বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সর্বোত্তরের সীমান্ত উপজেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া। শীতপ্রবণ তেঁতুলিয়ার দর্জিপাড়া ও শারিয়াল জোত এলাকায় শোভা পাচ্ছে ভিনদেশী ‘টিউলিপ’ ফুলের ছোট ছোট বাগান। বাগানে ফুটেছে রকমারি আর বাহারি টিউলিপ ফুল। স্থানীয় ৮ জন নারী উদ্দ্যোক্তা তাদের ৫ শতক করে আবাদী জমিতে চাষ করেছেন এই ফুল। একটি বেসরকারি একটি সংস্থার (ইএসডিও) উদ্যোগে পরীক্ষামূলক এই ফুল চাষের সাফল্য দেখে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে টিউলিপ চাষের কথা ভাবছেন স্থানীয় কৃষকসহ সংশ্লিষ্টরা।

ভিনদেশী বাহারী ফুল টিউলিপ সাধারণত শীতপ্রধান এলাকায় চাষ হয়। নেদারল্যান্ড, কাশ্মীর, তুরস্কের মতো শীত প্রধান দেশে চাষ হয় ‘টিউলিপ’। তবে শীতপ্রবণ পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় একটি বেসরকারি সংস্থা (ইকো সোস্যাল ডেভলেভমেন্ট অর্গানাইজেশন (ইএসডিও) পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) সহযোগিতায় এখানে পরীক্ষামুলক টিউলিপ চাষ করা হয়েছে। এই ফুল চাষ হিমালয়ের কন্যা খ্যাত তেঁতুলিয়ার সম্ভাবনাময় পর্যটনে নতুন সংযোগ মনে করছেন স্থানীয় ফুলপেমীরা। এখানকার আবহাওয়া ও মাটি টিউলিপ চাষের উপযোগি হওয়ায় বাগানের ফলন এবং এর বাণিজ্যিক সম্ভাবনা বিবেচনায় স্থানীয় কৃষকরাও এই ফুল চাষে আগ্রহী হচ্ছেন।

ফুলচাষ প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, তেঁতুলিয়া উপজেলার সারিয়ালজোত ও দর্জিপাড়া গ্রামে চলতি বছরের ১ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে ফুলচাষ প্রকল্পের আওতায় ৬টি প্রজাতির ১২ কালারের টিউলিপ চাষ করা হয়েছে। টিউলিপ চাষাবাদে বাল্ব বা চারার দাম, শেড নেট, ফেন্সিং নেট, রাসায়নিক সার, জৈবসার, কীটনাশক ও শ্রমের মূল্য বাবদ মোট খরচ প্রায় ৩০ থেকে ৩২ লাখ টাকা। ৪০ হাজার টিউলিপ ফুল ১০০ টাকা হারে বিক্রি করতে পারলে ৪০ শতক জমি থেকে মাত্র দুই মাসে ৮ লাখ টাকা আয় করবেন চাষীরা।

স্থানীয় নারী উদ্যোক্তা আয়শা আক্তার বলেন, আমরা ৮ জন মিলে পাঁচ শতক করে ৪০ শতক জমিতে টিউলিপ রোপণ করেছি। শুরুতে দুশ্চিন্তায় ছিলাম। কিন্তু বাহারী ফুল ফোটায় এখন আমরা অভিভূত। প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এই ফুল দেখতে আসছেন। অনেকে কিনেও নিচ্ছেন।

তেঁতুলিয়ায় টিউলিপ ফুলচাষ প্রকল্পের সমন্বয়কারি আইনুল হক বলেন, স্থানীয় ৮ কৃষকের পাঁচ শতক করে ৪০ শতক জমিতে ৬ প্রজাতির ৪০ হাজার টিউলিপ ফুলের চারা রোপণ করা হয়েছে। লাল, সাদা, হলুদ, কমলা রংসহ ভিন্ন ভিন্ন রং এর টিউলিপ ফুলের চাষ বাণিজ্যিকভাবের করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে অর্থনৈতিক লাভবানের পাশাপাশি সম্ভাবনাময় তেঁতুলিয়ার পর্যটনেও নতুন মাত্রা যোগ হবে।

পরীক্ষামূলক টিউলিপ চাষের সাফল্য দেখে এই ফুল চাষ তেঁতুলিয়ার বিকশিত পর্যটনে নতুন সংযোজন উল্লেখ করে আগ্রহী কৃষকদের সব ধরনের প্রযুক্তিগত সহযোগিতা প্রদানের কথা জানিয়ে তেঁতুলিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘দেশে এখনও সেভাবে টিউলিপ ফুলের চাষ শুরু হয়নি। বড় পরিসরে টিউলিপ চাষ উত্তরবঙ্গের তেঁতুলিয়ায় প্রথম। ফুলটি চাষ করতে হলে তাপমাত্রা ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকা প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে উত্তরের এ উপজেলায় বরফের পর্বতযুগল হিমালয়-কাঞ্চনজঙ্ঘা কাছে থাকার কারণে এখানে দীর্ঘ সময় শীত থাকে। এরকম শীতপ্রবণ এলাকায় টিউলিপ ফুল চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে।’

Previous articleসুন্দরী হয়েও যে কারণে অবিবাহিত থেকে যাচ্ছেন গ্রামটির নারীরা
Next articleপাঁচবিবিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দেওয়ার অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।