অতুল পাল: বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব হাওলাদারকে গাঁধা বলে ফেসবুকে ষ্ট্যাটাস দিয়েছেন কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কেশবপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও কেশবপুর ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. সালেহ উদ্দিন পিকু।

সম্প্রতি উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব হাওলাদারের একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে অধ্যক্ষ পিকু ওই ষ্ট্যাটাস দেন। ষ্ট্যাটাসটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি নিয়ে এখন বাউফলে তোলপাড় চলছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বেশ কিছুদিন থেকে বাউফল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জাতীয় সংসদের সরকারি প্রতিষ্ঠান কমিটির সভাপতি সাবেক চিফ হুইপ আসম ফিরোজ এমপির সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোতালেব হাওলাদারের বিরোধ চলে আসছে। দলীয় ও জাতীয় একাধিক কর্মসূচী উপজেলা আওয়ামী লীগের ব্যানারে আসম ফিরোজ আয়োজন করলে পাল্টা আরেকটি কর্মসূচীর আয়োজন করেছেন মোতালেব হাওলাদার। সভাপতি ও সম্পাদকের মধ্যে এমন লড়াইয়ের বিষয়টি নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীরা বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন। কেবল তাই নয় বিভিন্ন কর্মসূচীতে, আবদুল মোতালেব হাওলাদারের দেয়া বক্তব্যে আ স ম ফিরোজকে নিয়ে বিষোদগার করছেন।

২৭ রমজান উপজেলা আওয়ামী লীগের ব্যানারে আবদুল মোতালেব হাওলাদারের আয়োজিত এক ইফতার পার্টিতে আ স ম ফিরোজকে নিয়ে বাজে মন্তব্য করেন আবদুল মোতালেব হাওলাদার। ওই মন্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যক্ষ সালেহ উদ্দিন পিকু গত বুধবার (৪ মে) তার ফেসবুক পেজে মোতালেব হাওলাদারকে নিয়ে একটি ষ্ট্যাটাস দেন। ওই ষ্ট্যাটাসে আবদুল মোতালেব হাওলাদারকে উদ্দেশ্যে করে বলা হয়, “একটি সাজানো বাগানকে নষ্ট করতে একটি গাঁধাই যথেষ্ট, আর সেই গাঁধা হলেন আপনি” (মোতালেব হাওলাদার)। অধ্যক্ষ পিকুর এই ষ্ট্যাটাসের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় শুরু হয়। এবিষয়ে উপজেলা ছাত্র লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সামসুল কবির নিশাত বলেন, আজকের আবদুল মোতালেব হাওলাদার আমাদের নেতা আসম ফিরোজের হাতেই গড়া। দল ক্ষমতায় আসার পর নিজের আখের গুঁছিয়ে তিনি এখন নেতার সঙ্গে বেঈমানি শুরু করেছেন। অর্থের মোহে তিনি পাগল হয়ে গেছেন। দলের আদর্শ ত্যাগ করে নেতার বিরুদ্ধে মনগড়া কল্পকাহিনী প্রচার করছেন। এটা কোন ভাবেই মেনে নেবে না বাউফলের জনগন। বিরোধ নিয়ে কোন ধরণের বক্তব্য না দিতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিও একাধিকবার আবদুল মোতালেব হাওলাদারকে নিষেধ করেছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহিম ফারুক বলেন, ষড়যন্ত্রকারীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে দলের ক্ষতি করতে চাইছেন মোতালেব হাওলাদার। সময় থাকতে ভূল পথ থেকে ফিরে আসার আহবান জানিয়ে তাকে দলের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করার আহবান জানান ইব্রাহিম ফারুক। অধ্যক্ষ সালেহ উদ্দিন পিকু বলেন, দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে আ স ম ফিরোজ দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে যে বাগান সাজিয়েছেন সেই বাগান নষ্ট করার জন্য তৎপরতা শুরু করেছেন আবদুল মোতালেব হাওলাদার। এটা আমরা কোন ভাবেই মেনে নেব না। এ প্রসঙ্গে বাউফল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মোতালেব হাওলাদার বলেন, বিগত দিনে উপজেলা আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন ত্যাগী নেতা-কর্মীকে আ স ম ফিরোজ অবমূল্যায়ণ করেছেন। এখন আমাকেও তিনি দল থেকে বিতাড়িত করতে চান। এটা হতে দেব না।

Previous articleহাজী সেলিম আইন মেনেই বিদেশ গেছেন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
Next articleঅটোর ভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্বে সিরাজদিখানে ৫ টাকার জন্য প্রাণ গেল যাত্রীর
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।