অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে হাতকড়া নিয়ে আবদুল্লাহ (১৮) নামের কথিত এক পুলিশ সোর্সের ঘুরে বেড়ানোর ঘটনায় বাউফল থানার এক এএসআইকে ক্লোজড করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১ মার্চ) রাতে তাকে পটুয়াখালী জেলা পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয় বলে বাউফল থানা সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানায়, মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে উপজেলার দাশপাড়া গ্রামের মো. আবদুল্লাহ নামের এক যুবক হাতকড়া নিয়ে প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করতে থাকলে স্থানীয়রা তাকে আটক করে। স্থানীয়দের কাছে আবদুল্লাহ বাউফল থানার এএসআই শামীমের সোর্স বলে জানায় এবং একজন আসামীকে গ্রেপ্তার করতে এএসআই শামীম তাকে ওই হাতকরা দিয়েছেন বলে জানায়। এসময় অনেক লোকজন জড়ো হলে আবদুল্লাহর বোন পারভীন বেগম তাকে স্থানীয়দের হাত থেকে ছাড়িয়ে নিতে অনেক চেষ্টা তদবির করেন। ঘটনাটি স্থানীয়রা এএসআই শামীমকে জানালে এএসআই শামীম তাকে ছেড়ে দিতে বলেন। পরে স্থাসীয়রা ঝামেলা এড়াতে আবদুল্লাহকে ছেড়ে দেন। এরপর আবদুল্লাহ থানায় গিয়ে এএসআই শামীমের কাছে হাতকরা জমা দিয়ে বাড়ি চলে যান। এঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় তুমুল হৈচৈ পড়ে যায়।

বিষয়টি পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে পটুয়াখালী জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে এএসআই শামীমকে মঙ্গলবার রাতেই পটুয়াখালী পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়। তবে সোর্স আবদুল্লার বিরুদ্ধে এখনো কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। স্থানীয় বাবলু কাজী নামের একজন জানান, জনতার হাতে আটককৃত আবদুল্লাহ ওই এলাকায় বাউফল থানার এএসআই শামীমের সোর্স হিসাবে পরিচিত ছিল। তাকে প্রায়ই হাতকরা নিয়ে ঘুরতে দেখা যেত এবং তিনি গ্রামের নিরীহ লোকজনদের গ্রেপ্তারের ভয় দেখিয়ে অনৈতিক সুবিধা নিত। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল মামুন বলেন, পটুয়াখালী পুলিশ সুপার স্যারের নির্দেশে মঙ্গবার রাতেই এএসআই শামীকে পটুয়াখালী পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। তবে সংযুক্তের কারণ তিনি জানেননা ।

Previous articleরাশিয়া আমাদের নিশ্চিহ্ন করতে চায়: জেলেনস্কি
Next articleবাঁধের কাজে অনিয়ম-দুর্নীতি ও নির্ধারিত সময় শেষ না হওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।