সাজ্জাদ হোসেন হৃদয়: প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কিশোরগঞ্জে চলছে পুকুর ভরাটের মহোৎসব। একে একে ভরাট করা হচ্ছে জেলা শহরের উন্মুক্ত জলাশয়। ব্যক্তি মালিকানাধিন পুকুর থেকে শুরু করে বাদ যাচ্ছে না পৌসভার নিজস্ব পুকুরও। এই ধারাবাহিকতায় এবার ভরাট হয়ে যাচ্ছে ঐতিহাসিক রথখলা ময়দান সংলগ্ন স্বর্গীয় বিরাজ মোহন রায়ের পুকুর।

কয়েক বছর পূর্বে একটি চক্র ভরাট আগ্রাসন চালিয়ে পুকুরের দক্ষিন ও উত্তরের অংশে প্রায় ৫০ শতাংশ ভরাট করে নেয়ার পরে সামাজিক ও পরিবেশবাদী সংগঠনের আন্দোলনের মুখে আগ্রাসন বন্ধ হয়। এসময় সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে পুকুরটি সংরক্ষণের জোর দাবী জানানো হয়। কিন্তু এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ। কয়েক বছর বিরতি দিয়ে আবারও শুরু হয়েছে পুকুরটি ভরাটের কাজ। তবে এবার তড়িঘড়ি নয়, এক/দুই ট্রাক্ট করে মাটি পুকুরে ফেলে খুব ধীর গতিতে এগিয়ে চলছে ভরাটের কাজ।

সরেজমিনে দেখা যায়, জেলা বিদ্যুৎ সরবরাহ অফিসের বিপরীতে নতুন করে ভরাটকৃত স্থানে কয়েকটি দোকান নির্মাণ করা হয়েছে। দোকানের পাশেই প্রতিদিন ট্রাকে করে মাটি ফেলা হচ্ছে পুকুরে। স্থানীয়রা জানান, দৈনিক এক/দুই ট্রাক মাটি ফেলে ধীর গতিতে এগিয়ে নিচ্ছে ভরাটের কাজ। ব্যক্তি মালিকানার অজুহাতে একটি প্রভাবশালী মহলের যোগসাজশে ভরাট চলমান রয়েছে। অথচ বড় ধরনের কোন অগ্নিকাণ্ডে পানি সংস্থানের বিষয়টি বিবেচনায় নেয়া হচ্ছে না। এই ভরাট চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া তো দূরের কথা, দেখারও যেন কেউ নেই। প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন-২০০০ অনুযায়ী, কোনো পুকুর, জলাশয়, নদী, খাল ইত্যাদি ভরাট করা বেআইনি। আইনের ৫ ধারা অনুযায়ী, প্রাকৃতিক জলাধার হিসেবে চিহ্নিত জায়গার শ্রেণি পরিবর্তন বা অন্য কোনোভাবে ব্যবহার, ভাড়া, ইজারা বা হস্তান্তর বেআইনি। কোনো ব্যক্তি এ বিধান লঙ্ঘন করলে আইনের ৮ ও ১২ ধারা অনুযায়ী পাঁচ বছরের কারাদণ্ড বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। একই সঙ্গে পরিবেশ সংরক্ষণ আইন (২০১০ সালে সংশোধিত) অনুযায়ী, যেকোনো ধরনের জলাশয় ভরাট করা নিষিদ্ধ।
এই আইন অনুযায়ী উন্মুক্ত প্রাকৃতিক জলাধার ভরাট তো দূরের ব্যাপার, মালিকানা হস্তান্তর করাও বেআইনি। কিন্তু এই পুকুর ব্যক্তি মালিকানার অজুহাতে ভরাট করা হচ্ছে কোন আইনের ভিত্তিতে? এমন প্রশ্ন রেখে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পুকুর ভরাটের বিরুদ্ধে অতি দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

একসময় কিশোরগঞ্জ শহরে পৌরসভার ১৮টিসহ পুকুর ছিল একশ’র বেশি।কিন্তু এক যুগের ব্যবধানে ৮০টির বেশি পুকুর ভরাট করে তৈরি করা হয়েছে স্থাপনা। এ বিষয়ে পরিবেশ রক্ষা মঞ্চ (পরম) এর প্রতিষ্ঠাতা ও বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ শরীফ আহমদ সাদী বলেন, শহরে পুকুর ভরাট করা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ ব্যাপারে পৌর মেয়র ও জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চাই। অন্যথায় পুকুর রক্ষার দাবীতে আন্দোলন ঘোষণা করা হবে।

এ ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে কিশোরগঞ্জ পৌরসভা মেয়র মাহমুদ পারভেজ বলেন, প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী উন্মুক্ত জলাশয় ভরাট করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

Previous articleজয়পুরহাটে মেধাবী শিক্ষার্থীরা পেল শিক্ষাবৃত্তি
Next articleএসআই সিনহাকে ব্যাপক সন্মানের সাথে বিদায় সংবর্ধনা জানালো মৌলভীবাজার পুলিশ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।