জয়নাল আবেদীন: স্বজনদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগী করতে রংপুরে এসে শেষে রাজধানীতে কর্মস্থল সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফিরতে ট্রেন এবং বাসের টিকিট না পাওয়ায় দারুন ভোগান্তিতে পড়েছে যাত্রীরা। ঢাকা গামী টিকিটের জন্য যাত্রীরা হন্যে হয়ে ঘুরছেন রেলওয়ে ষ্টেশনের টিকেট কাউন্টার আর অন লাইনে এবং বাস কাউন্টারে।

ট্রেন এবং বাস কাউন্টারগুলোর টিকেট মাষ্টাররা বলছেন টিকিট নেই। টিকেটের অভাবে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কর্মস্থলে ফেরা নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে পড়েছেন বাস যাত্রীরা। রংপুর রেল ষ্টেশনের টিকেট কাউন্টাওে বুধবার সন্ধায় টিকেট করতে এসে সরকারী কর্মকর্তা মাহবুবার রহমান শুনলেন রোববার পর্যন্ত টিকেট নেই। অন লাইনেও পাচ্ছেননা। তবে প্লাটফরমে ঘুরে দেখছেন বিভিন্ন তারিখের টিকেট পাওয়া যাচ্ছে দুই-তিনগুন বেশী দামে। হতবাক হয়ে তিনি এসব নৈরাজ্য অবলোকন করছেন। এর মধ্যে যাদের জরুরী প্রয়োজন তারা বাধ্য হয়েই কালোবাজারীদের কাছে বশ্যতা শিকার করে বেশী দামে টিকেট নিছেন। এসব দেকার যেন কেউ নেই। ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষ এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এসব ক্ষেত্রে স্বপ্রনোদিত কোন ভুমিকা রাখছেন না।

রংপুর মহানগরীর কামাড়পাড়া এলাকায় ঢাকাগামী কোচ ষ্টান্ডে এনা পরিবহন কাউন্টারের টিকেট বিক্রেতা কালাম হেসেন জানান, গত ঈদুল ফিতরের আগে রংপুর থেকে ঢাকা এবং ঈদের পর ঢাকা থেকে রংপুরের তেমন একটা যাত্রী থাকে না বলে লোকসান গুনতে হয়েছে বাস মালিকদের। এ অবস্থায় কাটিয়ে উঠে বাস মালিকরা ঈদের পরবর্তী সাত দিনের টিকিট অগ্রিম বিক্রি করেছেন। বর্তমানে ঢাকাগামী যাত্রী বাড়লেও পরিবহন গুলো গাড়ির সংখ্যা বাড়ায়নি। আগামী বুধবার পর্যন্ত টিকিট বিক্রি হয়েগেছে অধিকাংশ বাস কাউন্টারগুলো থেকে যাত্রীদের এ কথা জানানো হয়। ঢাকাগামী যাত্রী এনামুল হক সহ শুক্রবার বিকেলে নগরীর কামারপাড়া বাষ্ট্যান্ডে টিকিটের জন্য আসা যাত্রীরা অভিযোগ করেন, বুধবার পর্যন্ত কোনো বাসেই ঢাকার টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না। ঢাকার বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নগরীর সিও বাজার এলাকার সায়মা সালাম শুক্রবারের টিকেট কেটেছেন। নির্দিষ্ট সময় এসে দেখেন ঐ সিটে অন্য যাত্রী বসে আছে। দাম বেশী পাওয়ায় অন্য যাত্রীর কাছে জালিয়াতির মাধ্যমে টিকেট বিক্রি করা হয়েছে।

রংপুর নগরীর তাজহাট এলাকার বাসিন্দা আতিয়ার রহমান জানান, স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে ঢাকা যাবেন এজন্য চারটি টিকিটের দরকার। সকাল থেকে নানাভাবে চেষ্টা করছেন তিনি কিন্তু কোথাও মিলছে না টিকিট। টিকিটের বিড়ম্বনার জন্য ঈদ করতেই রংপুরে আসতে মন চাচ্ছিল না। এসআর ট্রাভেলস কাউন্টারের একজন কর্মচারী জানান, ঈদের আগে যাঁরা টাকা দিয়ে বুকিং দিয়েছিলেন, তাঁরা টিকিট সংগ্রহ করে নিয়ে যাচ্ছেন। নতুন করে টিকিট পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। নগরের কামালকাছনা এলাকার বাসিন্দা রাশেদ হেসেন জানান, পরিচিতজনের মাধ্যমে ভিন্ন পথে প্রতি টিকিটে ৪/৫’শ করে টাকা বেশি দিলে টিকিট পাওয়া যায়। টিকেটের জন্য চেষ্টা করছি। রংপুরের হানিফ পরিবহনের ম্যানেজার হোসেন আলী শুক্রবার সন্ধায় বলেন, দিন দিন মানুষ বাড়ছে। কিন্তু সে অনুপাতে বাস বাড়েনি। যাত্রী সংখ্যা অনুযায়ী গাড়িও বাড়ানো হয়েছে। এরপরও চাপ কমছে না। এর কারণ এবার করোনা মহামারির পর অনেক বেশি মানুষ ঈদ করতে গ্রামে এসেছেন। এ কারনে ঢাকায় ফিরে যেতে টিকিটের চাহিদা বেশি। কালোবাজারিরা কীভাবে টিকিট পাচ্ছে জানতে চাইলে এর সদুত্তর না দিয়ে তিনি জানান, এখন যারা কাউন্টার থেকে টিকিট পাচ্ছেন তাদের বেশির ভাগই পরিচিত লোকজন। টিকিটের এই পরিকল্পিত সংকট ঈদের আর কয়েকদিন পর্যন্ত থাকবে। আগামী ১০ মের পর টিকিট স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

বিআরটিসির রংপুর ডিপো সূত্র জানা গেছে, ঈদের ছুটিতে রংপুরে দুই শতাধিক দোতলা ও শতাধিক একতলা বিআরটিসি বাস রিজার্ভ করে কয়েক হাজার পোশাকশ্রমিক এসেছেন। এসব বাস ঢাকার বিভিন্ন রুটে চলাচল করে। ঈদের ছুটি শেষে বাসগুলো শ্রমিকদের নিয়ে পর্যায়ক্রমে গস্তব্যে ফিরতে শুরু করেছে। রংপুর জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ জানান, কামারপাড়া ঢাকা কোচ স্ট্যান্ড থেকে বিভিন্ন কোম্পানির ১৭০টি গাড়ি যায়। টিকিট নিয়ে কালোবাজারির কোনো সুযোগ নেই। আগ্রিম টিকিট শেষ হওয়ার কারণে কোনো কোনো কাউন্টারে টিকিট নাও থাকতে পারে। তবে ঈদের সময় অনেক গাড়ি অনিয়ম করে। আমরা প্রশাসনকে অনুরোধ করব, যেন কেউ বেশি ভাড়া নিতে না পারে।

Previous articleবিনা টিকেটে ট্রেনে ভ্রমণ করছিলেন রেলমন্ত্রীর ২ শ্যালকসহ ৩ জন
Next articleতাহিরপুরে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে আ’লীগ নেতার ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।