আতিউর রাব্বী তিয়াস:  সমাজের অন্যান্য মানুষের মতো তিনিও স্বাভাবিক মানুষ। কিন্তু নারী বা পুরুষ তাদের পরিচয় নয়। সমাজের চোখে তিনি হিজড়া, তিনি তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ। রাষ্ট্র তাদের প্রায় সব সুযোগ-সুবিধা দিলেও সামাজিক প্রচলনে তাদের দেখা হয় আলাদাভাবে। ফলে জীবিকার তাগিদে বা নিজেদের অবস্থান জানান দিতে উপার্জনের জন্য তারা বেছে নেয় বিভিন্ন উপায়। কিন্তু লৈঙ্গিক পার্থক্য ছাড়া এই শ্রেণির মানুষ সুযোগ পেলে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে জানে- এমন উদাহরণও রয়েছে প্রচুর।

বিজ্ঞানের এই যুগে মহাকাশে অহরহ আমরা পাড়ি দিচ্ছি। অনেক কিছুই আজ আমাদের মুঠোয়। তারপরও প্রকৃতির অপার রহস্য আমাদের কাছে এখনো অজানা। প্রকৃতির কাছে আমরা বড়ই অসহায়। তারই শিকার রাজশাহীর মিস রতœা হিজড়া। কথা হয় তার সাথে। রাজশাহীর পদœানদীর পাড়ে ফুলবিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ্ধসঢ়; করি। আমার সাথে প্রিয়ারানী হিজড়া ফুল বিক্রি করে। মিস রতœা হিজড়া এক বছর ধরে বিভিন্ন রকমের কর্মে যুক্ত রয়েছেন। পরিবার ও সমাজের ধারণা পাল্টে দিয়ে সামনে এগিয়ে চলা হিজড়াদের একজন তিনি। তিনি বলছিলেন, ‘আমি কাজ করে খাই। ভিক্ষা করি না। মানুষের খারাপ কথা তোয়াক্কা করি না, চলতে শিখেছি নিজের পায়ে। কিছুদূর পর্যন্ত পড়েছি। ভালো চাকরি পেলে করতে চাই। এখন দিনের আলো হিজড়া সংঘ থেকে কিছুটা টাকা পাই,তবে কর্ম করে খেয়ে যে সম্মান পাই তার মূল্য কোটি টাকার বেশি। দিনে আমি এখন ৪০০-৫০০ টাকার ফুল বিক্রি করি।

বাসায় বড় বোন ও মাকে নিয়ে থাকি। যা উপার্জন করি তা দিয়ে সংসার চলে যায়। আমাদের অনেকে এখন কাজ করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে।সরকারী বা বেসরকারী ভাবে সহযোগীতা পেলে একটি দোকান করব। সমাজে সমঅধিকার নিয়ে বেঁচে থাকার অধিকার রয়েছে আমাদের। এমনটা অনেকেই বুঝতে চান না। কিছু লোকের তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের কথা জানিয়ে মনের কষ্ট-ক্ষোভ নিয়ে অশ্রুসিক্ত নয়নে বললেন তার জীবনের কথা। লোকে আমাদের অপয়া বলে, অপমান করে, কেউ কেউ কুৎসিত আচরণ করে। আড়চোখে তাকায়, ভেংচি কাটে, ঘেন্না করে, গালিও দেয়।’ বাস-ট্রেনে আসনে বসার জায়গা দেয় না কেউ। গায়ে হাত লাগলেই বিব্রত হয়। আমি তো কাজ করে খাই। ভিক্ষা করি না। মানুষের খারাপ কথা তোয়াক্কা করি না, চলতে শিখেছি নিজের পায়ে।’ অভিমানী কণ্ঠে মিস রতœা হিজড়া আরও বলেন,শত অপমান সহ্য করেও থামিয়ে রাখিনি জীবনের চাকা।

