অতুল পাল: নাদুস-নুদুস কালো রংয়ের উপর সাদা রংয়ের দাগে মোড়া চিকচিকে পুরো দেহটা। বাঁকানো শিং আর লম্বা কান। এমন বিশাল দেহের খাঁসি ছাগলটির নাম দেয়া হয়েছে রাজা। কোরবানির হাটে মো. নুরুল হক নামের এক খামারি রাজাকে বিক্রি করতে নিয়ে এসেছেন। রাজার দাম হাঁকা হয় ৮০ হাজার টাকা।

গতকাল সোমবার (৪জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দক্ষিণাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী বাউফলের কালাইয়া পশু হাটে গিয়ে এমন দৃশ্য দেখা গেছে। রাজার মালিক মো. নুরুল হক জানান, রাজা আমার খামারের খাঁসি। মানব দেহের জন্য ক্ষতিকর কোন এন্টিবায়োটিক ছাড়াই স্বাভাবিক খাদ্য খাওয়ানো হয় রাজাকে। ৮০ হাজার টাকা দাম চাওয়া হয়েছে। তবে ক্রেতার দেখা মিলছে না।

ছাগল হাট ঘুরে দেখা যায়, হাটে অনেক ছাগল এসেছে। তবে বেচাবিক্রি তুলনামুলক কম। দামও কম। দেশি জাতের মাঝারি খাঁসি বিক্রি হচ্ছে ৯ থেকে ১০ হাজার টাকায়। বড় খাঁসি বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকায়। বড় খাঁসির চাহিদা খুব কম। মো. খোরশেদ নামের এক বিক্রেতা জানান, ৪টা খাঁসি বিক্রি করতে আনা হয়েছে। একটি মাত্র বিক্রি করা হয়েছে। হাটে ক্রেতা খুবই কম। বেচাকেনার হালচাল দেখে গৃহস্থ ও বেপারীরা লোকসানের মুখে পড়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

কালাইয়া ছাগল হাটের ইজারাদার মো. মাসুম বিল্লাহ শাহিন বলেন, কালাইয়া হাট দক্ষিণাঞ্চলের সর্ববৃহৎ পশু হাট। দুর দুরান্ত থেকে মানুষ ছাগল কেনা-বেচা করতে এই হাটে আসেন। তাদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে হাট কর্তৃপক্ষ পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিয়েছে।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাজুর বিরুদ্ধে নারীর সাথে দূর্ব্যবহারের অভিযোগ
Next articleসোনারগাঁওয়ে মেঘনা ইকোনমিক জোনে আগুন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।