বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে অবৈধভাবে বিদ্যালয়ের গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার মুলাদী সদর ইউনিয়নের কুতবপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৩ লক্ষাধিক টাকার গাছ কেটে নেওয়া হয়। বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক কাউকে না জানিয়ে গাছগুলো কেটে ফেলেছেন বলে জানান শিক্ষার্থী অভিভাবকরা।

গত তিনদিন ধরে বিদ্যালয়ের ৬টি গাছ কাটছেন তারা। তবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শহিদুল ইসলাম ও সভাপতি মো. ইসাহাক সিকদার অবৈধভাবে গাছ কাটার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। প্রধান শিক্ষক বেঞ্চ তৈরির জন্য গাছ কেটেছেন বলে দাবি করেছেন। এছাড়া বিদ্যালয়ের সভাপতি মসজিদের জন্য গাছ নিয়েছেন বলে জানান। জানা গেছে, কুতুবপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে লাগানো বড় গাছগুলো গত বৃহস্পতিবার কয়েকজন শ্রমিক কাটা শুরু করেন।

স্থানীয়রা ওই সময় তাদের কাছে জানতে চাইলে জানানো হয়, বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক গাছ কাটাচ্ছেন। ব্যবস্থাপনা কমিটির সিদ্ধান্ত ছাড়াই অনেক দিনের পুরোনো গাছগুলো কেটে ফেলায় অভিভাকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শহিদুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ের তৈরি জন্য একটি গাছ কাটা হয়েছে। বাকী ৫টি গাছ কেন কাটা হচ্ছে সেই বিষয়ে আমার কিছু জানা নাই। বিদ্যালয়ের সভাপতি মো. ইসাহাক সিকদার বলেন, বিদ্যালয় সংলগ্ন একটি মসজিদ রয়েছে। ওই গাছগুলো মসজিদের জমিতে রয়েছে। মসজিদ সংস্কারের জন্য গাছগুলো কাটা হয়েছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. সহিদুল ইসলাম জানান, ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত ছাড়া বিদ্যালয়ের গাছ কাটা অবৈধ। বিষয়টি তদন্ত করে সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূর মোহাম্মদ হোসাইনী, বিদ্যালয়ের গাছ কাটার বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Previous articleরুশ প্রতিষ্ঠান ‘এনটেক ল্যাব’ ও বাংলাদেশের রিবাট মেটাটেক এর মধ্যে অংশীদারিত্ব চুক্তি স্বাক্ষর
Next articleমুলাদীতে ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারের ৭ দিনেও মামলা করতে পারেনি পরিবার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।