বাংলাদেশ প্রতিবেদক: স্ত্রীর করা নারী নির্যাতন মামলায় ঢাকা থেকে গ্রেফতার করা চুয়াডাঙ্গার দর্শনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো: শামসুদ্দোহাকে ফরিদপুরের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। স্ত্রীর অভিযোগ, শামসুদ্দোহ পরনারীতে আসক্ত, যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে প্রায়েই নির্যাতন করে থাকেন।

শুক্রবার বিকেলে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

গ্রেফতার এ পুলিশ পরিদর্শক গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার পশ্চিম গোপীনাথপুর গ্রামের নুরউদ্দিন আহমেদের ছেলে। ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামট এলাকার ফারুক আহমেদের মেয়ে ফারজানা আক্তার তুলির সাথে তার বিয়ে হয়। গত ৯ ফেব্রুয়ারি শামসুদ্দোহার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন তুলি।

তুলির অভিযোগ, মাদক ও পরনারীতে আসক্ত তার স্বামী শামসুদ্দোহা। বিয়ের পর যৌতুকের দাবিতে তার ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করেন। অসুস্থ বাবা-মায়ের চিকিৎসার কথা বলে তিনি ৪০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। কয়েক দফায় ১৫ লাখ টাকা তাকে দেয়া হয়। ২০২০ সালে তুলির ছেলে হয়।

এরপর গত বছর ১২ ডিসেম্বর ফরিদপুরে তাদের বাড়ি এসে ফের ১৫ লাখ টাকা যৌতুক চায়। টাকা দিতে অস্বীকার করায় তুলিকে পিটিয়ে আহত করে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

তুলি বলেন, বিপথগামী স্বামীকে সুস্থ-স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেও তাতে কাজ হয়নি।

ফরিদপুরের কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এম এ জলিল বলেন, শুক্রবার দুপুর সোয়া ২টার দিকে শামসুদ্দোহাকে থানা থেকে ফরিদপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে পাঠানো হয়। বিকেলে আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এদিকে শামসুদ্দোহাকে গ্রেফতারের পর তার পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার বাদী তুলিকে হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে তুলি অভিযোগ করেন।

Previous articleইউক্রেনে আক্রমণ: রাশিয়ার বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নিচ্ছে পশ্চিমা দেশগুলো
Next articleনারীর একাকী ভ্রমণে বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ নগরী মদিনা: জরিপ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।