জয়নাল আবেদীন: রংপুরের কাউনিয়ায় মাদ্রাসায় পড়া হিফজখানার তের বছর বয়সী আবাসিক দুই ছাত্রকে বলৎকারের অভিযোগে শিক্ষক আমির হামজাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার রাত সোয়া ৮ টার দিকে উপজেলার কুর্শা ইউনিযয়নের মীরবাগ এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। এর আগে বেলা ৩টার দিকে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ এবং শিক্ষক আমির হামজা রংপুর প্রেসক্লাবে নিজেদেও পক্ষে সাফাই গেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন ।

আমির হামজা উপজেলার হারাগাছ ইউনিয়নের সোনাতন সিদ্দিক বাজার এলাকার উম্মে হানি মডেল মাদরাসার হিফজখানার আবাসিক শিক্ষক। তিনি মিঠাপুকুর উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের মৃত ইসমাইল মন্ডলের ছেলে।

কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মাসুমুর রহমান জানান, এ ঘটনায় রবিবার রাতে এক ছাত্রের বড় ভাই আমির হামজাকে আসামী করে নারী শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। মামলা দায়েরের পর পরেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাকে মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে গতকাল সোমবার দুপুরে রংপুর আদালতে পাঠানো হয় এরপর আদালত তাঁকে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয় ।

মামলার তদন্তকারী কাউনিয়া থানার উপপরিদর্শক এসআই সামিউল ইসলাম বলেন, আমির হামজা উম্মে হানি মডেল মাদরাসার হিফজখানার আবাসিক শিক্ষক। ওই মাদ্রাসায় স্থানীয় অনেক শিশু ছেলে শিক্ষার্থী রাতে হিফজখানায় আবাসিক হলে থাকে। আবাসিকে থাকা শিশু শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করিয়া রাতে ধর্ষণের চেষ্টা করতো আমীর হামজা।

গত ২১ জুন গভীররাতে আবাসিক হলে থাকা দুই শিশু ছেলে শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে আমীর হামজা। রাতের ঘটনা যেন কাউকে বলা না হয় এজন্য ওই শিশুদের ভয়ভীতি দেখানো হয়। পরে ভয়ে ওই দুই শিক্ষার্থী ভোরে মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে বাড়ীতে গিয়ে তাদের অভিভাবকদের ঘটনাটি জানায়।এসআই সামিউল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি জানাজানি হলে দুই শিক্ষার্থীর অভিভাবক এবং স্থানীয় লোকজন বিষয়টি ওই মাদ্রাসার পরিচালক রুহুল কুদ্দুসকে জানায়। কিন্তু মাদ্রাসার পরিচালক এবং কতিপয় লোকজন ওই শিক্ষকের পক্ষ হয়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার পায়তারা করে। স্থানীয়দের মাধ্যম জানতে গত শনিবার ওসি স্যার নিজেই ঘটনাস্থলে যান এবং তদন্ত করেন। পরে রোববার রাতে এক অভিভাবক থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।মাদ্রাসার পরিচালক রুহুল কুদ্দুস বলেন, তিনি ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য কোন প্রকার পায়তারা কবা হয়নি। বরং ঘটনা জানার পর নিজেই ঘটনাটি মাদ্রাসার সভাপতি হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে অবগত করি। তিনি বিষয়টি দেখতে চেয়েছিলেন।

এদিকে হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাজু আহমেদ বলেন, বিষয়টি যেহেতু স্পর্ষকাতর, সেহেতু বিষয়টি পুলিশের ইউনিয়ন বিট ইনচার্জকে জানিয়েছি। তারা ব্যবস্থা নিবে।হারাগাছ ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আব্দুল গফুর বলেন, হিফজখানা মাদ্রাসায় শিক্ষকের কাছ থেকে শিশুরা দ্বীনি শিক্ষা নিবে। কিন্তু কতিপয় শিক্ষক যদি অপকর্ম করে, তাহলে শিখবে কোথায়। আর যারা অপকর্মে লিপ্ত থাকা শিক্ষককে পক্ষ নেয়, তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা দরকার। তাহলে সমাজে এবং প্রতিষ্ঠানে সামাজিক অবক্ষয় রোধ হবে।রংপুর জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুল আলম পলাশ সাংবাদিকদের জানান, ঘটনাটি নিয়ে অনেক কথা এসেছে। তবে যেন কেউ ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে না পারে সেদিকটা আমরা লক্ষ্য রেখে সুনিদ্রিষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত শিক্ষককে রোববার রাত সোয়া আটটার দিকে মীরবাগ এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

Previous articleস্বেচ্ছাসেবক দলের মিথ্যাচারের প্রতিবাদে শাহজাদপুরে আ’লীগের সংবাদ সম্মেলন
Next articleগাজীপুরে সড়কে গাছ ফেলে ডাকাতি, আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৯ সদস্য গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।