আব্দুল লতিফ তালুকদার: বেওয়ারিশ কুকুরের কামড় বা আঁচড়ে জলাতঙ্ক রোগ নির্মূল ও জলাতঙ্ক রোগ প্রতিরোধে প্রতিষেধক টিকা (ভ্যাকসিনেশন) কার্যক্রম যৌথভাবে পরিচালনা করেছে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর ও উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। শুক্রবার (২২ এপ্রিল) থেকে কুকুরকে টিকা প্রদান কর্মসূচি শুরু হয়।

মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) পর্যন্ত দিনব্যাপি দেওয়া হয় টিকা। উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নসহ ১ টি পৌরসভার প্রতিটি এলাকার পালিত ও বেওয়ারিশ কুকুরকে টিকা দেওয়া হয়েছে। যার ফলে মানুষ নিরাপদ থাকবে বলে জানান উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। জলাতঙ্ক একটি জলাতঙ্ক ভাইরাসজনিত মারাত্মক সংক্রামক রোগ। সাধারণত লিসা ভাইরাস দ্বারা এ রোগ ছড়ায়। মাংসপেশি কিংবা জরায়ুতে  প্রবেশে ভাইরাস বংশ বৃদ্ধি করে থাকে। কুকুর মানুষকে কামড়ালে জলাতঙ্ক রোগ হয়। তাই জলাতঙ্ক প্রতিষেধক টিকা দিয়ে কুকুরকে নিরাপদ করে রাখা হচ্ছে।

উপজেলা সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও টিকা প্রদানের দায়িত্বপ্রাপ্ত পরামর্শক শেফালি শেফু বলেন, পাঁচদিন ব্যাপি এ কর্মসূচি। সার্ভেয়ার, টিকাদানকর্মী, লোকাল ডগ ক্যাচারকর্মী কাজ করছে। উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে কুকুরকে টিকার আওতায় আনা হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আব্দুস সোবহান ও প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. স্বপন চন্দ্র দেবনাথ বলেন, উপজেলায় ২৩টি টিম কাজ করছে। পাঁচ দিনের কর্মসূচিতে ১ হাজার ৬৫৪ কুকুরকে ভ্যাকসিনেশনের আওতায় আনা হয়েছে। এতে ৮৭ শতাংশ কুকুর টিকার আওতায় এসেছে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি দেড় মাস আগে উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের সাফলকুড়া, ভাদুরী চর, চরঅলোয়া গ্রামে একদিনে পাগলা কুকুরের কামড়ে শিশু ও নারীসহ ১২ জন আহত হয়। এদিকে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে কুকুরের ভ্যাকসিন না থাকায় অনেকেই ভোগান্তির শিকার হয়।

Previous articleসোনারগাঁওয়ের নয়াপুর নামক স্থানে ট্রাক বিকল, মহাসড়কে তীব্র যানজট
Next articleকলাপাড়াায় নতুন ঘরে ঈদ করবে ১২০ পরিবার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।