স্বপন কুমার কুন্ডু: রাশিয়া ও বাংলাদেশের পক্ষ হতে রাষ্ট্রিয় উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি যৌথ ভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন। বুধবার এবং বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুর পর্যন্ত প্রকল্পের প্রত্যেকটি অংশ পরিদর্শন ছাড়াও উভয় প্রতিনিধিদল একাধিক পর্যালোচনা মূলক বৈঠক করেন। প্রতিনিধিদলে বাংলাদেশের পক্ষে নের্তৃত্ব দেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান এবং রাশিয়ার রাষ্ট্রিয় পারমাণবিক সংস্থা রসাটমের নিউক্লিয়ার এনার্জী বিষয়ক ফার্স্ট ডেপুটি জেনারেল ডিরেক্টর এবং এএসই’র (এতমোস্ত্রয়এক্সপোর্ট) প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লকশিন।

রুশ ফেডারেল সুপারভিশন সার্ভিসের ডেপুটি চেয়ারম্যান (পরিবেশ, শিল্প ও পরমাণু বিষয়ক ) আলেক্সি ফেরাপন্তভ, রসএনার্গোএটম-এর মহাপরিচালক আন্দ্রেই পেত্রোভ, এতমোস্ত্রয়এক্সপোর্টের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলেক্সজেন্ডার করচাগিন, রসএনার্গোএটম-এর ফাস্ট ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল আলেক্সি ঝুনকোভ, এতমোস্ত্রয়এক্সপোর্টের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও রূপপুরের রুশ প্রকল্প পরিচালক আলেক্সি দেইরি এবং বাংলাদেশের পক্ষে প্রকল্পের পরামর্শক ড. শহীদ হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আলী হোসেন, পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান আজিজুল হক, কমিশনের সদস্য প্রকৌশলী নাসির আহমেদ, ড. জাকারিয়া হোসেন, প্রকল্প পরিচালক ড, শৌকত আকবর, সাইট ডিরেক্টর প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলামসহ উভয় দেশের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা পর্যবেক্ষণ ও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

পর্যবেক্ষণ ও বৈঠক শেষে বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) দুপুরে মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান জানান, সিডিউল অনুযায়ী কাজের অগ্রগতিতে আমরা উভয়পক্ষই সন্তুষ্ঠ। ২০২৩ সালে প্রথম ইউনিটের কমিশনিং শুরুর বিষয়ে আমরা উভয়পক্ষই একমত পোষণ করেছি।

প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর বলেন, প্রথম ইউনিটের কমিশনিং শুরুর জন্য প্রকল্পের জেনারেল কোর্ডিনেশন কমিটি (জেসিসি) কর্তৃক নিয়মিত কাজের অগ্রগতি মনিটরিং এবং আলোচনা হয়েছে। ‘ষ্টার্ট অব এ্যাডজাস্টমেন্ট’ বা প্রি-কমিশনিং কাজ শুরু হবে। ষ্টার্ট অব এ্যাডজাস্টমেন্ট হলো রিয়্যক্টর বিল্ডিংয়ে স্থাপনকৃত প্রত্যেকটি কম্পোনেন্ট (যন্ত্রপাতি) আলাদাভাবে পরীক্ষা করা। এই কাজে সময় লাগে প্রায় এক বছর। শুধু কন্সট্রাকশন শেষ হলেই যে বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু বা কমিশনিং অর্থাৎ জ্বালানী লোডিং করা যায় না। কন্সট্রাকশন শেষ হওয়ার পর নিউক্লিয়ার প্লান্টের কমিশনিং শুরু হবে। আর কমিশনিং কাজের সঙ্গে অনেকগুলো কম্পোমেন্ট জড়িত। কমিশনিং এর তিনটি ষ্টেজ রয়েছে। মূল কমিশনিং হবে যখন জ্বালানী লোডিংয়ের পর রিয়্যাকশন শুরু হবে। ২০২৩ সালে কমিশনিং অর্থাৎ নিউক্লিয়ার ফুয়েল (জ্বালানী) লোডিং করা যাবে বলে জানান তিনি।

Previous articleতেঁতুলতলা মাঠে থানা ভবন হচ্ছে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
Next articleচলন্ত ট্রেন থেকে ৩ তরুণীর ঝাঁপ, দুর্ঘটনা থেকে বাঁচিয়ে পুরস্কৃত আলতাফ শেখ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।