অভিযুক্ত প্রতারক আহাম্মেদ জুয়েল (বামে) ও শিবিরকর্মী ইমরান হোসেন ফারাবি (ডানের ছবি)।

তাবারক হোসেন আজাদ: ১৩ বছর ধরে এলাকায় ষ্টুডিও’র ব্যবসা করতো এমরান হোসেন । এর পাশাপাশি কাজ নেন একটি এমএলএম কোম্পানিতে। সেখানকার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে গড়ে তোলেন “ড্রিম শপ লিমিটেড” নামের একটি কোম্পানি। এ গ্রুপের অধীনে ফারাবি নামের শিবিরকর্মী এলাকারই এক বন্ধুকে নিয়ে গড়ে তোলেন ২টি প্রতিষ্ঠান।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মেঘনা উপকূলীয় কৃষি সমৃদ্ধ ও জেলে পল্লী অঞ্চল হায়দরগঞ্জ বাজারে গড়ে উঠেছিলো “ড্রিম শপ লিঃ” নামে ই-কমার্স কোম্পানি নামের এমএলএম কোম্পানি। এক মাস আগে গ্রাহকদের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

উত্তর চরআবাবিল ইউপির হায়দরঞ্জবাজার এলাকায় ২০২০ সালের আগষ্টে শুরু হয় ড্রিম শপ লিমিটেডসহ দুইটি প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষকে দ্বিগুণ লাভের লোভ ও তারা ১০০০ টাকা জমা রাখলে প্রতিদিন ১০ টাকা করে লাভ পাবেন এবং এটাকা ফেরত না দিলে এই কথা বলে যে, টাকা বা পুঁজি না উঠলে চেক দিয়ে মামলা করবেন আমাদের বিরুদ্ধে এ বিশ্বাস দেখিয়ে প্রতারণা করে প্রায় ৪০০ গ্রাহকের কাছ থেকে প্রায় ৪ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় আহমেদ জুয়েল ও ইমরান হোসেন ফারাবি নামের ব্যবসায়ী।

জমা দেয়া টাকা ফেরতে বিভিন্ন সময় বিক্ষোভ করেছেন গ্রাহকরা, কিন্তু কার্যালয় বন্ধ করে আত্মগোপনে চলে গেছেন “ড্রিম শপ লিমিটেড” প্রতিষ্ঠাতা জুয়েল ও ফারাবি। তাদের অন্য কর্মীদেরও হদিস মিলছে না গত এক মাস। এমন বাস্তবতায় গচ্ছিত টাকা ফেরত পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত গ্রাহকরা। এনিয়ে প্রশাসনে হস্তক্ষেপ চাইছে তারা।

শুক্রবার (২৫ ফেব্রুয়ারী)-স্থানীয়রা জানায়, ১৩ বছর ধরে ষ্টুডিও’র ব্যবসা করে পরে এলাকার একটি কোম্পানিতে কাজ করতেন জুয়েল ও শিবিরকর্মী ফারাবি। সেখানকার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে গড়ে তোলেন ড্রিম শপ লিঃ গ্রুপের অধীনে গড়ে তোলেন দুইটি প্রতিষ্ঠান।

ইসলামি শরিয়াহ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্মভীরু ও কৃষক লোকজনের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ শুরু করে প্রতিষ্ঠানটির মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা। গ্রাহকদের বলা হয়, এক হাজার টাকার বিপরীতে প্রতিদিন ১০ টাকা মুনাফা দেয়া হবে। এভাবে ৪০০ জনের কাছ থেকে প্রায় ৪ কোটি টাকা নেয়া হয় বলে অভিযোগ ভুক্তভোগী দাবি করা গ্রাহকদের।

ড্রিম শপে টাকা জমা রাখা চরআবাবিল ইউপির ক্যাম্পেরহাট এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মোঃ রাসেদ ও আবদুল্লাহসহ কয়েকজনের সঙ্গে কথা হয় যুগান্তরের এ প্রতিবেদকের। তারা জানান, শুরুর পর কয়েক মাস ঠিকমতো গ্রাহকদের সঙ্গে লেনদেন স্বাভাবিক ছিল। গত প্রায় ৬ মাস ধরে গ্রাহকদের টাকা পরিশোধে টালবাহানা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। ধীরে ধীরে গ্রাহকের সঙ্গে যোগাযোগও বন্ধ করে দেয়। এখন গত একমাস ধরে হায়দরগঞ্জেবাজার অফিসের কার্যক্রম বন্ধ করে লাপাত্তা প্রতিষ্ঠানটির দুই মালিক ও কর্মচারীরা।

গ্রাহকদের দাবি, জুয়েল ও ফারাবি আত্মগোপনে দেশেই আছেন। পুলিশ-প্রশাসন চাইলেই অভিযান চালিয়ে তাকে ধরতে পারে। গচ্ছিত টাকা উদ্ধারে তারা প্রশাসনের সহযোগিতা চাইছেন।

এ বিষয়ে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা শিশির মজুমদার বলেন, ড্রিম শপ লিমিটেড গ্রুপের অধীনে একটি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স সমবায় অধিদপ্তর থেকে চেয়েছিলো। সেখানে গ্রাহকদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহে অনিয়ম ধরা পড়েছে। এক মাস আগে তাদের খোঁজে গেলে পাওয়া যায়নি।।

অভিযুক্ত ব্যবসায়ী জুয়েল ও শিবিরকর্মী ফারাবি আত্মগোপনে থাকায় এসব অভিযোগের বিষয়ে তাদের কারও সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

উল্লেখ্য-সম্প্রতি বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের মালিক ও শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। দেশের বিভিন্ন যায়গা থেকে ই-কমার্সের নামে প্রতারণায় দেশে এপর্যন্ত ৪০ জন গ্রেপ্তার হয়েছেন।

Previous articleচট্টগ্রামে পৌঁছেছে সেন্টমার্টিনে চলাচলকারী ‘বে ওয়ান’
Next articleপশ্চিমাদের দোষারোপ করছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।