জয়নাল আবেদীন: “ গগায় সগাগ দেখিল সবার কথা শুনিল কিন্তু মুইতো কাউক দেইখপার পাইনো না ” এই কথাগুলো আক্ষেপ করে বললেন যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আফছার আলী। কারণ তিনি অন্ধ। তবে তাঁর এখন অন্ধের যষ্টি স্ত্রী নবিজন খাতুন।

বিজয়ের সূবর্ণ জয়ন্তী ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার রংপুর জেলা প্রশাসকের আয়োজনে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ও মহানগরের ইউনিট কমান্ড এর সহযোগিতায় রংপুর জেলার বীরমুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আরেক বীর মুক্তিযোদ্ধা বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি । সেই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসেছিলেন আফছার আলী। সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী নবিজন খাতুন। একসময় অভাবের তাড়নায় স্ত্রীকে সাথে নিয়ে আফছার আলীকে ভিক্ষাবৃত্তি করতে হয়েছিলো । আর স্ত্রীকেও করতে হয়েছিলো অন্যের বাড়িতে ঝি এর কাজ কিন্তু এখন আর কোন কিছুই করতে হয়না ।

প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর তাঁর ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটে । ভাতা পেতে শুরু করেন । দেখতে না পেলেও স্মৃতি শক্তি প্রখর বীরমুক্তিযোদ্ধা আফছার আলীর । ক্যামন আছেন ভাইজান বলতেই চিনে ফেলেন এ প্রতিনিধিকে । কথা বলতেই বলে ওঠেন তোমরা আছেন ভাল। এই বীর মুক্তিযোদ্ধা ৬ নং সেক্টরের খাদেমুল বাশারের অধীনে যুদ্ধ করেছেন। স্বাধীনতা যুদ্ধে বিজয় দিবসের প্রায় দেড় মাস মাস আগে কুড়িগ্রাম জেলার ভুরুঙ্গামারী উপজেলার নাকের গঞ্জে সম্মুখ যুদ্ধ শুরু হয় সকাল ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত। সেই যুদ্ধ ১ ঘন্টা ধরে চলে। সেই সমূখ যুদ্ধে পাকিস্তানী সেনাদের ছুড়ে মারা গ্রেনেডের গ্যাস এসে তার দুটি চোখ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সেই যুদ্ধে পাকিস্তান সেনারা পিছু হটে। অসুস্থ হয়ে পড়েন আফছার আলী । প্রথমে সাহেবগঞ্জ ও পরে ভারতের শিলিগুড়ি মেডিক্যাল হাসপাতালে প্রায় দুই মাস ভর্তি থেকে চিকিৎসা হয়েছে। চিকিৎসা চলার সময় একটি চোখ সম্পূর্ন নষ্ট হয়ে যায়। আর একটি চোখের চিকিৎসা চলতে থাকে। এর মধ্যে দেশ স্বাধীন হয়ে যায়। তিনি চলে আসেন দেশে। দেশে আসার পর কিছুদিনের মধ্যে তার অপর চোখটি নষ্ট হয়ে যায়। হয়ে যান অন্ধ। স্বাধীন বাংলাদেশে অন্ধ হয়ে সংসারের ঘানি টানতে হয় আফছারকে। শুরু করেন ভিক্ষাবৃত্তি । রংপুর কেরামতিয়া জামে মসজিদের সামনে ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করতে থাকেন। এভাবেই প্রায় ত্রিশ বছর ভিক্ষা বৃত্তি করে বেছেঁ ছিলেন আফসার আলী।

১৯৯৯ সালের দিকে চালু হয় মুক্তিযোদ্ধা ভাতা । তারপর তিনি ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে দেন। যদিও সেই সময় মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পরিমান কম ছিল । কিন্তু এখন বর্তমানে মুক্তযোদ্ধা ভাতা দ্বিগুন হওয়ায়। ভালোই সংসার চলছে তার । কষ্ঠ হলেও চার ছেলে মেয়েকে মানুষ করেছেন । আফছারের বাড়ী রংপুর নগরীর রামপুরা গ্রামে। দুই ছেলে দুই মেয়ের জনক আফসার আলী। বড় ছেলে রবিউল ইসলাম বিজিবিতে রাঙ্গামাটিতে কর্মরত । দ্বিতীয় মেয়ে আছিয়া খাতুন সরকারী একটি প্রতিষ্ঠানে ঝাড়–দার হিসেবে কর্মরত আছেন। তৃতীয় ছেল আশরাফুল ইসলাম বিজিবিতে চাকরি করলেও মানসিক সমস্যা দেখা দেয়ার সে চাকরী ছেড়ে দেয়। সবার ছোট মেয়ে ফারহানা আফরোজ রংপুর বেগম রোকেয়া কলেজে এইচএসসি পরীক্ষার্থী। অনুষ্ঠান শেষে সবাই যার যার মতো চলে গেলেন আর যুদ্ধ্হাত বীরমুক্তিুযোদ্ধা অন্ধ আফছার আলী স্ত্রীর সাথে কখনো কাঁধে আবার কখনো লাঠির সাহায্য নিয়ে হেটে হেটে বাড়ি রওনা দিলেন । আর বলতে লাগলেন সগায় সগাগ দেখিল ভাইওে মুইতো কউক দেখনুনা ।

Previous articleসুন্দরগঞ্জে মাদ্রাসা সুপারের ব্যাপক অনিয়ম
Next articleকটিয়াদীতে ৯ ইউপির ৭টিতেই হার আ’লীগ প্রার্থীদের, ২ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।