বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার যাত্রীদের কাছে দুর্ভোগের দিনও যেন এগিয়ে আসছে। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার যাত্রীদের রাজধানী ঢাকার সাথে যোগাযোগের অন্যতম নৌ-রুট মাদারীপুরের বাংলাবাজার ও মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া। এই নৌ-রুট হয়ে ঈদ মৌসুমে দৈনিক পারাপার হয় লক্ষাধিক মানুষ।

ঈদের আগে ঘরে ফেরা এবং ঈদ শেষে কর্মস্থলে যোগ দেয়া মানুষের ঢল নামে এই ঘাটে। অধিক যাত্রীদের চাপে এ সময় শৃঙ্খলা নষ্ট হয়ে যায়। স্পিডবোটসহ নৌযানে শুরু হয় বাড়তি ভাড়ার উৎসব। এসব নৌযানে ধারণক্ষমতার অধিক যাত্রী পারাপার করা হয়। সব মিলিয়ে এক দুর্ভোগের ঈদযাত্রায় পরিণত এই নৌ-রুট।

এদিকে গত এক বছর ধরে নৌ-রুটে ফেরি চলছে নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়ে। এক বছর ধরে কখনো দীর্ঘদিন ফেরি বন্ধ আবার কখনো কিছু সময় চলাচলসহ সীমিত সংখ্যক ফেরি শুধু দিনের বেলায় চলছে। বন্ধ রাখা হয়েছে ভারী যানবাহন চলাচল। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত মাত্র ৫-৬টি ফেরি দিয়ে নৌরুট সচল রাখাকে এক ধরনের প্রহসনও বলছেন এই রুট ব্যবহারকারীরা।

বাংলাবাজার লঞ্চঘাট সূত্র জানিয়েছে, ঈদের আগেই সবগুলো লঞ্চের রুট পারমিট, সার্ভে সনদসহ টুকটাক মেরামত সম্পন্ন করে নিয়েছে মালিক কর্তৃপক্ষ। ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

এদিকে নৌ-রুটে পারাপার হওয়া যাত্রীরা জানিয়েছেন, কোনো কোনো লঞ্চে জীবনরক্ষাকারী বয়া প্রয়োজনমতো থাকলেও অধিকাংশ লঞ্চেই তা পর্যাপ্ত নেই। তাছাড়া লাইফ জ্যাকেটও দেখা যায় না লঞ্চে। প্রতিটি লঞ্চে ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী পারাপার করা হয়ে থাকে। লঞ্চের ভেতরে, উপরে ও নিচে পর্যাপ্ত বয়া ও লাইফ জ্যাকেট রাখা উচিত অথচ তা নেই।

ফেরিঘাট সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে শুধু দিনের বেলায় বাংলাবাজার শিমুলিয়া নৌ-রুটে রো রো ফেরি সুফিয়া কামালসহ মোট ৫টি ফেরি চলাচল করছে। সকাল ৮টা থেকে ফেরি চলাচল শুরু হয়ে ৫টা পর্যন্ত চলে। এছাড়া মাঝিকান্দি-শিমুলিয়া রুটে চলে ২টি ফেরি। দুই নৌ-রুটে মোট ৫টি ফেরি চলাচল করছে।

গাড়ির চাপ বাড়লে বাংলাবাজার ঘাট এলাকায় যানজট বাড়ে। টার্মিনালে দীর্ঘক্ষণ সিরিয়ালে থাকতে হয় ফেরিতে ওঠার জন্য অপেক্ষমাণ যানবাহনগুলোকে। এই রুটের ফেরিতে এখনো ব্যক্তিগত যানবাহন, অ্যাম্বুলেন্স ও ছোট ছোট যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। বন্ধ আছে পণ্যবাহী ট্রাক ও যাত্রীবাহী বাস পারাপার।

লঞ্চে ঢাকা থেকে আসা যাত্রী মো: সেলিম মিয়া বলেন, পদ্মায় পানি বাড়ছে। সামান্য বাতাস হলেই ঢেউয়ের সৃষ্টি হয়। ঈদের ছুটিতে নৌ-রুটে যাত্রীদের ঢল নামে। এ সময় লঞ্চ ও স্পিডবোট কঠোর প্রশাসনিক নজরদারিতে রেখে চালানোর দাবি জানাচ্ছি। তাছাড়া নৌযানে পর্যাপ্ত সংখ্যক জীবনরক্ষাকারী সরঞ্জাম থাকা প্রয়োজন। সে তুলনায় কিছুই দেখা যায় না।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ ( বিআইডব্লিউটিএ) বাংলাবাজার লঞ্চঘাট সূত্রে জানা গেছে, নৌ-রুটে বর্তমানে ৮৭টি লঞ্চ রয়েছে। পাশাপাশি শতাধিক স্পিডবোট চলছে। লঞ্চগুলোর মধ্যে বড় লঞ্চের সংখ্যাই বেশি। যা দুই শতাধিক যাত্রী ধারণক্ষমতা সম্পন্ন। এছাড়া ১৩৫ ও দেড় শ’ যাত্রী বহনে সক্ষম লঞ্চ রয়েছে ১০ থেকে ১২টি। যেসব লঞ্চে ছোটখাটো ত্রুটি ছিল তা ইতোমধ্যেই মেরামত করা হয়েছে।

তাছাড়া ঈদের ভিড় হওয়ার আগেই লঞ্চগুলো আরো একবার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হবে। লঞ্চে বর্তমানে ৪৫ টাকা করে ভাড়া নেয়া হচ্ছে। ঈদে ভাড়া বাড়ানোর কোনো সম্ভাবনা নেই। অন্যদিকে নৌ-রুটের উভয় ঘাট মিলিয়ে শতাধিক স্পিডবোট রয়েছে। ধারণক্ষমতা অনুযায়ী নৌযানগুলো যাত্রী পারাপার করছে।

এ প্রসঙ্গে বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাটের ব্যবস্থাপক সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, বর্তমানে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার-মাঝিকান্দি নৌ-রুটে ৭টি ফেরি চলাচল করছে। তবে ঈদুল ফিতরের বাড়তি চাপ কমাতে আমাদের ফেরির বহরে সংযোজন করা হবে আরো ৩টি ফেরি। মোট ১০টি ফেরি চলাচল করবে এ নৌ-রুটগুলোতে। ফেরি চলাচল ২৪ ঘণ্টা চালু রাখার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করা হচ্ছে।

বাংলাবাজার লঞ্চ ঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার উজ্জামান বলেন, আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আমাদের বাংলাবাজার ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী ঘাট থেকে সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। আমাদের এখানে প্রতিটি লঞ্চের ফিটনেস, মাস্টার ড্রাইভার, নাবিক, বয়া, অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র ঠিক রেখেই চলাচল করবে প্রতিটি লঞ্চ। ধারণ ক্ষমতার বাহিরে একটি যাত্রীও ওঠানো হবে না কোনো লঞ্চে।

Previous articleকালিহাতীতে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের ঘর পেলেন ১৮ ভূমিহীন পরিবার
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ভাতাভোগীদের কাছ থেকে অর্থ আদায় অভিযোগ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।