আগের দিনগুলো আমার ছিল অনেক কষ্টের। যেখানে যেতাম বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হতো। অপয়া দোষ দিয়ে অপমানসূচক কথা বলত অনেকে। মুখবুজে হজম করতাম। উঠে আসতাম নীরবে। তবে সময়ের সঙ্গে সংগ্রাম করে এখন স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে স্বাভাবিক জীবন পার করছি। কেউ আর তেমন অবজ্ঞার চোখে দেখে না। কাজ করে খাই- দাই। অনেক হিজড়ার দল আমাকে তাদের সঙ্গে ভেড়াতে চেয়েছিল। তারা চেয়েছিল তাদের মতো ভিক্ষাবৃত্তি ও অসাধু উপায়ে উপার্জনের জন্য। কিন্তু আমি রাজি হইনি। রাজশাহীর পদ্ধাপাড়ের বিভিন্ন জায়গায় এখন ফুল বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করি। দিনের আলো হিজড়া সংঘের সাধারন সম্পাদক মিস সাগরিকা বলেন,২০১৩ সালে হিজড়া জনগোষ্ঠী তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে স্বীকৃতি পায়। ২০১৪ সালের ২৬ জানুয়ারি হিজড়াদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দিয়ে গেজেট প্রকাশ করে সরকার। গেজেটে বলা হয়, ‘সরকার বাংলাদেশের হিজড়া জনগোষ্ঠীকে হিজড়া লিঙ্গ হিসাবে চিহ্নিত করিয়া স্বীকৃত প্রদান করিল।’ অভিযোগ করে বলেন, আমাদের কোনো সামাজিক স্বীকৃতি নেই। পারিবারিকভাবেও আমরা উপেক্ষিত। কোনো আশ্রয় নেই। আর সে কারণেই তাই আমরা দলগতভাবে আশ্রয় খোঁজি।

হিজড়াদের কর্মে প্রবেশের সুযোগ ও পরিবেশ তৈরি করে দিতে হবে। তাদের কর্মসংস্থানের জন্য অনুদান, সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের সরকারি ও নামকরা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরির ব্যবস্থার মাধ্যমে উদাহরণ তৈরি করতে হবে, যেন অন্যরাও তাদেরকে কাছে টেনে নিতে উদ্বুদ্ধ হয়। দিনের আলো হিজড়া সংঘের সহ-সভাপতি মিস প্রিয়া রানী জানান, ‘প্রকৃতিগতভাবে আমরা এমনভাবে জন্ম নিয়েছি। আমাদের কী দোষ। ‘সমাজে আমাদের সমঅধিকার নিয়ে বেঁচে থাকার অধিকার রয়েছে। অথচ কোনো সামাজিক স্বীকৃতি নেই আমাদের। পারিবারিকভাবেও আমরা অনেকে উপেক্ষিত। কোনো আশ্রয় নেই। আর সে কারণেই দলগতভাবে আশ্রয় খোঁজেন হিজড়ারা। তবে সমাজের সুযোগ সুবিধা আরও বাড়ালে সবাই কর্ম করে খেতে পারবো।’দিনের আল’ হিজড়া সংঘের সভাপতি মোহনা বলেন,আমাদের ভোটের অধিকার ও তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে আমাদের স্বীকৃতি দিলেও অধিকাংশ জনগণের দৃষ্টিভঙ্গির তেমন কোন পরিবর্তন এখনো লক্ষ্য করা যায় না। আমাদের মানুষ হিসেবে কোন অধিকার নেই। পরিবার ও স্বজন থেকে পৃথক হয়ে সমাজের মূল জনস্রোতের বাইরে সারাজীবন কাটাতে হয় আমাদের। তিনি আরো বলেন, কাগজ-কলমে কিছু অধিকার দেওয়া হলেও শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক ন্যায়বিচার থেকে অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছি আমরা। একমাত্র সামাজিক, শারিরিক, মানসিক এবং অর্থনৈতিক আত্মনির্ভরশীলতাই এনে দিতে পারে হিজড়াদের প্রকৃত মুক্তি।

বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব কবি রবিউল ইসলাম সোহেল মুঠোফোনে বলেন,পিছিয়ে পড়া এই মানুষগুলোকে এগিয়ে আনতে গেলে তাদের জন্য প্রয়োজন কর্মমুখী বা প্রয়োগিক শিক্ষা । অর্থাৎ যে শিক্ষা তাদের সমাজে চলতে এবং সমাজের প্রতি ইতিবাচক মনোভাব দেখাতে সক্ষম হবে। আত্মমর্যাদাবোধ মানুষকে উন্নত জীবন-যাপন করতে সাহায্য করে। অসহায় এই মানুষগুলোকে সম্মান করতে শিখলে, তাদের আত্মমর্যাদাবোধকে বাড়িয়ে দিলে তারা হয়ে উঠবে আত্মনির্ভরশীল। আর আমরা যে মানুষগুলোকে ঘৃণ্য, অস্পৃশ্য বা অবাঞ্ছিত ভাবছি তাদের মূল্যায়নের মাধ্যমে তাদের দিতে পারি স্বাভাবিক মানুষের মর্যাদা। ইসলামেও এটাই নির্দেশনা আছে।

Previous articleউখিয়ায় দেশীয় অস্ত্রসহ ৫ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী আটক
Next articleনোয়াখালীতে আগ্নেয়াস্ত্রসহ যুবক গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।