ভূঞাপুর উপজেলার গোবিন্দাসী গরুর হাট থেকে রবিবার, ছবি তুলেছেন লতিফ তালুকদার

আব্দুল লতিফ তালুকদার: ঈদ ঘনিয়ে আসলেও গরুর দাম চড়া ও নানা কারনে এখনো জমে উঠেনি টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী গরুর হাট। হাটে পর্যাপ্ত গরু উঠলেও এক সময়ের দেশের বৃহত্তম এই হাটটি এখন ক্রেতাশূন্য প্রায়।

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে হাট কর্তৃপক্ষ ক্রেতা ও ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিলেও হাটে পাইকার ও ক্রেতা কম আসায় চিন্তায় গরু খামারি ও মৌসুমী ব্যবসায়ীরা। ঈদকে সামনে রেখে হাসেম আলী নামে এক খামারি দুই বছর ধরে অস্ট্রেলিয়ান ফ্রিজিয়ান ও দেশী জাতের দুটি ষাঁড় পুষে বড় করেছেন। আশা করেছিলেন, গরু দুটি বিক্রি করে লাভের মুখ দেখবেন। কিন্তু হাটে নেওয়ার পর দাম শুনে হতাশ তিনি। ২০ মণ ওজনের গরুটি তিনি ৮ লাখ টাকা দাম হাকিয়েছেন। ক্রেতারা দাম করছেন মাত্র ৪ লাখ টাকা।

খামারি শাহাদৎ হোসেন বাবু জানান, এ হাটে বড় গরুর ক্রেতা কম। একটি গরুও বিক্রি করতে পারিনি। দাম খুব কম। লোকসান হবে মনে হয়। এ হাটে দেশি-বিদেশি ছোট বড় সকল জাতের গরু পাওয়া যায়। তবে রবিবার হাটে বিশেষ করে বড় আকারের গরু বিক্রি না হওয়ায় খামারিরা হাট থেকে গরু ফেরত নিয়ে যাচ্ছেন। বেশিরভাগ ক্রেতাই গরু দেখছেন, দরদাম করছেন কিন্তু দাম চড়া হওয়ায় কিনছেন কম। ফলে খামারিরা হতাশায় পড়েছেন। ক্রেতারা গরুর দাম বেশির অভিযোগ করলেও বিক্রেতারা তা মানতে নারাজ। তারা বলছেন পশু খাদ্যের দাম বাড়লেও গরুর দাম সেভাবে বাড়েনি। সপ্তাহে রবিবার ও বৃহস্পতিবার হাট বসে। হাটটি যমুনার তীরবর্তী হওয়ায় সিরাজগঞ্জসহ পর্শ্চিমাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলার গরু নদী পথে কম খরচে আনতে পারে। এছাড়া সড়ক পথেও দূর-দূরান্ত থেকে ট্রাক, পিকআপ, ভটভটিতে শত শত গরু আসছে হাটে। তবে ছোট ও মাঝারি আকারের গরুগুলোর চাহিদা বেশি থাকায় দাম বেশি। অন্যদিকে বড় আকারের গরুগুলোর চাহিদা কম থাকায় কিছুটা সাশ্রয়ে কিনতে পারছেন বড় বাজেটের ক্রেতারা।

হাটে গরু কিনতে আসা হাবিবুর রহমান জানান, গেল বছরের তুলনায় এবার গরুর দাম অনেক বেশি। বাজেট অনুযায়ি গরুর আকার মিলছে না, সামনে আরো কয়েক হাট রয়েছে দেখে শুনে কিনবো।

গোবিন্দাসী হাটের ইজাদার জাহিদুল ইসলাম খোকা বলেন, এ বছর হাটের ইজারা ৫২ লাখ টাকা। লোকসানের আশঙ্কা জেনেও ঐতিহ্যবাহী গোবিন্দাসী গরু হাটকে আবারও আগের রুপে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি। কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে ব্যবসায়ীদের সুবিধার জন্য সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। হাটে ট্রাক টোকেন, লোড-আনলোড ফি মুক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়াও কোন প্রকার চাঁদাবাজি, চুরি, ছিনতাই রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা ঃ ইশরাত জাহান বলেন, হাটে আসা ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তার জন্য প্রশাসনের পক্ষে থেকে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এছাড়া গরু পরিক্ষার জন্য উপজেলা প্রাণীর সম্পদের কর্মকর্তারা রয়েছেন।

Previous articleসোনারগাঁওয়ে মেঘনা ইকোনমিক জোনে আগুন
Next articleপ্রেমিকের ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্রীর মৃত্যু, বাবা হাসপাতালে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।