ফেরদৌস সিহানুক শান্ত: চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নের ছাপানিয়া এলাকায় সেতু নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে প্রায় ২৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত করা হয় একটি সেতু। তবে ২ বছর ধরে এ সেতুতে হয়নি যোগাযোগ সড়ক। ফলে জনসাধারণের চলাচলে কোন কাজে আসছে না সেতুটি। তাই ২ কিলোমিটার ঘুরে যাতায়াত করতে বাধ্য হচ্ছেন পথচারীরা।

জানা গেছে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে ২৫ লাখ ৯৩ হাজার ২৪৪ টাকা ব্যয়ে সদর উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের ছাপনিয়া এলাকার মোহনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন মহনন্দা সড়কের উপর নির্মিত করা হয় ৩২ মিটার দৈর্ঘ্যের একটি সেতু। কিন্তু দুই বছর পেরিয়ে গেলেও সেতুটিতে হয়নি যোগাযোগ সংযোগ সড়ক। ফলে এ সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে আছে।

বাবলাবোনা এলাকার শহিদুল নামে এক শিক্ষার্থী জানান, আমরা প্রায় দুই বছর থেকেই দেখছি সেতুটি অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে। তেমন কোন কাজে আসছে না। দুই পাশে অন্তত মাটি তুলে দিলে স্থানীয় জনসাধারণের চলাচলের উপযোগী হবে। দ্রুত চলাচলের স্বার্থে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এদিকে চাপানিয়া গ্রামের বাসিন্দা হামিদুল ইসলাম জানান, কালভার্টটি নির্মাণ করা হলেও নেই সংযোগ সড়ক। তাই সেতু থেকে আমাদের কোন উপকার হচ্ছে না। সেতু দিয়ে বাইসাইকেল ও মোটরসাইকেল কোন কিছু চলাচল করতে পারে না। সরকারের নিকট অনুরোধ দ্রুত সড়ক সংযোগ নির্মাণ করা হোক।

এ বিষযে জানতে সুন্দরপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমানের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি মুঠোফোন রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মৌদুদ আলম খাঁ জানান, কালভার্টের পাশে একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠবে ঠিক তখন সড়ক সংযোগ নির্মাণ করা হবে। এটি নির্মিত হলে সুবিধা পাবে কৃষকসহ এলাকাবাসী। কৃষি পণ্য উৎপাদনের পাশাপাশি কাজে আসবে কালভার্টটি।

Previous articleরংপুরে ৫০০ দরিদ্র পরিবারের মাঝে হিজড়া সংগঠন’র মাস্ক ও কম্বল বিতরণ
Next articleহাতিয়ায় আগ্নেয়াস্ত্রসহ আটক ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।