনা ঘটছে।

প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো স্থানে নির্বাচনী সহিংসতার ঘটনা ঘটছে। আর এসব ঘটনায় প্রার্থীসহ আহত হচ্ছেন তাদের কর্মী-সমর্থকরা এমনকি সাধারণ মানুষও। বেশ কয়েকজন প্রার্থী থানায় অভিযোগও দায়ের করেছেন। সেই সঙ্গে বেশ কয়েকজন প্রার্থী সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এসব কারণে অনেক এলাকায় ভোটারদের মধ্যে দেখা দিয়েছে আতঙ্ক। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, কেশবপুর উপজেলার সাতবাড়িয়া, মঙ্গলকোট, পাঁজিয়া ও গৌরিঘোনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া প্রচারণা থেকে শুরু করে হামলা, প্রচারণায় বাধা দেওয়া, প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীর পোস্টার ছিঁড়ে ফেলাসহ নানা অভিযোগ করছেন একে অপরের বিরুদ্ধে। এসব অভিযোগের সমাধান চেয়ে সংশ্লিষ্ট থানায় ও নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদনও করা হয়েছে। তারপরো থামছেনা সহিংসা কার্যক্রম ।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানিয়েছে, পঞ্চম ধাপে ৫ জানুয়ারি কেশবপুর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ৪৮ জন প্রার্থী। সংরক্ষিত আসনে ১২২ জন ও সদস্য পদে ৩৯৩ জন। নির্বাচনে এক লাখ ৮৫ হাজার ৯৬৫ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ৯৪ হাজার ২০৮ জন আর নারী ভোটার রয়েছেন ৯১ হাজার ৭৫৭ জন। শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী সাংবাদিক উত্তম ঘোষের (তাপসের মোড়স্থ) নির্বাচনী অফিসে হামলা চালিয়ে চেয়ার টেবিল ভাঙচুর এবং পোস্টার ছিড়ে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় নৌকা মার্কার কর্মী ও সমর্থকরা। এর আগের দিন বুধবার সন্ধ্যায় সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের ভালুকঘর বাজারে প্রচারণা চালানোর সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী উত্তম ঘোষের (আনারস) সমর্থকদের মারপিট করেছে নৌকা প্রতীকের সমর্থকেরা। এঘটনায় তিনি রিটানিং অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ করেছেন। কেশবপুরে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীদের মারধর ঃ তিনি বলেন, ‘নৌকা প্রতিকের প্রার্থী শামছুন্নাহার লিলির আপন ভাই মশিয়ার দফাদার ও তার সমর্থকেরা আমার কর্মী সমর্থকদের আমার পক্ষে কাজ না করার ব্যাপারে হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে এলাকায় আমার নির্বাচনী সভার চেয়ার টেবিল পাশের পুকুরে ফেলে দিয়েছে নৌকা প্রার্থীর সমর্থকেরা। এ ঘটনায় আমি থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি। পাঁজিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মকবুল হোসেন মুকুল (আনারস প্রতীক) উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগে বলেন, তার প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জসিম উদ্দীন ও তার পক্ষের সমর্থক টিটো, ইমরান হোসেন, রাজু আহমেদ, মাসুম দাইসহ ১০/১২ জন গত ২২ ডিসেম্বর রাতে নির্বাচন পরিচালনা ও প্রচার কাজে বাধা সৃষ্টি, মারপিট করে আমার সমর্থক মাসুদুজ্জামান, জাহিদ হাসান মিন্টু, আবু মুছা, শরিফুল ইসলাম ও মনিরুল ইসলামকে আহত করেছে। এছাড়া আমার সমর্থক সেলিমের বাড়ি ভাঙচুর ও শহিদুল ইসলামের বাড়িতে গিয়ে তার মটর সাইকেল ভাঙচুর করা হয়েছে। বিকেলে আমার প্রচার গাড়ীর চালক রাশিদুল ইসলামকে বেধড়ক মারপিট করে একটি মাইক সেট, দুইটি হর্ণ, ২টি ব্যাটারী ও মাইক সেটের ভেতর থাকা একটি মেমোরী কার্ড নিয়ে গেছে জসিম উদ্দীনের সমর্থকরা। শুক্রবার তিনি এবিষয়ে কেশবপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন।

২২ ডিসেম্বর রাতে মঙ্গলকোট ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল কাদের বিশ্বাসের সমর্থকেরা স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেনের আনারস প্রতীকের নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর করেছে। মনোয়ার হোসেন ২৩ ডিসেম্বর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। গৌরিঘোনা ইউনিয়নের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী হাবিবুর রহমানের কর্মীরা বুধবার রাতে প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী মাসুদুর রহমানের কর্মীদের মারপিট করে আহত করেছে। সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের ভালুকঘর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল করিম বলেন, “নির্বাচন শুরু হওয়ার পর থেকেই আমাদের এলাকার পরিবেশ বদলে গেছে। প্রায়ই চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মাঝে মারামারি লেগে যায়। বিষয়টি নিয়ে আমরা সাধারণ ভোটাররা বেশ চিন্তিত। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বজলুর রশিদ বলেন, ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি অভিযোগ আমরা পেয়েছি। সেগুলো তদন্ত করে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। নির্বাচনী পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেছি। সেখানে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে সকল পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে প্রার্থীদের কাছ থেকেও দায়িত্বশীল আচরণ প্রত্যাশা করা হয়েছে। আমরা আশা করছি নির্বাচনে সুষ্ঠু ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

Previous articleবেগমগঞ্জে ডাকাতির স্বর্ণালঙ্কারসহ ৯ ডাকাত গ্রেফতার
Next articleমুজিববর্ষের বানান ভুল: ক্ষমা চেয়েছে উদযাপন কমিটি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।