অতুল পাল: পূর্ণিমার জোঁ’ এবং ভরা কাটালের প্রভাবে বাউফলের তেঁতুলিয়া ও লোহালিয়া নদীর পানি অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের বাতামতলি, মমিনপুর, জাফরাবাদ, ধুলিয়া ইউনিয়নের মঠবাড়িয়া, নাজিরপুর ইউনিয়নের নিমদি, ধানদি, বড়ডালিমা, কচুয়া, কাছিপাড়া ইউনিনের কারখানা এবং চন্দ্রদ্বীপের ১১টি গ্রামসহ কমপক্ষে ২৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বাড়িঘর, পুকুর সবই পানিতে থৈ থৈ করছে। কোমর থেকে বুক সমান পানিতে সয়লাব হয়ে গেছে মাইলের পর মাইল এলাকা।

ধুলিয়া লঞ্চঘাট এলাকায় ভাঙ্গনরোধে ফালানো বালুভর্তি জিও ব্যাগের বাঁধ উপচে পানি ভিতরে প্রবেশ করছে। অনেক এলাকায়ই আমনের বীজতলা পানিতে তলিয়ে গেছে। তেঁতুলিয়ার নদীর মধ্যবর্তী চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এনামুল হক আলকাচ মোল্লা জানান, চর নিমদি, চর ব্যারেট, চর রায়সাহেব, চর ওয়াডেল, চর মিয়াজানের বেড়ি বাঁধের বাইরের কিছু অংশ জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। ওইসব এলাকার আমন বীজতলা পানির নিচে তলিয়ে গেছে। চর ব্যারেটের ইউপি সদস্য জসিম উদ্দিন মৃধা জানান, পশ্চিম চরব্যারেটের দক্ষিণ এলাকা থেকে কামাল হাওলাদের বাড়ি পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার কাঁচা রাস্তার বিভিন্ন অংশ ভেঙ্গে ভিতরে পানি প্রবেশ করেছে।

এছাড়াও দরজি বাড়ি থেকে সেলিম মাঝির দোকান পর্যন্ত পৌনে ১ কিলোমিটার কাঁচা সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। সড়কটির অধিকাংশই ভেঙ্গে গেছে। চর দিয়ারা কচুয়ার কৃষক ওমর মুন্সি জানান, অনেক কৃষকের আমনের বীজতলা তলিয়ে গেছে।

বৃহষ্পতিবার দুপুরে সরেজমিন কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বেশকিছু গ্রামের বাড়িঘরের আঙ্গিনা ও পুকুর তলিয়ে গেছে। গবাদিপশুর জন্য রাখা খড়ের গাঁদা অর্ধেকটা তলিয়ে গেছে। হঠাৎ এধরণের ঘটনার জন্য কেউ প্রস্তুত না থাকায় পুকুরের মাছ আটকানোর মতো কোন ব্যবস্থাও করতে পারেনি। পূর্ণিমার জোয়ারের পানির প্রভাবে এমন ঘটনায় দিশেহারা হয়ে পড়ছে সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দারা।

Previous articleনোয়াখালী জেলা আ.লীগের আহবায়ক করোনা আক্রান্ত
Next articleভূঞাপুরে নূরুল ইসলাম বাবুলের স্মরণসভা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।